কাঠগড়ায় রাজনীতি!

Send
রেজানুর রহমান
প্রকাশিত : ১৪:৩৩, অক্টোবর ০৮, ২০১৯ | সর্বশেষ আপডেট : ১৪:৩৪, অক্টোবর ০৮, ২০১৯

রেজানুর রহমানসারাদেশে এখন একটাই খবর—সম্রাট গ্রেফতার হয়েছেন। স্বস্তিকর খবর হলো—সম্রাটেরাও শেষ পর্যন্ত গ্রেফতার হন। সম্রাট। নামের মতো প্রভাব-প্রতিপত্তিতেও তিনি সম্রাট ছিলেন। গ্রেফতারের পর সম্রাটকে ঘিরে যে ধরনের কেচ্ছা-কাহিনি প্রকাশ হচ্ছে, তা যেন রূপকথার গল্পকেও হার মানায়। তিনি করেছেন রাজনীতি। কিন্তু সেটা ছিল তার প্রভাব-প্রতিপত্তি গড়ে তোলার পাশাপাশি অন্ধকার জগতের সম্রাট হওয়ার একমাত্র খুঁটি। রাজনীতিকে তিনি অন্যায় ও অবৈধ কর্মকাণ্ডে ব্যবহার করেছেন। খোঁজ নিলে দেখা যাবে, শুধু সম্রাটই নন, রাজনীতিকে আরও অনেকেই স্রেফ ব্যবসা ও প্রভাব-প্রতিপত্তি গড়ে তোলার বাহন হিসেবে ব্যবহার করেছেন এবং এখনও করছেন। এমন আরও তথ্য হয়তো মিলবে। যে কারণে ‘রাজনীতি’ শব্দটিই যেন এখন কাঠগড়ার অপরাধী। অথচ এই রাজনীতিই প্রিয় মাতৃভূমির স্বাধীনতা এনে দিয়েছিল।
প্রিয় পাঠক, একটু খেয়াল করলেই দেখবেন, মারাত্মক অপরাধ এমনকি খুন করার পরও যদি কেউ গ্রেফতার হন, তাকে বা তাদের নির্দোষ প্রমাণ করার জন্য পরিবারের লোকেরা উঠেপড়ে লেগে যান। শ্রদ্ধাভাজন আইনজীবীদের মধ্যেও অনেকে অপরাধীর পক্ষেই সাফাই গাইতে শুরু করেন। আইনের মারপ্যাঁচে পড়ে খুনের মামলার আসামিও অনেক সময় বেকসুর খালাস পেয়ে যায়।

এই প্রথম দেখলাম একজন অপরাধীর পরিবারেরই একজন গুরুত্বপূর্ণ সদস্য অপরাধীর সাজা চেয়েছেন। সম্রাটের দ্বিতীয় স্ত্রী শারমিন বলেছেন, ‘আমার স্বামী যদি অপরাধ করে থাকে তাহলে তার সাজা হওয়া উচিত। প্রসঙ্গক্রমে শারমিন বলেছেন, এখন যুগ পাল্টেছে। বিনে পয়সায় এখন আর কেউ মিছিলে আসে না। সম্রাট যা আয় করতো, তার একটা বড় অংশ মিছিলে লোক আনার জন্য খরচ করতো।’

শারমিন চৌধুরীর এই বক্তব্যের প্রেক্ষিতে অনেকে হয়তো সম্রাটের প্রতি অনুকম্পা দেখাতে চাইবেন। এক্ষেত্রে নানাজনের নানান মত থাকতেই পারে। কিন্তু একথা তো সত্য, সম্রাট রাজনীতিকে তার স্বার্থে ব্যবহার করেছেন। একসময় হয়তো মিছিল মিটিংয়ে লোক জড়ো করেই দলের নেতাদের সুনজরে পড়ে যান এবং এই ‘সুনজরকেই’ পুঁজি বানিয়ে আজকের সম্রাটে পরিণত হন। শুধু সম্রাটই নন, মিছিল-মিটিংয়ে বেশি বেশি লোক আনতে পারার যোগ্যতায় আজ অনেকেই বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের গুরুত্বপূর্ণ নেতা হয়ে গেছেন। যদিও এখন আর সেই সুযোগ নেই। কারণ দেশে এখন আর মিছিল মিটিংয়ের তেমন একটা দরকার পড়ে না।

