নেপালের জলবিদ্যুৎ প্রকল্পে বাংলাদেশকে বিনিয়োগের প্রস্তাব

Send
বাংলা ট্রিবিউন রিপোর্ট
প্রকাশিত : ২০:৫৬, জুন ২০, ২০১৯ | সর্বশেষ আপডেট : ২০:৫৯, জুন ২০, ২০১৯





বাংলাদেশ-নেপাল যৌথ স্টিয়ারিং কমিটির দ্বিতীয় সভা নেপালের চিহ্নিত ২০টি জলবিদ্যুৎ প্রকল্পের যেকোনও একটিতে বাংলাদেশকে বিনিয়োগের আহ্বান জানিয়েছে দেশটি। বৃহস্পতিবার (২০ জুন) কক্সবাজারে স্থানীয় একটি হোটেলে বাংলাদেশ-নেপাল যৌথ স্টিয়ারিং কমিটির দ্বিতীয় সভায় নেপালের পক্ষ থেকে এই প্রস্তাব দেওয়া হয়েছে।

বাংলাদেশের বিদ্যুৎ সচিব ড. আহমদ কায়কাউস এবং নেপালের বিদ্যুৎ, পানিসম্পদ ও সেচ সচিব দিনেশ কুমার ঘিমি নিজ নিজ দেশের প্রতিনিধিদলের নেতৃত্ব দেন।

বিদ্যুৎ বিভাগ থেকে জানানো হয়, নেপাল জল-বিদ্যুৎকেন্দ্র স্থাপনের বিপুল সম্ভাবনা রয়েছে। বাংলাদেশে বিদ্যুতের প্রয়োজনীয়তা বিবেচনায় এই সম্ভাবনা কাজে লাগানোর বিষয়ে ফলপ্রসূ আলোচনা হয়। উভয় দেশের মধ্যে ঋতুভেদে বিদ্যুতের চাহিদার তারতম্যের আলোকে পারস্পরিক পাওয়ার ট্রেডিংয়ের বিষয়টি সভায় গুরুত্বসহ বিবেচনা করা হয়।

যৌথ ওয়ার্কিং গ্রুপের একজন কর্মকর্তা জানান, নেপালে জল-বিদ্যুৎকেন্দ্রে বিনিয়োগের সম্ভাবনা খতিয়ে দেখা ও বাংলাদেশের করপোর্টে প্রতিষ্ঠানের নেপালের বিদ্যুৎখাতে অংশ নেওয়ার বিষয়ে সভায় নীতিগত সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।

উল্লেখ্য, নেপাল সরকার সে দেশে সম্ভাব্য ২০টি জলবিদ্যুৎ প্রকল্প চিহ্নিত করেছে। উভয় দেশের মধ্যে পাওয়ার ট্রেডিং (ক্রয়-বিক্রয়) পন্থা নির্ধারণ এবং আন্তঃসীমান্ত সংযোগের মাধ্যমে বিদ্যুৎ সঞ্চালনের সম্ভাব্যতা যাচাইয়ের লক্ষ্যে দুই দেশের প্রতিনিধিদের নিয়ে গঠিত জয়েন্ট টেকনিক্যাল টিম (উৎপাতদন) এবং জয়েন্ট টেকনিক্যাল টিম (সঞ্চালন) ইতোমধ্যে কাজ শুরু করেছে। তবে সঞ্চালন লাইনের অংশ বিশেষ ভারতের ভূখণ্ডের মধ্যে নির্মিত হবে। তাই বাংলাদেশ-ভারত-নেপাল ত্রিপক্ষীয় সমঝোতার মাধ্যমে বিষয়টি এগিয়ে নিয়ে যেতে হবে বলে সভায় মত প্রকাশ করা হয়।

সূত্র জানায়, ভারতের জিএমআর-এর মাধ্যমে নেপালে বাস্তবায়িত ৯০০ মেগাওয়াট আপার কাদালি জল-বিদ্যুৎকেন্দ্রে উৎপাদিত বিদ্যুৎ থেকে ৫০০ মেগাওয়াট বাংলাদেশে আমদানির অগ্রগতির বিষয়টি সভায় আলোচনা হয়।

জয়েন্ট স্টিয়ারিং কমিটির সভা শেষে বাংলাদেশের সিনিয়র সচিব, বিদ্যুৎ বিভাগ ড. আহমদ কায়কাউস এবং নেপালের বিদ্যুৎ, পানিসম্পদ ও সেচ সচিব দিনেশ কুমার ঘিমি নিজ নিজ দেশের পক্ষে কার্য বিবরণীতে স্বাক্ষর করেন। এর আগে বাংলাদেশের বিদ্যুৎ বিভাগের যুগ্ম সচিব ফয়জুল আমিন ও নেপালের যুগ্ম সচিব প্রবীণ রায় আরিয়াল ওয়ার্কিং গ্রুপের সভার কার্য বিবরণীতে সই করেন।

উল্লেখ্য , বাংলাদেশে-নেপাল জয়েন্ট ওয়ার্কিং গ্রুপ এবং জয়েন্ট স্টেয়ারিং কমিটির প্রথম সভা গত বছর ডিসেম্বরে নেপালের কাঠমান্ডুতে অনুষ্ঠিত হয়।

/এসএনএস/এমএনএইচ/

লাইভ

টপ