পোশাক শ্রমিকদের বেতন কাঠামোতে বৈষম্যের সমাধান এ মাসেই

Send
বাংলা ট্রিবিউন রিপোর্ট
প্রকাশিত : ১৮:৫২, জানুয়ারি ০৮, ২০১৯ | সর্বশেষ আপডেট : ২১:০০, জানুয়ারি ০৮, ২০১৯

শ্রমভবনে পোশাক শ্রমিক-মালিক ও সরকারের ত্রিপক্ষীয় বৈঠকে সভাপতিত্ব করেন নবনিযুক্ত বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশী

গত ১ ডিসেম্বর থেকে কার্যকর হওয়া পোশাক শ্রমিকদের বেতন কাঠামোতে কোন বৈষম্য বা অসঙ্গতি থেকে থাকলে চলতি জানুয়ারি মাসের মধ্যেই তা সংশোধন করা হবে। ফেব্রুয়ারিতে সংশোধিত গ্রেডিংয়েই বেতন পাবেন শ্রমিকরা। টানা তিন দিনের শ্রমিক বিক্ষোভ নিরসনে মঙ্গলবার (৮ জানুয়ারি) শ্রম ভবনে আয়োজিত পোশাক শ্রমিক-মালিক ও সরকারের ত্রিপক্ষীয় বৈঠকে এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। 

বৈঠকে এ সমস্যা সমাধানে কমিটিও গঠনের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। এ কমিটিতে গার্মেন্টস মালিকদের পাঁচ জন, গার্মেন্টস শ্রমিকদের পাঁচজন এবং বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের দুই সচিব থাকবেন। এই কমিটি চলতি মাসের মধ্যে পোশাক শ্রমিকদের জন্য সরকার ঘোষিত বেতন কাঠামোর কোনও গ্রেডের মধ্যে অসঙ্গতি থাকলে তা বিশ্লেষণ করে প্রতিবেদন জমা দেবে।

এ বৈঠকে শ্রমিকদের আন্দোলন ছেড়ে নিজ নিজ কারখানার কাজে ফিরে যাওয়ারও আহ্বান জানিয়েছেন নবনিযুক্ত বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশী। তবে এরপরেও কেউ যদি রাস্তায় আন্দোলন করেন তাহলে সরকার কঠোর ব্যবস্থা নেবে বলেও হুঁশিয়ারি দিয়েছেন তিনি। 

বৈঠকে মজুরি কাঠামোর অসঙ্গতি ঠিক করার সিদ্ধান্তের পর শ্রমিক নেতাদের পক্ষে বাংলাদেশ টেক্সটাইল গার্মেন্ট শ্রমিক ফেডারেশনের সভাপতি মাহাবুবুর রহমান ইসমাইল এবং জাতীয় গার্মেন্টস শ্রমিক ফেডারেশনের সভাপতি আমিনুল হকও শ্রমিকদের বুধবার থেকে কাজে যোগদানের অনুরোধ জানান। 

বৈঠক শেষে শ্রম ও কর্মসংস্থান প্রতিমন্ত্রী মুন্নুজান সুফিয়ান বলেন, বেতন কখনও কমে না। শ্রমিকদের বেতন কমবে না। জানুয়ারিতে অসঙ্গতি দূর করে শ্রমিকদের বেতন দেওয়া হবে। অসঙ্গতি দূর হওয়ার পর যে বেতন হবে তা জানুয়ারিতে থেকেই কার্যকর হবে। চলতি মাসের ঘাটতি সমন্বয় করে ফেব্রুয়ারিতে বেতন দেওয়া হবে।

শ্রমিক নেতাদের উদ্দেশে  ‍মুন্নুজান সুফিয়ান বলেন, শ্রমিকদের নেতা হয়ে যেন শ্রমিকদের শেষ না করেন। কোনও নৈরাজ্যের সুযোগ দেওয়া হবে না।

বৈঠক শেষে বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশী বলেন, ‘এখানে শ্রমিক নেতারা কথা বলেছেন, মালিক নেতারা কথা বলেছেন। শ্রমিকদের বেতন কাঠামোর কোনও কোনও গ্রেডে অসঙ্গতি আছে। এটা সমাধানের জন্য শ্রমিক ও মালিক উভয় পক্ষের পাঁচ জন করে সদস্য কমিটিতে থাকবেন। এছাড়াও শ্রম সচিব, বাণিজ্য সচিব, আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর প্রতিনিধিরা কমিটিতে থাকবেন। তারাসহ সংশ্লিষ্টরা বসে এটা সমাধান করবেন। সমাধান অবশ্যই হবে। এখানেই শেষ নয়। বাইরে থেকে যারা ধ্বংসাত্মক কাজ করছেন তারা এই ট্রেডের বন্ধু নয়, তারা এই ট্রেডের লোক নয়। তাদের বিরুদ্ধে শক্ত অবস্থান নেওয়া হবে।

বৈঠকে বাণিজ্য সচিব মফিজুল ইসলাম, শ্রম সচিব আফরোজা খান, ডিএমপি কমিশনার আছাদুজ্জামান মিয়া, এফবিসিসিআই সভাপতি শফিউল ইসলাম মহিউদ্দিন, বিজিএমইএ সভাপতি সিদ্দিকুর রহমান, বিজিএমইএ সাবেক সভাপতি আনোয়ার-উল আলম চৌধুরী পারভেজ ও আতিকুল ইসলাম, এমপ্লয়ার্স ফেডারেশেনর সভাপতি কামরান টি রহমান, বিজিএমইএর বর্তমান সহসভাপতি মো. নাসির, বিজিএমইএর বর্তমান সহসভাপতি এস এম মান্নান কচি এবং গার্মেন্টস শ্রমিক সংগঠনের নেতারা উপস্থিত ছিলেন।

এর আগে বেতন কাঠামোতে বৈষম্য দূর করাসহ বিভিন্ন দাবিতে গত রবিবার থেকে টানা তিন দিন রাস্তায় আন্দোলন করে পোশাক শ্রমিকরা।

/এসএমএ/এসআই/এমএইচবি/টিএন/

লাইভ

টপ