সরকারের ধান কেনা সমাধান নয়

Send
হারুন উর রশীদ
প্রকাশিত : ১৮:০৪, মে ২১, ২০১৯ | সর্বশেষ আপডেট : ১৮:৪৭, মে ২১, ২০১৯

হারুন উর রশীদকৃষক ধানের ক্ষেতে আগুন দিয়েছেন। রাস্তায় ধান ছিটিয়ে প্রতিবাদও করছেন কম দামের জন্য। এটা মানুষের আবেগকে স্বাভাবিক কারণেই নাড়া দিয়েছে। কৃষকের কষ্ট দেশের মানুষ অনুভব করছেন। তাই ছাত্র, পুলিশ সদস্য, প্রশাসনের কর্মকর্তা এমনকি সাধারণ মানুষ গিয়ে কৃষকের ধান কেটে দিচ্ছেন। আওয়াজ উঠেছে সরকারের পক্ষ থেকে ন্যায্যমূল্যে ধান কেনা হোক। কৃষকের সব ধান সরকার সরাসরি কৃষকের কাছ থেকে কিনুক। এমনকি সংসদীয় কমিটি বুঝে হোক অথবা সস্তা জনপ্রিয়তা লাভের জন্য হোক লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে বেশি ধান কিনতে বলেছে সরকারকে। কিন্তু আমার প্রশ্ন হলো সরকার যদি তার নির্ধারিত দামে কৃষকের সব ধানও কেনে তাহলে কি এই সমস্যার সমাধান হবে?
সমস্যাটা সোজা। একেবারে পানির মতো। স্বচ্ছ এবং তরল। তরল বলছি এ কারণে, পানি যেমন যে পাত্রে রাখা হয় সেই পাত্রের আকার ধারণ করে। এই ধানের সমস্যাটাও সরল হলেও এর কারণ এবং সমাধান নিয়ে যে যার মতো ব্যাখ্যা দিতে পারেন। আর মনে হবে সব ব্যাখ্যাই সঠিক। তবে সবাই এক বাক্যে যা বলছেন তা হলো, কৃষক যা খরচ করে ধান ফলাচ্ছেন বিক্রি করে সেই দাম পাচ্ছেন না। পাচ্ছেন অর্ধেক বা তার কিছু বেশি। তার মনে হলো কৃষক ধান উৎপাদন করে লোকসান দিচ্ছেন। উৎপাদন খরচের অর্ধেকও তুলতে পারছেন না। লাভ তো বহু দূরে।
তাহলে সমাধান কী? সবাই বলছেন ধানের সঠিক দাম নির্ধারণ করা এবং কৃষকের কাছ থেকে সরাসরি ধান সেই দামে সরকারকে কিনতে হবে। আর এই দাবি নিয়ে এখন সারাদেশ গরম। ফেসবুকে বিদ্রোহ। কলামিস্টদের গরম গরম লেখা আর অনলবর্ষী বক্তৃতাও শুরু হয়ে গেছে। কিন্তু সবাই মিলে কৃষকের ধান কেটে দিতে এগিয়ে গেলেও কাউকেই দেখছি না কৃষকের ধান বেশি দামে কিনতে গেছেন। এটা কেউ করছেন না কেন? সবাই মিলে আমরা বেশি দামে ধান কিনলেই তো সমস্যার সমাধান হয়ে যাবে। আমাদের সবারই তো চাল লাগে। আমরা তো ভেতো বাঙালি, নাকি? সরকারের দিকে চেয়ে আছি কেন?
