ভিজে যাই তারুণ্যের আলোয়

Send
তুষার আবদুল্লাহ
প্রকাশিত : ১৩:৪৮, আগস্ট ১২, ২০১৭ | সর্বশেষ আপডেট : ১৩:৫১, আগস্ট ১২, ২০১৭

তুষার আবদুল্লাহশ্রাবণে আছি। শ্রাবণের জলধারা শহরে বসে উপভোগে পোষায় না। তাই বাইরে পা রেখেছিলাম। স্বল্প বিরতিতে কয়েকটি জেলা ঘুরে এলাম। এই জেলাগুলোতে গত কুড়ি বছরে একাধিকবার যাওয়া হয়েছে। তাই এই জনপদগুলোর মানুষের যাপিত জীবন বা সংস্কৃতির পরিবর্তন চোখে আটকে যায়। দৃশ্যমান বদলগুলোর বাইরেও পট পরিবর্তন ঘটে মানুষের মন ভৌগলিক জমিনেও। বছর খানেক দূরত্বে আবারও একই জনপদে ফিরে গেলে সেই বদলগুলো স্পষ্ট দেখা যায়। নিয়মিত যাতায়াতে দেখা যায় না, এমন বলবো না। তবে সেজন্য সুক্ষ্ম নজর থাকা দরকার। আমাদের সেই নজর দেওয়ার মতো ফুরসত কই? লক্ষীপুরে আমি সপ্তমবারের মতো গেলাম। সেই যাওয়াগুলো ছিল আতঙ্কের। অর্থাৎ আতঙ্কিত জনপদের খবর সংগ্রহ করা। সেই সময়গুলোতে তরুণদের দেখেছি অস্ত্র তপস্যা করতে। ক্ষমতা বলয়ে পাঁক খেতে। এবার গিয়ে দেখি আতঙ্ক কমেছে। ক্ষমতার বলয় থেকে তরুণরা সবাই যে বিযুক্ত হতে পেরেছে তা নয়, অস্ত্রের সঙ্গে যুক্ত হয়েছে মাদক আসক্তি। জেলা শহরের বাইরে, উপজেলা ইউনিয়নগুলোতে তরুণদের নানা ভোগে মত্ত থাকার আয়োজন বেড়েছে। কিন্তু তারপরেও কিশোর-তরুণরা পথে নেমে এসেছে নানা স্বপ্ন ফেরি করতে। তারা নানা সংগঠন করছে। এক সময় মফস্বল শহরগুলোতে তরুণরা যে সংগঠন নিয়ে মেতে থাকতো, তা আবার ফিরে আসার সোরগোল শুনতে পেলাম লক্ষীপুরে।
মাঝে চাঁদপুরে কিছু সময় কাটাতে হয়েছে। ঘণ্টা দুয়েক সময়। সেই সময়টুকুতে কথা হলো অনেক পরিচিত-অপরিচিত জনের সঙ্গে। তাদের কাছ থেকে জানা- রাজনীতির আদর্শিক লড়াইয়ে তরুণদের ব্যবহার করা হচ্ছে না। এই কথা লক্ষীপুরেও শুনে এসেছি। তরুণ বিভক্ত করে দেওয়া হচ্ছে ক্ষমতা উপভোগের প্রলোভনে। একই রাজনৈতিক দলে তরুণরা বিভক্ত হয়ে পড়ছে দখলের শক্তি কোন দিকে তা বিবেচনা করে। তবে সবাই যে সেদিকে মেতে আছে তা নয়। চাঁদপুরের তরুণরাও বিভিন্ন সংগঠন থেকে নানা ভাষায়-ইশারায় তারণ্যের অপচয়ের প্রতিবাদ করছে। সংগঠিত করছে তরুণদের শুদ্ধ সংস্কৃতি ও রাজনীতির রক্ষাকবচ হিসেবে তৈরি হতে।
দিন দুয়েকের বিরতি দিয়ে আবার পথে বেরিয়ে পড়া। টাঙ্গাইল, ময়মনসিংহ হয়ে শেরপুর। সঙ্গী ছিলেন কয়েকজন রাজনীতিবিদ বন্ধু। তাদের দেখে পথে পথে নেতা-কর্মীদের জমায়েত, স্লোগান। সেখানে তরুণদের ভিড়ই বেশি। বিভক্ত তারাও। একই দলে ক্ষমতা উদযাপন নিয়ে বিভক্তি তৈরি হয়েছে। আগামীতে কোন পক্ষ ক্ষমতা দখলে রাখতে পারবে, সেই অঙ্ক কষে এখন থেকেই বিভক্তি। রাজনীতিবিদ বন্ধুরাই বলছিলেন তরুণদের মধ্যে যদি আদর্শিক ভাঙন থাকতো, বিভক্তি থাকতো তাহলে সেটিকে শুদ্ধ রাজনৈতিক অনুশীলন হিসেবেই দেখা যেত। কিন্তু ক্ষমতা উপভোগের প্রলোভন এবং ঈপসা নিয়ে যে দ্বন্দ্ব এবং লড়াই, তা একপ্রকার আত্মহনন। কারণ এই দ্বন্দ্ব রাজনৈতিক নেতৃত্ব তৈরি করছে না। তৈরি করছে দখলবাদী নেতৃত্বের উপাসক। আদর্শের উপাসক না হয়ে দখলবাদী নেতৃত্বের উপাসক হলে, বর্তমান তারুণ্য আগামী দিনে দেশকে নেতৃত্ব দেওয়ার জন্য যোগ্য হয়ে উঠবে না।

