এডিসই তাহলে শক্তিশালী?

Send
তুষার আবদুল্লাহ
প্রকাশিত : ১৪:৫২, জুলাই ১৩, ২০১৯ | সর্বশেষ আপডেট : ১৪:৫৩, জুলাই ১৩, ২০১৯

তুষার আবদুল্লাহআষাঢ়ের জলধারার মতোই তুমুল তর্ক হচ্ছিল, ডেঙ্গুর প্রকোপ বেড়ে যাওয়ার দায় কার—রাষ্ট্র নাকি ব্যক্তির? দুনিয়ার কাছে ডেঙ্গু নতুন রোগ নয়। ১৭৭৯ সালেও এডিসবাহিত এই রোগের উপস্থিতি ছিল। ১৯৬০ সালে পৃথিবীতে ডেঙ্গু আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা বাড়তে থাকে। বাংলাদেশে কবে ডেঙ্গু এসেছে, বলা মুশকিল। চুপিচুপি এসে থাকতে  পারে  অনেক আগেই। আমরা তাকে শনাক্ত করতে পারিনি। ২০০০-২০০১ সালে দেশের চিকিৎসকরা ডেঙ্গুকে চিহ্নিত করতে সক্ষম হন। ওই বছরগুলোতেই শহর এলাকায় ডেঙ্গু আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে। শহর এলাকায় এই জন্য যে, এডিস মশা পুকুর, খালে, বিলে জন্মায় না। তাদের জন্ম ছোট থালা, ফুলের টব, কৌটো, এমন পানিতে। অল্প জমে থাকা পানিতে এডিসের উৎপত্তি বলেই শহরের অপেক্ষাকৃত অভিজাত এলাকায় ডেঙ্গুর প্রকোপ দেখা দেয় বেশি। অচেনা রোগ, চিকিৎসকরাও ঠিক বুঝে উঠতে পারছিলেন না, কেমন করে চিকিৎসা দেবেন। পরীক্ষা-নিরীক্ষার মাঝে মৃত্যুর ঘটনা ঘটতে থাকে। পরীক্ষা-নিরীক্ষা পর্ব যে শেষ হয়েছে, এমন বলা যাবে না। তাই আতঙ্ক বাড়ছেই। গত এক দশকে আক্রান্তের সংখ্যা বেড়েছে। বাড়ছে মৃতের সংখ্যা। আক্রান্ত হওয়ার পর রোগীর শারীরিক অবস্থার দ্রুত অবনতি ঘটছে। সিটি করপোরেশন এডিস মশা নিয়ন্ত্রণে কামান দাগিয়েও ব্যর্থ। জনগণের দিক থেকে অভিযোগ উঠেছিল, নিম্নমানের ওষুধ ব্যবহারে এডিস নির্মূল করা যাচ্ছে না। কিন্তু নগরপিতার দাবি, ওষুধের মান ঠিকঠাক আছে। শক্তি বেড়েছে এডিস মশার!

আমরা যদি ২০০০-২০০১ এর দিকে ফিরে যাই, দেখবো তখন থেকেই কিন্তু ডেঙ্গুজ্বর প্রতিরোধ ও এডিস মশা নির্মূলে নাগরিক সচেতনতার ওপর গুরুত্ব দেওয়া হয়েছিল। ঢাকা সিটি করপোরেশন তখন বিভক্ত হয়নি। সিটি করপোরেশন এবং বিভিন্ন সামাজিক, সাংস্কৃতিক সংগঠন তখন এডিস মশা নির্মূলে রকমারি সচেতন কার্যক্রম পরিচালনা করতে শুরু করে। গণমাধ্যম তাদের পাশে এসে দাঁড়ায়। তখন নগরবাসীর মধ্যে তাৎক্ষণিক কিছু সচেতনতা লক্ষ করা গেছিল। প্রাণ বাঁচাতে সচেতন হতে ঝাঁপিয়ে পড়ে। এক-দুই বছরের তাৎক্ষণিক সচেতনতা উৎসবের পর নগরবাসী চুপসে গেলো। সদর রাস্তা দূরের কথা, নিজের ঘরও পরিচ্ছন্ন রাখতে নগরবাসীকে নড়তে-চড়তে দেখা গেলো না। সংগঠনগুলোও যেন ঝাঁপ বন্ধ করে দিয়েছে। আমরা যদি রাজধানীর অভিজাত এলাকা থেকে শুরু করে অলিগলির দিকে হেঁটে যাই, দেখবো এডিস মশা চাষের কী সুন্দর আয়োজন করে রেখেছি আমরা নগরবাসীরা। বাড়ির সামনে, উঠোনে বৃষ্টির পানি জমে থাকার উৎসের শেষ নেই। সেখানে এডিসের জন্মোৎসব। একই উৎসব দেখতে পাবো শহরের দালানগুলোর বারান্দা, ছাদে।