কৃষকের সর্বোচ্চ কোথায় খরচ হয় : 
বড় একটি সমস্যা আছে যা আমরা হয়তো লক্ষ করছি না। অথবা বুঝতে পারছি না। আমরা বিষয়টিকে ধানের দাম কম হিসেবে না দেখে কৃষকের উৎপাদন খরচ বেড়ে গেছে সেদিক থেকে বিবেচনা করে কি দেখেছি? আপনাদের জানিয়ে রাখি, কৃষকের ধান উৎপাদনের খরচ বেড়ে গেছে। আর এই খরচের ৫০ ভাগই যায় একটি খাতে। সেটা কী? সেটা হলো ফসল কাটার মজুর বা শ্রমিক। এক বিঘা জমিতে ধান উৎপাদনের মোট খরচ ১৪ হাজার টাকা। আর তার মধ্যে ৭ হাজার টাকা দিতে হয় শুধু ফসল কাটার জন্য মজুরকে। এখন একজন ফসল কাটা শ্রমিকের প্রতিদিন মজুরি এক হাজার টাকা। আর এক বিঘা জমির ফসল কাটতে লাগে ৭ জন মজুর। এখন কি মজুরের মজুরি কমিয়ে দিতে কোনো আইন করতে চান? তা কি ঠিক হবে? তখন তো আমরা আবার হাহাকার তুলব।
টাঙ্গাইলের দুই উপজেলার যে দু’জন কৃষক ফসলের ক্ষেতে আগুন দিয়েছেন তাদের দু’জনের সাথেই আগুন দেওয়ার পর আমার দীর্ঘ কথা হয়েছে। আমি একটি প্রতিবেদন তৈরি করার জন্যই তাদের সাথে কথা বলেছি। তারা হলেন কালিহাতী উপজেলার কৃষক আব্দুল মালেক ও বাসাইল উপজেলার নজরুল ইসলাম। তারা দু’জনই স্পষ্ট ভাষায় বলেছেন, শ্রমিকদের অতিরিক্ত মজুরির কারণেই তারা ধানের ক্ষেতে আগুন দিয়েছেন। ধানের যা দাম তাতে ওই পরিমাণ মজুরি দিয়ে ধান কাটালে তাদের অনেক লোকসান গুনতে হবে। 
তারা আমাকে একবিঘা (৩৩ শতক) জমিতে ধান উৎপাদনের খরচের একটি মোটামুটি হিসাবও দিয়েছেন-
চাষ ১,০০০ টাকা, বীজ ও রোপণের খরচ ২,৫০০, প্রথম দফায় সার ১,৫০০, দ্বিতীয় দফায় সার, কীটনাশক, নিড়ানি ২,০০০, ফসল কাটতে ৭ জন দিনমজুরের জন্য ৭,০০০ টাকা। এর সঙ্গে আছে দিনমজুরদের খাওয়া খরচ। তারা কী খাবেন সেটা কিন্তু আগেই আলোচনার মাধ্যমে সিদ্ধান্ত নিতে হয়। কোনোভাবেই ৫-৬শ’ টাকার নিচে হয় না। আবার ধান ক্ষেতে পানি থাকলে মজুরি বেড়ে যায়। এখানে মোট খরচ দাঁড়ায় ১৪,৫০০ টাকা। লক্ষ করুন এর মধ্যে ধান কাটার জন্য মজুরের খরচই প্রায় অর্ধেক ৭,০০০ টাকা, যা কৃষককে মাত্র এক দিনেই শোধ করতে হয়। একজন মজুর দিনে সর্বোচ্চ ৫ শতক জমির ধান কাটতে পারেন। তাই ৭ জন শ্রমিকের নিচে হয় না।
এই খরচের মধ্যে কৃষক নিজের এবং পরিবারের সদস্যদের শ্রম ও নিজের জমি হওয়ায় জমির ভাড়ার হিসাব এখানে দেননি। সেই হিসাব দিলে খরচ আরো বাড়বে।
উৎপাদন খরচ বনাম ধানের দাম: 
এক বিঘা জমিতে কৃষক বেরো ধান পান ১৫-১৬ মণ। যদি ১৬ মণও ধরে নিই তাহলে প্রতিমণ ধানের উৎপাদন খরচ ৮৭৫ টাকা। তাতে প্রতিকেজি ধানের উৎপাদন খরচ ২৩ টাকা। তবে সরকার মনে করে এবার প্রতিকেজি ধানের উৎপাদন খরচ গড়ে ২৫ টাকা ৩০ পয়সা। সরকার এবার সরকারি ক্রয়ের জন্য ধানের প্রতিমণের দাম ধরেছে ১,০৪০ টাকা। কিন্তু বাজারে এখন কৃষককে ধান বিক্রি করতে হচ্ছে প্রতিমণ ৫০০ টাকায়। তাতে প্রতিকেজির দাম পড়ে ১৩ টাকা ৭৫ পয়সা। সরকারের উৎপাদন খরচ যদি ধরে নিই