জেলা শহরগুলোতে ভোগের আয়োজন বেড়েছে। যেখানে এক সময় এক কাপ চা খেতে টঙ খুঁজে বেড়াতে হতো, সেখানে এখন কফি সুলভ। রাজধানীর নামি-দামি ফ্যাশন হাউজগুলোও পৌঁছে গেছে সীমান্তবর্তী শহরে। ভোগের সকল উপকরণের ফাঁকে ফাঁকে আছে মাদক। এই মাদক কেড়ে নিচ্ছে তারুণ্যের উদ্যমতা। বছর দুই আগেও যে তরুণকে রাজনীতি বা সংস্কৃতির ময়দান দাপিয়ে বেড়াতে দেখা যেতো, সেই তরুণ এখন ঝিমুনিতে আছে। কেউ কেউ মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়েছে। এই মাদকও রাজনৈতিক প্রশ্রয় ছাড়া বিপণন হয় না। এমনটাই খবর পেলাম স্থানীয় মানুষ জনের কাছে। তারাই বলছেন তরুণদের কেউ এখন আর যত্ন নেয় না। ব্যবহার করে ছুঁড়ে ফেলে দেয়। এই তথ্যগুলো হয়তো আমাকে হতাশার ঝিমুনিতে ডুবিয়ে দিতে পারতো। পারেনি, কারণ আমার সঙ্গে দেখা হলো, অসংখ্য তরুণের সঙ্গে। যারা নিজেরাই জেগে উঠছে। নিজেদের রক্ষার জন্য কারও ওপর তারা ভরসা করছে না। ওদের কথা- আমরাই আমাদের যত্ন নেবো। আমাদের উদ্যম হারিয়ে যাওয়ার নয়, নষ্টদের প্রতিবাদে, রাজনীতির, সংস্কৃতির মুখোশ মানুষগুলোর বিরুদ্ধে আমরা আবার ময়দান মুখোর করে তুলবো। আপনারা শুধু আমাদের ওপর আস্থা রাখুন, আমরা আদর্শের উপাসনা করতে চাই, ভোগ দখলের নয়।

যখন রাজধানীতে ফিরছিলাম, তখন তুমুল শ্রাবণ ঝড়। দুইপাশের জনপদ অন্ধকার। আঁধারের পথ ভেঙ্গে আমাকে সামনে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছে শ্রাবণের জলধারা। সেই জলধারায় আলো ঝরছে। সেই আলো কখনো আমরা দেখতে পাই কখনো পাইনা। আমাদের তরুণরা যেন সেই আলো। ষড়ঋতু জুড়ে সেই আলো আমাদের জড়িয়ে রাখুক।

লেখক: বার্তা প্রধান, সময় টিভি

 

*** প্রকাশিত মতামত লেখকের একান্তই নিজস্ব। বাংলা ট্রিবিউন-এর সম্পাদকীয় নীতি/মতের সঙ্গে লেখকের মতামতের অমিল থাকতেই পারে। তাই এখানে প্রকাশিত লেখার জন্য বাংলা ট্রিবিউন কর্তৃপক্ষ লেখকের কলামের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে আইনগত বা অন্য কোনও ধরনের কোনও দায় নেবে না।

লাইভ

টপ