behind the news
Vision  ad on bangla Tribune

তরুণ সামাজিক উদ্যোক্তাদের পাশে দাঁড়ানোর আহ্বান

বাংলা ট্রিবিউন রিপোর্ট২২:১৫, মার্চ ২৯, ২০১৬

তরুণ সামাজিক উদ্যোক্তাবাংলাদেশে সামাজিক ব্যবসাকে এগিয়ে নিতে তরুণ উদ্যোক্তাদের পাশে দাঁড়ানোর জন্য বিত্তবান ও ব্যবসায়ী প্রতিষ্ঠানগুলোর প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন ব্রিটিশ কাউন্সিলের হেড অব সোসাইটি সৈয়দ মাসুদ হোসেন।

মঙ্গলবার ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসের ফুলার রোডে ব্রিটিশ কাউন্সিল আয়োজিত এক প্রতিযোগিতায় তিনি এ আহ্বান জানান।

মাসুদ হোসেন বলেন, ‘আমাদের দেশে অনেক তরুণ উদ্যোক্তা রয়েছেন যারা মূলধন ও পরিচর্যার অভাবে তাদের ব্যবসায়ীক ধারণা বাস্তবায়ন করতে পারেন না। ব্রিটিশ কাউন্সিল সেইসব উদ্যোমী তরুণদের সুযোগ তৈরি করে দিতেই এ প্রতিযোগিতার আয়োজন করেছে।’

এ সময় তিনি উপস্থিত উদ্যোক্তা, ব্যবসায়ী ও বিভিন্ন ব্যবসায়ী প্রতিনিধিরদের তরুণ সামাজিক উদ্যোক্তাদের ধারণাগুলো কাজে লাগিয়ে তাদের পাশে দাঁড়ানোর আহ্বান জানান।

ব্রিটিশ কাউন্সিলের সহযোগিতায় ‘সোস্যাল এন্টারপ্রাইজ ডেমো ডে’ শীর্ষক ওই প্রতিযোগিতার আয়োজন করে চেঞ্জ মেকার।

গত জানুয়ারি মাসে শুরু হওয়া এ প্রতিযোগিতায় সারাদেশ থেকে ৫৭টি সামাজিক উদ্যোগের ধারণা নিয়ে মোট ১৭১ জন উদ্যোক্তা অংশ নেন। যার মধ্যে প্যানেল বিচারকদের মাধ্যমে প্রাথমিকভাবে ১০টি ধারণা বাছাই করা হয়। ওই ১০টি দলের প্রতিযোগীরা ফেব্রুয়ারি মাসে ব্রিটিশ কাউন্সিলের বুট ক্যাম্পে অংশ নিয়ে তাদের ব্যবসার বিস্তারিত ধারণা, পদ্ধতি এবং বাস্তবায়ন প্রক্রিয়া নিয়ে আলোচনা করেন। পরে চূড়ান্তভাবে ৫টি দলকে দেশের ব্যবসায়ী, উদ্যোক্তা ও প্রতিষ্ঠানের সামনে তাদের ধারণা তুলে ধরার সুযোগ দেওয়া হয়।

মঙ্গলবার সন্ধ্যায় ব্রিটিশ কাউন্সিলের এক অনুষ্ঠানে ব্যবসায়ী ও উদ্যোক্তাদের কাছে ব্যবাসায়ীক ধারণার বিস্তারিত তুলে ধরে বিভিন্ন প্রশ্নের জবাব দেন প্রতিযোগীরা।

চূড়ান্ত হওয়া পাঁচটি ধারণা হলো-
১. হ্যাপি অর্গানিক হাউজ: যারা প্রাথমিকভাবে কুষ্ঠিয়া থেকে অর্গানিক কৃষিপণ্য উৎপাদন করে বাজারজাত করবেন।
২. বন্ধন: যারা প্রাথমিকভাবে সিলেটে শিশু ও বয়স্ক মানুষের জন্য সেবাকেন্দ্র চালু করবেন। বিশেষ করে চাকরিজীবীরা অফিসের সময় তাদের শিশু বা বাবা-মাকে ওই সেবাকেন্দ্রে রেখে নিশ্চিত থাকবেন।
৩. গ্রিন ফাইটার: যারা ঢাকা শহরের ভবনের ছাদে কৃষিপণ্য উৎপাদন করে পরিবারের পুষ্টি চাহিদা মেটাবেন।
৪. সঞ্জীবন: যারা সামাজিক ব্যবসা করে সিলেটের চা শ্রমিকদের বিকল্প জীবিকার ব্যবস্থা করবেন।
৫. পোকা বা প্রান্তিক: যারা কেমিক্যালমুক্ত ফল ও সবজির বিভিন্ন প্যাকেজ সরবরাহ করার জন্য বাজার তৈরি করবেন।

অনুষ্ঠানে চেঞ্জ মেকারের প্রধান নির্বাহী সৈয়দ তানজিদ-উর-রহমানসহ ব্যবসায়ী, উদ্যোক্তা ও বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের প্রতিনিধিরা উপস্থিত ছিলেন।

/এসএনএইচ/এজে/

সম্পর্কিত সংবাদ

 
 
 
 

লাইভ

Nitol ad on bangla Tribune
টপ