তাহলে প্রতিকেজি ধান উৎপাদন করে কৃষককে ১১ টাকা ৫০ পয়সারও বেশি লোকসান গুনতে হয়। কারণ কৃষক তো আর সরকারি গুদামে ধান সরাসরি বিক্রির সুযোগ পান না। দু-এক জন পেলেও তাতে দেশের কৃষকদের কিছু আসে যায় না। সারাদেশে এবার সরকার ধান কিনবে দেড় লাখ টন, যা মোট উৎপাদনের শূন্য দশমিক ৩ শতাংশের বেশি নয়। এই পুরোটাও যদি সরাসরি কৃষকদের কাছ থেকে কেনা হয় তারপরও তা দিয়ে ধানের বাজার প্রভাবিত বা সরকারি দামের পর্যায়ে আনা যাবে না। আর গত বছর মোট ধান উৎপাদন ৩ কোটি ৬২ লাখ টনে পৌঁছে গেছে। এবার লক্ষ্যমাত্রা ৩ কোটি ৫৫ লাখ টন, যার মধ্যে বোরো ১ কোটি ৯৬ লাখ টন।
সরকারের কাছে কেন ধান বেচতে পারে না:
সরকারি গুদামে বা সরকারের কাছে সরাসরি ধান বেচতে হলে-
১. কৃষককে তালিকাভুক্ত হতে হবে
২. ধানের আর্দ্রতা ১৪ মাত্রার বেশি হতে পারবে না
৩. জাতীয় পরিচয়পত্র লাগবে
৪. ব্যাংক অ্যাকাউন্ট থাকতে হবে
কৃষক তালিকাভুক্ত করার কাজ করে আবার থানা কৃষি অফিস। কিন্তু গত দুই বছর ধরে এই তালিকাভুক্তি বন্ধ রয়েছে। নিয়মে আছে তালিকাভুক্ত হতে হলে প্রকৃত কৃষক হতে হবে। তিনি জমির মালিক বা বর্গাচাষি হবেন। ধান উৎপাদনের সঙ্গে সরাসরি জড়িত থাকতে হবে। তবে এই তালিকাভুক্তির কাজেও আবার আছে দুর্নীতি।
আসলে প্রত্যেক উপজেলায় সরকারি গুদামে ধান বিক্রির একটি চক্র আছে। কারণ সাধারণ কৃষক আর্দ্রতার বিষয়টি বোঝেন না। আর ধান বিক্রি করতে তালিকাভুক্তসহ যেসব শর্ত পূরণ করতে হয় সেসব শর্ত পূরণ করা অনেক কৃষকের পক্ষেই সম্ভব হয় না। অভিজ্ঞতায় দেখা গেছে, সব শর্ত পূরণ করলেও কৃষককে ধানের আর্দ্রতার মারপ্যাঁচে ফেলে ফিরিয়ে দেওয়া হয়। আর ওই চক্রটি কৃষি অফিসের মাধ্যমে তালিকাভুক্ত হয় এবং উপজেলা খাদ্য অফিসের সাথে মিলে আর্দ্রতাসহ সব শর্ত পূরণ করে। ফলে বছরের পর বছর তারাই প্রকৃত কৃষকের নামে সরকারি গুদামে ধান বেচে। তারাই এখন কৃষকের কাছ থেকে ৫০০ টাকা মণ কিনে সরকারি গুদামে ১,০৪০ টাকা দরে বিক্রি করবে। প্রতিমণে লাভ করবে ৫৪০ টাকা। এই লাভের টাকার ভাগ পায় কৃষি, খাদ্য প্রশাসনসহ সব দফতর। এটা কৃষককে বড় ধরনের ঠকানো। এটা যদি সরাসরি কৃষক বেচতে পারতেন সরকারি গুদামে তাহলে কিছু কৃষক লাভবান হতেন সত্য। কিন্তু তারা দেশের ধান উৎপাদনকারী কৃষকের অতি সামান্য অংশ।
সরকার ধান কিনে বাজার নিয়ন্ত্রণ করতে পারবে না: 
আগেই বলেছি এবার সরকার ধান কিনবে দেড় লাখ টন। একজন কৃষক সরকারের কাছে ধান বিক্রি করতে পারবেন সর্বোচ্চ ৩ টন। ধানের বাম্পার ফলনের কারণে বছরে ধান উৎপাদন ৩ কোটি ৬২ লাখ টনে পৌঁছে গেছে। ওই মাত্র দেড় লাখ টন মোট উৎপাদিত ধানের খুবই সামান্য অংশ। যদি একজন কৃষক সর্বোচ্চ ৩ টন ধান বিক্রি করতে পারেন সরকারের কাছে, তাহলে মোট ৫০ হাজার কৃষক সরকারের কাছে ধান বিক্রি করতে পারবেন। এবার শুনুন, শুধু টাঙ্গাইলের একটি উপজেলা বাসাইলেই তালিকাভুক্ত কৃষক আছেন ৩৭ হাজার। তাহলে দেশের বাকি উপজেলার কৃষকদের কী হবে। সরকার যদি ক্রয় দ্বিগুণও করে তাহলে হয়তো ৩ উপজেলার কৃষকদের ধান কিনতে পারবে। কিন্তু উপেজলা তো ৪৯২টি। এটাও ঠিক, কৃষক তো তার সব ধান বিক্রি করবেন না। আর সব কৃষক ধান বিক্রিও করবেন না। তা বিবেচনায় নিলেও খুব অল্পসংখ্যক কৃষকের ধানই কিনতে পারবে সরকার।
