behind the news
Vision  ad on bangla Tribune

আমানতের সুদহার কমানোর পরামর্শ ব্যবসায়ীদের

বাংলা ট্র্রিবিউন রিপোর্ট।।১৮:৩১, নভেম্বর ১৮, ২০১৫

FBCCI LOGOক্ষুদ্র ও মাঝারি উদ্যোক্তা (এসএমই) খাতে ৯ শতাংশ সুদে ব্যাংক ঋণ প্রদানের দাবি জানিয়েছে ব্যবসায়ীদের শীর্ষ সংগঠন এফবিসিসিআই। প্রয়োজনে আমানতের সুদের হার কমানোরও পরামর্শ দিয়েছেন তারা।

বুধবার মতিঝিলস্থ এফবিসিসিআই সম্মেলন কক্ষে আয়োজিত এসএমই খাতের সমস্যা ও সম্ভাবনা নিয়ে এক মতবিনিময় সভায় এ দাবি জানানো হয়।

এফবিসিসিআই সভাপতি মাতলুব আহমাদের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত মতবিনিময় সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন শিল্পমন্ত্রী আমির হোসেন আমু। বিশেষ অতিথি ছিলেন শিল্প সচিব মোশাররফ হোসেন ভূঁইয়া, বাংলাদেশ ব্যাংকের ডেপুটি গভর্নর এসকে সুর চৌধুরী, এসএমই ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান কেএম হাবিব উল্লাহ প্রমুখ।

এসএমই খাতের প্রধান সমস্যা হচ্ছে ব্যাংক ঋণ, এমন তথ্য জানিয়ে এফবিসিসিআই সভাপতি মাতলুব আহমাদ বলেন, এখন ১৭ থেকে ১৮ শতাংশ সুদে এসএমই ঋণ দেওয়া হচ্ছে। ফলে এসএমই খাতের কাঙ্ক্ষিত বিকাশ হচ্ছে না। অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি ধরে রাখতে হলে ৯ শতাংশ সুদে এসএমই ঋণ দিতে হবে।

এসএমই ঋণ পাওয়া যায় না, ব্যবসায়ীদের এমন বক্তব্যের জবাবে বাংলাদেশ ব্যাংকের ডেপুটি গভর্নর এসকে সুর চৌধুরী বলেন, ২০১০ সালে ৩৮ হাজার ৮৫৮ কোটি টাকার এসএমই ঋণ হিসেবে বিতরণ করা হয়েছে। ২০১৫ সালে এ ঋণ বিতরণ ছাড়িয়েছে ১ লাখ কোটি টাকা।

ব্যাংকগুলোর সমালোচনা করে তিনি বলেন, ব্যাংকগুলো তেলা মাথায় তেল দেয়। এসএমই ঋণ দিতে খুব বেশি আগ্রহী নয় তারা। তারপরও বাংলাদেশ ব্যাংক এসএমই ঋণ বিতরণে তৎপর। এসএমই ঋণে সুদহার কমিয়ে আনার চেষ্টা চলছে।

শিল্পমন্ত্রী আমির হোসেন আমু বলেন, সরকার গ্রামভিত্তিক অর্থনীতিকে চাঙ্গা করতে চায়। ক্ষুদ্র, কুটির ও মাঝারি শিল্প স¤প্রসারিত করতে পারলে নগরে চাপ কমবে। গ্রামের মানুষ এখন ভাল আছে। ৪০০ টাকার নিচে শ্রম পাওয়া যায় না।

তিনি আরও বলেন, বিসিক শিল্প নগরীগুলোতে বড় বড় কোম্পানি শিল্প স্থাপন করছে। অনেক স্থানে ভূমি সংকটের কারণে ব্যবসা স¤প্রসারণ করতে পারছেন না ব্যবসায়ীরা।

বিসিকের প্লট বরাদ্দ পাওয়া সত্তে¡ও যারা দীর্ঘদিন শিল্প স্থাপন করতে পারেনি, এমন খালি প্লটের তালিকা তৈরি করে সেগুলোর বরাদ্দ বাতিল করা হবে বলেও জানান শিল্পমন্ত্রী।

বিসিক চেয়ারম্যান আহমেদ হোসেন খান বলেন, বিসিকের কিছু শিল্প নগরী অপরিকল্পিতভাবে গড়া হয়েছে। সমস্যা চিহ্নিত করে সমাধানের উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। জমি সংকট মেটাতে আরও ২৪টি শিল্পনগরী স্থাপনের উদ্যোগ নেওয়া হচ্ছে।

এ ব্যাপারে ব্যবসায়ীদের সহায়তা কামনা করে তিনি বলেন, ব্যবসায়ীরা করতে না পারলেও এসএমই খাতের উন্নয়নে বিসিক তথ্য ভাণ্ডার তৈরি করছে। আগামী ১ মাসের মধ্যে কাজ সম্পন্ন হবে। এ তথ্য ভাণ্ডারে দেশের সব এসএমই প্রতিষ্ঠানের তালিকা থাকবে। এর ভিত্তিতে পরবর্তীতে এসএমই উন্নয়নে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

/এসআই/এফএইচ/

Global Brand  ad on Bangla Tribune

লাইভ

টপ