বাজেটে পুঁজিবাজারে বিনিয়োগ বাড়ানোর নীতি সহায়তা থাকবে: অর্থমন্ত্রী

Send
বাংলা ট্রিবিউন রিপোর্ট
প্রকাশিত : ০৪:১২, মে ১৮, ২০১৮ | সর্বশেষ আপডেট : ০৪:১৩, মে ১৮, ২০১৮

 

 পুঁজিবাজারকে দীর্ঘমেয়াদি বিনিয়োগের উৎস হিসেবে তৈরি করতে আগামী বাজেটে নীতি সহায়তা থাকবে বলে জানিয়েছেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আব্দুল মুহিত। বৃহস্পতিবার (১৭ মে) রাজধানীর একটি হোটেলে ‘বাংলাদেশে দীর্ঘমেয়াদি বিনিয়োগে অর্থায়ন’ শীর্ষক সেমিনারে প্রধান অতিথির বক্তব্যে অর্থমন্ত্রী এ কথা বলেন। অর্থ মন্ত্রণালয়, সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন এবং বিশ্বব্যাংক যৌথভাবে এ সেমিনারের আয়োজন করে।

অর্থমন্ত্রী বলেন, ‘কিছু কিছু বাণিজ্যিক ব্যাংক পুঁজিবাজারে দীর্ঘমেয়াদি বিনিয়োগের চেষ্টা করছে। কিন্তু এটা ব্যাংকের কাজ নয়। পুঁজিবাজারকে দীর্ঘমেয়াদি বিনিয়োগের উৎস হিসেবে তৈরি করতে আগামী বাজেটে নীতি সহায়তা থাকবে।’

সেমিনারে অন্যান্যের মধ্যে বাংলাদেশ ব্যাংকের গর্ভনর ফজলে কবির, জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) চেয়ারম্যান মো. মোশাররফ হোসেন ভূঁইয়া, অর্থ মন্ত্রণালয়ের আর্থিক বিভাগের সিনিয়র সচিব মো. ইউনুসুর রহমান, বিশ্বব্যাংকের কান্ট্রি ডিরেক্টর চিমিয়াও ফান এবং বিএসইসির চেয়ারম্যান অধ্যাপক এম এম খায়রুল হোসেন বক্তব্য রাখেন।

সেমিনারে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন বিশ্বব্যাংকের সিনিয়র ফাইন্যান্সিয়াল অফিসার লার্নডু পাকসিনো এবং রিভার্সটোন ক্যাপিটাল লিমিটেডের সিইও মো. আশরাফ আহমেদ।

বাজেটের পর দীর্ঘমেয়াদি বিনিয়োগ বাড়াতে পুঁজিবাজার সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে আলোচনা করা হবে উল্লেখ করে মুহিত বলেন, ‘দেশের অর্থনীতির উন্নয়নে দীর্ঘমেয়াদে বিনিয়োগ বাড়াতে হবে। আর এই বিনিয়োগের উৎস হবে পুঁজিবাজার। কিন্তু পুঁজিবাজার দুর্বল হওয়ার কারণে সেটা সম্ভব হচ্ছে না।’

বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর বলেন, ‘২০২৪ সালে আনুষ্ঠানিকভাবে উন্নয়নশীল দেশের তালিকায় প্রবেশ করার জন্য আমাদের এখন থেকে প্রয়োজনীয় প্রস্তুতি নিতে হবে। সেজন্য দেশে দীর্ঘমেয়াদে স্থায়ী বিনিয়োগ বাড়াতে হবে। আমাদের রফতানি পণ্যের তালিকা আরও বাড়াতে হবে। একটি দুইটি খাতের ওপর নির্ভর না করে নতুন নতুন শিল্পকারখানা স্থাপন করতে হবে।’

এনবিআর চেয়ারম্যান মোশাররফ হোসেন ভূঁইয়া বলেন, ‘দেশে বিনিয়োগ বাড়াতে আগামী বাজেটে বেশ কিছু পদক্ষেপ নেওয়া হবে। যাতে দেশে নতুন নতুন শিল্প কারখানা স্থাপন করা যায়।’

বিশ্বব্যাংকের কান্ট্রি ডিরেক্টর চিমিয়াও ফান বলেন, ‘বাংলাদেশ উন্নয়নশীল দেশের তালিকায় প্রবেশ করেছে। আগামীতে মধ্যম আয়ের দেশে যেতে হলে দীর্ঘমেয়াদি বিনিয়োগ হতে হবে। এজন্য প্রয়োজন অবকাঠামো খাতের উন্নয়ন, বিনিয়োগবান্ধব পরিবেশ তৈরি করা।’

তিনি আরও বলেন, ‘রোহিঙ্গা সমস্যা মোকাবিলা করার জন্য বাংলাদেশকে দীর্ঘমেয়াদে পরিকল্পনা করতে হবে। এই সংকট মোকাবিলায় বিশ্বব্যাংক বাংলাদেশকে আগামীতেও সমর্থন দিয়ে যাবে।’

/জিএম/এএম/

লাইভ

টপ