সরকারের ধান কেনা কি সমাধান:
সরকার ধান, চাল ও গম কেনে। এর প্রধান উদ্দেশ্য বাজার নিয়ন্ত্রণ বা মূল্য নিয়ন্ত্রণ করা নয়। এর উদ্দেশ্য আপদকালীন পরিস্থিতি এবং কৃত্রিম সংকট মোকাবেলা করা। ২০১৭ সালে হাওরে বন্যার কারণে ব্যাপক ফসলহানি হয়। সেই কারণে চালের ২৬ ভাগ আমদানি শুল্ক তুলে দিয়ে চাল আমদানি সহজ করা হয় এবং চালের দাম নিয়ন্ত্রণে আনার চেষ্টা করা হয়। সরকার এবার চাল কিনবে সাড়ে ১২ লাখ টন। এই চাল কেনা হবে মিল থেকে। তাহলে সরকারের চেয়ে চালকলগুলো ধানের বড় ক্রেতা। সাড়ে ১২ লাখ টন চাল উৎপাদনে ১৫ থেকে ১৬ লাখ টন ধান লাগবে। এই ধান মিল মালিকরা কিন্তু সরকার নির্ধারিত প্রতিমণ ১,০৪০ টাকা দামে কিনতে বাধ্য নয়। তারা কিন্তু এখন বাজার থেকে ৫০০ টাকা মণ দরেই ধান কিনছে। কম দামে এই ধান কিনে সরকারের কাছে কিন্তু সরকার নির্ধারিত দামে ৩৪-৩৫ টাকা কেজিদরে চাল বিক্রি করবে। বলা যায় ১৩ টাকা ৭৫ পয়সা প্রতিকেজি বোরো ধান কিনে চালকল মালিকরা প্রতিকেজি বোরো চাল বিক্রি করবে ৩৫ টাকায়। 
সরকার তাহলে চালকল বাদ দিয়ে সরাসরি কৃষকের কাছ থেকে চাল কিনলে কী হবে? কৃষক একটু স্বস্তি বোধ করবেন। বেশি দাম পাবেন। কিন্তু কৃষকের সেই সক্ষমতা নেই। এটার জন্য কৃষককে ধান ধরে রাখতে হবে। সেটা পারে না বলেই এই পরিস্থিতি।
কৃষক যে কারণে ধান ধরে রাখতে পারেন না:
কৃষককে ফসলের মাঠ থেকে ধান কেটে তা মাড়াইয়ের পরই বিক্রি করে দিতে হয়। কারণ তিনি নানা সূত্র থেকে ঋণ করে উৎপাদন খরচ মেটান। এই ঋণের আবার সুদও আছে। ঋণ দেওয়ার ক্ষেত্রে এগিয়ে থাকে চালকলের দালাল এবং সরকারি গুদামে ধান বিক্রির চক্র। তাই ধান কাটার পরই সেই ধান কম দামে বিক্রি করে তাদের ঋণ শোধ করতে হয়। কিন্তু এই ধান যদি ২-৩ মাস কৃষক ধরে রাখতে পারতেন তাহলেই দাম পেতেন। দুই-তিন মাস ধরে রাখতে হলে কৃষকের গুদাম লাগবে। একই সঙ্গে ওই সময় তিনি চলবেন কী দিয়ে। সেই টাকা কোথায় পাবেন। আর ধান বিক্রি করে ওজনেও ঠকেন। গ্রামের হাটে ৪৩ কেজিতে এক মণ। পুরো পদ্ধতিই হচ্ছে কৃষক ঠকানোর। 
এ পর্যন্ত যা বলেছি তা থেকে কৃষকের ধান নিয়ে এই সংকটের কয়েকটি কারণ নির্ধারণ করা যাক-
১. উৎপাদন খরচ বেড়ে যাওয়া
২. ধান ধরে রাখতে না পারা
৪. বাম্পার ফলন ও চাল আমদানি
৫. বাজার ব্যবস্থাপনা
উৎপাদন খরচ বেড়ে যাওয়ার বড় কারণ হলো ফসল কাটার শ্রমিকদের মজুরি বেড়ে যাওয়া। আরো আছে সুদে ঋণ নিয়ে ফসল উৎপাদন করা এবং সার বীজের দামবৃদ্ধি।

তাহলে সমাধান কী?