প্রিয় পাঠক, একটা চমকপ্রদ তথ্য দেই আপনাদের। আপনি সভা অথবা সেমিনার করবেন। দর্শক দরকার? ফেল কড়ি মাখো তেল। টাকা দিলেই দর্শক পেয়ে যাবেন। জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনের রাস্তায় প্রতিদিন কোনও না কোনও রাজনৈতিক দল অথবা সংগঠনের সভা-সমাবেশ লেগেই থাকে। হাততালি দেওয়ার জন্য লোক দরকার? চিন্তার কোনও কারণ নেই। প্রেস ক্লাবের সামনে গেলেই উপযুক্ত লোক পেয়ে যাবেন। শুধু আওয়াজ দেবেন, অডিয়েন্স চাই। দেখবেন একসঙ্গে একাধিক ব্যক্তি এসে হাজির হবেন। শুধু বলবেন আপনার কতজন অডিয়েন্স দরকার। অবশ্য সভা-সমাবেশের আকার-প্রকারভেদে জনপ্রতি অডিয়েন্সের ভাড়া নির্ধারিত হয়। রাস্তার সমাবেশের ভাড়া এক ধরনের। সেমিনারে যোগ দেওয়ার ভাড়া অন্য ধরনের। আর যদি সেমিনারে খাবারের প্যাকেট পাওয়ার নিশ্চয়তা থাকে, তাহলে জনপ্রতি ভাড়ার পরিমাণ কমে যায়।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একজন ‘জোগানদার’ বললেন, “এখন আর সেই দিন নেই। দেশের পরিস্থিতি ভালো। তাই এখন আর তেমন মিছিল মিটিং হয় না। একপর্যায়ে গর্বের ভঙ্গিতে বললেন, এখন যারা বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের বড় বড় নেতা তাদের অনেককেই আমি ‘অডিয়েন্স’ সাপ্লাই দিছি। মিছিল মিটিংয়ে লোক ভাড়া কইর‌্যা আনছি। এখনও মাঝে মাঝে অনেক নেতা আমার কাছে সংবাদ পাঠায়। মিছিল মিটিংয়ের জন্য ‘অডিয়েন্স’ চায়। সাধ্যমতো জোগাড় কইর‌্যা দেই। তবে মানুষ এখন অনেক চালাক হইয়া গেছে। সরকারি দলের মিছিল মিটিং হইলে ভাড়া বেশি চায়।”

জোগানদার পরিচয়ের এই লোকটিকে প্রশ্ন করেছিলাম, মিছিল মিটিংয়ে লোক ভাড়া করতে হয় কেন? দলকে যারা ভালোবাসে তারা তো এমনিতেই মিছিল মিটিংয়ে আসার কথা। তারা কি আসে না?

জোগানদার লোকটি মৃদু হেসে বলল, “সেই দিন আর এখন নাই। টাকা ছাড়া কেউ এক পাও আগায় না। ভাই, ছোট মুখে একটা বড় কথা বলি। এখন অনেকেই আদর্শের জন্য রাজনীতি করে না। পাওয়ারের জন্য রাজনীতি করে। আপনার রাজনৈতিক পাওয়ার আছে। চিন্তার কিছু নাই। চাঁদার টাকা এমনিতেই হাতে আসবে। গ্রামে-গঞ্জে গেলে দেখবেন রাস্তার দুই ধারে শুধু স্থানীয় নেতাদেরই ছবি। ডিজিটাল যুগ। নিজের চেহারাসহ ব্যানার ফেস্টুন বানানো খুবই সহজ। কিন্তু রাজনৈতিক আদর্শের ‘আ’ সম্পর্কেও অনেকের কোনও ধারণা নাই। রাজনীতিতে যুক্ত থাকলেই একটা পাওয়ার পাওয়া যাবে। এবং সেই পাওয়ারের আশায় ছুটছে অনেকে। তাদের অনেকেরই আইডল  সম্রাটের মতো নেতারা।”