সিটি করপোরেশন তাদের লোকবল এবং বাজেট দিয়ে এডিস নির্মূল করতে ব্যর্থ হয়েছে দেড় যুগে। তাদের কামান অকার্যকর। এ সত্য প্রমাণিত। আমরা গত বছরও দেখেছি জনপ্রতিনিধি কামানের ধোঁয়ায় শহর অন্ধকার করে দিচ্ছেন। তাদের সেই আয়োজন গণমাধ্যমের ক্যামেরার মাঝেই সীমিত ছিল। ক্যামেরা সরে গেলে কামানের গোলাও ফুরিয়ে গেছে। এডিস মশা চতুর। তারা এ ধরনের সাজসজ্জাকে বুড়ো আঙুল দেখিয়ে জন্ম বিস্তার ঘটিয়েই গেছে। ডেঙ্গুর সঙ্গে গতবার যোগ হয়েছিল চিকুনগুনিয়া। এই রোগের পীড়ন আরও যন্ত্রণার। সেই ভয়াবহ পীড়নও রাজধানীবাসীকে দায়িত্বশীল নাগরিক করতে পারেনি। এবারের বর্ষাতেও এডিসের আনন্দের সীমা নেই। তারা ঠিক আগের মতোই প্রজনন ক্ষেত্র পেয়ে গেছে। বাম্পার জন্ম হচ্ছে এডিসের। যে পরিবারে  ডেঙ্গু, তাদের বিপর্যস্ত অসহায় অবস্থা করুণ। কিন্তু তারপরও কি সেই পরিবার এবং তাদের প্রতিবেশীরা সচেতন হচ্ছে, বাড়ির আশপাশ পরিচ্ছন্ন রাখছেন? মোটেও না। সামাজিক, সাংস্কৃতিক সংগঠনগুলোরও সাড়া নেই। সকলে হাত গুটিয়ে বসে আছে দুই নগর পিতার ভরসায়। কিন্তু তারাও তো অসহায়, কারণ এডিস যে এখন তাদের চেয়েও শক্তিশালী। তর্ক অনেক দূর চলে গেছিল। যেতে যেতে যে মাইলফলকে গিয়ে থামতে হয়, সেখানে লেখা—নগর পরিচ্ছন্নতার  কাজ নিজের, অর্থাৎ ব্যক্তি থেকেই শুরু করতে হবে। ব্যক্তির শক্তি অসীম।

লেখক: কলামিস্ট

/এসএএস/এমএমজে/

*** প্রকাশিত মতামত লেখকের একান্তই নিজস্ব। বাংলা ট্রিবিউন-এর সম্পাদকীয় নীতি/মতের সঙ্গে লেখকের মতামতের অমিল থাকতেই পারে। তাই এখানে প্রকাশিত লেখার জন্য বাংলা ট্রিবিউন কর্তৃপক্ষ লেখকের কলামের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে আইনগত বা অন্য কোনও ধরনের কোনও দায় নেবে না।

লাইভ

টপ