আমি আগেই বলেছি, কৃষি শ্রমিকের সংকটের কারণে এখন ফসল কাটতেই খরচের অর্ধেক চলে যায়। অনেক আগেই কৃষি অর্থনীতিবিদরা কৃষি শ্রমিকের যে সংকট হবে তার আভাস দিয়েছিলেন। সরকার ব্যবস্থা নেয়নি। কিন্তু ধান কাটা ও মাড়াইয়ে আধুনিক যন্ত্রের ব্যবহার না হলে এই খরচ কমানো সম্ভব নয়। আর কৃষক যদি সরকারের কাছ থেকে নামমাত্র সুদে বা বিনা সুদে ঋণ পান তাহলে তাকে চড়া সুদে ঋণ করে ধান উৎপাদন করতে হবে না। একই সঙ্গে যদি সরকারি ব্যবস্থাপনায় ধান সংরক্ষণের ব্যবস্থা করা যায় তাহলে কৃষক ২-৩ মাস ধান ধরে রেখে ভালো দামে বিক্রি করতে পারবেন। যে চালকল সরকারের কাছে চাল বিক্রি করবে সেই চালকলকে সরকার নির্ধারিত দামেই ধান কিনতে হবে। এগুলো করা হলে কৃষক ধান নিয়ে আর সংকটে পড়বেন বলে মনে হয় না।
কৃষিতে পরিকল্পিতভাবে আধুনিকায়ন করতে হবে। সঠিক নিয়মে এবং আধুনিক পদ্ধতিতে চাষ করলে এক বিঘায় ১৬ মণের জায়গায় ২৪ মণ ধান উৎপাদন করা সম্ভব। এটা আমার কথা নয়, কৃষিবিজ্ঞানীদের কথা।
তাই কৃষকের কাছ থেকে শুধু দেড় লাখ টন ধান কেনা সমাধান নয়। সংকটের মূলে হাত দিতে হবে। ধানের সাথে কৃষককে এখন হাই ভ্যালু ক্রোপের দিকেও যেতে হবে। আর এসব কাজে সরকারকেই এগিয়ে আসতে হবে।
তাই চাল রফতানি, কৃষকের কাছ থেকে আরো বেশি করে ধান কেনা- এসব চটকদার কথা। মানুষের আবেগকে ঠান্ডা করা। সেটা সরকার তার প্রয়োজনে করতে পারে। কিন্তু কৃষককে বাঁচাতে হলে তার উৎপাদন খরচ কমানোর ব্যবস্থা করতে হবে। উৎপাদন বাড়ানোর ব্যবস্থা নিতে হবে। সঠিক সময় বিক্রির জন্য সক্ষম করতে হবে। আর চাল বা কৃষিপণ্য নিয়ে মধ্যস্বত্বভোগী সিন্ডিকেট ভেঙে দিতে হবে।
লেখক: সাংবাদিক
ইমেইল:swapansg@yahoo.com

/এসএএস/এমএমজে/

*** প্রকাশিত মতামত লেখকের একান্তই নিজস্ব। বাংলা ট্রিবিউন-এর সম্পাদকীয় নীতি/মতের সঙ্গে লেখকের মতামতের অমিল থাকতেই পারে। তাই এখানে প্রকাশিত লেখার জন্য বাংলা ট্রিবিউন কর্তৃপক্ষ লেখকের কলামের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে আইনগত বা অন্য কোনও ধরনের কোনও দায় নেবে না।

লাইভ

টপ