কুমিল্লার চৌদ্দগ্রামে সম্রাটকে গ্রেফতার করার পর যখন তাকে ঢাকায় কাকরাইলে তার অফিসে নিয়ে আসা হয়, তখন গোটা এলাকায় উৎসুখ মানুষের ভিড় দেখা দেয়। তাদের মধ্যে অনেকেই ছিল সম্রাটের অনুগত কর্মী। বিভিন্ন টিভি চ্যানেলে তাদের অনেকের প্রতিক্রিয়া শুনে যারপরনাই অবাক হয়েছি। একজন তো সম্রাটকে মহান নেতা বানিয়ে দিয়ে বলল, ‘ভাই কিন্তু সাধারণ মানুষের অনেক উপকার করতেন।’ তার মানে ঘটনা কী দাঁড়ালো? ঈদ অথবা এ ধরনের কোনও অনুষ্ঠান উপলক্ষে ৫০-১০০ অসহায় মানুষের হাতে সাহায্য তুলে দেওয়া মানেই কি ভালো কাজ করা? সম্রাট মাঝে মাঝে এভাবে দুস্থ মানুষকে সাহায্য করতেন। শুধু সম্রাটই নন, তার মতো আরও যারা আছেন তারাও এভাবে দুস্থ মানুষকে সাহায্য করেন। কেন করেন? এটাও এক ধরনের রাজনীতি। সাধারণ মানুষ যাতে মনে করে আহা নেতা কত ভালো! কিন্তু ভেতরে ভেতরে এ ধরনের নেতারা যে কতটা ভয়ঙ্কর হয়ে ওঠেন, সেটা অনেকেই জানে না। সম্রাট গ্রেফতার না হলে হয়তো তার সম্পর্কেও এত কথা জানা হতো না।

প্রচার মাধ্যমেই জানলাম মালয়েশিয়ায় সম্রাটের একজন বান্ধবী আছে। শুধু তার জন্মদিন পালন করার জন্য দেড় কোটি টাকা দিয়ে একটি প্রমোদতরী ভাড়া করেছিলেন সম্রাট। সিন্ডলিং নামের ওই মালয়েশিয়ান তরুণীর জন্মদিনের পার্টিতে সম্রাটসহ অবৈধ ক্যাসিনো কর্মকাণ্ডের সঙ্গে জড়িত তার অন্যান্য বন্ধুর হাস্যোজ্জ্বল মুখের একটি ছবিও সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ভাইরাল হয়ে গেছে। অনেকেই প্রশ্ন তুলেছেন, এই যে সম্রাটরা রাজনৈতিক পরিচয়ে এতটা ভয়ংকর হয়ে উঠলেন, তার জন্য দায়ী কে? গুটিকয়েক বিপথগামী তথাকথিত নেতার কারণে রাজনীতির মতো অতি প্রিয় শব্দটি যে কাঠগড়ায় দাঁড়াল, তার দায়ভার কার?

লেখক: কথাসাহিত্যিক, নাট্যকার, সম্পাদক আনন্দ আলো

 

/এসএএস/এমএমজে/

*** প্রকাশিত মতামত লেখকের একান্তই নিজস্ব। বাংলা ট্রিবিউন-এর সম্পাদকীয় নীতি/মতের সঙ্গে লেখকের মতামতের অমিল থাকতেই পারে। তাই এখানে প্রকাশিত লেখার জন্য বাংলা ট্রিবিউন কর্তৃপক্ষ লেখকের কলামের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে আইনগত বা অন্য কোনও ধরনের কোনও দায় নেবে না।

লাইভ

টপ