বিদ্যুতের সিস্টেম লস কমাতে ওভার বিলিং না করার নির্দেশ

Send
সঞ্চিতা সীতু
প্রকাশিত : ০৭:৫৯, মে ২২, ২০১৯ | সর্বশেষ আপডেট : ২০:৩৫, মে ২৭, ২০১৯

বিদ্যুৎকয়েক বছর ধরে বিদ্যুৎ বিভাগের পক্ষ থেকে বিতরণ কোম্পানিগুলোকে সরবরাহ লস কমিয়ে আনার নির্দেশ দেওয়া হচ্ছিল।এরই ধারাবাহিকতায় এখন বাংলাদেশ বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ড (পিডিবি) ও নর্দার্ন পাওয়ার সাপ্লাই কোম্পানি (নেসকো) ছাড়া অন্য কোম্পানিগুলোর সিস্টেম লস সিঙ্গেল ডিজিটে নেমে এসেছে। কিন্তু সিস্টেম লস কমাতে গিয়ে যাতে গ্রাহকদের ওভার বিলিং (ব্যবহৃত ইউনিটের বিপরীতে বেশি বিল) করা না হয় সেদিকে সর্তক থাকার জন্য সংশ্লিষ্টদের নির্দেশ দিয়েছে বিদ্যুৎ বিভাগ।

এ বিষয়ে পাওয়ার সেলের মহাপরিচালক মোহাম্মদ হোসেইন বলেন, ‘আমরা দীর্ঘদিন ধরেই চেষ্টা করছি সিস্টেম লস সিঙ্গেল ডিজিটে নামিয়ে আনতে। ছয় বিতরণ কোম্পানির মধ্যে চারটি এরই মধ্যে সিস্টেম লস সিঙ্গেল ডিজিটে নামিয়ে আনতে সক্ষম গয়েছে। পিডিবির অবস্থাও ভালো। আর নেসকো নতুন কোম্পানি হওয়ার কারণে একটু সময় লাগছে।’ তিনি বলেন, ‘সিস্টেম লস কমিয়ে আনতে হলে প্রি-পেইড মিটার স্থাপনের কাজ দ্রুত করতে হবে। কিন্তু মিটার কেনার প্রক্রিয়াটি একটু ধীরগতিতে চলছে, তাই সময় লাগছে। তবে খুব শিগগির প্রি-পেইড মিটার স্থাপনের মাধ্যমে সব বিতরণ কোম্পানির সিস্টেম লস সিঙ্গেল ডিজিটে নেমে আসবে বলে আমরা আশা করছি।’ ওভার বিলিংয়ের বিষয়ে তিনি বলেন, ‘অনেক সময় বিতরণ কোম্পানির নিচের দিকের কর্মকর্তা-কর্মচারী, বিশেষ করে মিটার রিডাররা কাজ দেখাতে গিয়ে যাতে গ্রাহকদের ওপর ওভার বিলিং না করে, সেজন্য তাদের সর্তক করা হয়েছে।  সম্প্রতি বিদ্যুৎ বিভাগে অনুষ্ঠিত এক বৈঠকে এই নির্দেশনা দেওয়া হয়।

বিদ্যুৎ বিভাগ সূত্র জানায়, বর্তমানে পিডিবির সিস্টেম লস ১০ শতাংশ, পল্লী বিদ্যুতায়ন বোর্ডের (আরইবি) ৯ দশমিক ২৯ শতাংশ, ঢাকা বিদ্যুৎ সরবরাহ কোম্পানির (ডেসকো) ৪ দশমিক ৪২, ঢাকা বিদ্যুৎ বিতরণ কোম্পানির (ডিপিডিসি) ৬ দশমিক ২৪, পশ্চিমাঞ্চল বিদ্যুৎ বিতরণ কোম্পানির (ওজোপাডিকো) ৮ দশমিক ৮০ এবং নেসকোর ১১ দশমিক ৮৬ শতাংশ। এদিকে মোট সিস্টেম লসের মধ্যে বিতরণ লস ৮ দশমিক ৩৫ শতাংশ, সঞ্চালন লস ২ দশমিক ৭৪ শতাংশ, সব মিলিয়ে লস এখনও ১০ দশমিক ৬৬ শতাংশ। বৈঠকে পিডিবি জানায়, সিস্টেম লস কমিয়ে আনতে তারা প্রি-পেইড মিটার স্থাপনের পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে।

আরইবি জানায়, সমিতির নিজস্ব অর্থায়নে ২০ হাজার ৫০০টি প্রি-পেমেন্ট মিটার স্থাপন করা হয়েছে। আরও ৪০ হাজার মিটার কেনার চুক্তি হয়। এডিবির অর্থায়নে ১০ লাখ প্রি-পেমেন্ট মিটার কেনার কারিগরি মূল্যায়ন শেষ হয়েছে। এছাড়া, সরকারি অর্থায়নে আরও ৩১ লাখ প্রি-পেমেন্ট মিটার কেনার ডিপিপি (উন্নয়ন প্রকল্পের প্রস্তাব) চূড়ান্ত হয়েছে।

ঢাকা পাওয়ার ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানি জানায়, আজিমপুর, লালবাগ ও শ্যামলী এলাকায় ২ লাখ ১৮ হাজার ৯৮১টি প্রি-পেইড মিটার স্থাপন করা হয়েছে। ধারাবাহিকভাবে আরও মিটার স্থাপন করা হবে। ডেসকো জানায়, এরই মধ্যে এক লাখ ২২ হাজার ২৩৬ জন গ্রাহককে মিটারের আওতায় আনা হয়েছে। আরও এক লাখ মিটার স্থাপনে ওয়ার্ক অর্ডার দেওয়া হয়েছে। ওজোপাডিকো জানায়, সিস্টেম লস কমাতে প্রতিষ্ঠানটির মিটার স্থাপনের কাজ চলছে। নেসকো জানায়, পিডিবি থেকে পাওয়া পাঁচ লাখ মিটার স্থাপনের কাজ করছে তারা।

 

 

/এসএনএস/ওআর/এপিএইচ/

লাইভ

টপ