৯০ ঘণ্টা পর সুন্দরবনের আগুন নিয়ন্ত্রণে : প্রশাসনের সতর্ক অবস্থান

Send
খুলনা প্রতিনিধি
প্রকাশিত : ১৯:৪৪, এপ্রিল ৩০, ২০১৬ | সর্বশেষ আপডেট : ১৯:৪৬, এপ্রিল ৩০, ২০১৬

সুন্দর বন আগুন নিয়ন্ত্রণ

৯০ ঘণ্টা পর শনিবার বেলা পৌনে ১২টার দিকে সুন্দরবনের তুলাতলা এলাকার আগুন নিয়ন্ত্রণে এসেছে। ফায়ার সার্ভিস বাগেরহাটের উপসহকারী পরিচালক মো. মানিকুজ্জামান এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। তিনি বলেন,আগুন সম্পূর্ণ নিয়ন্ত্রণ করা হলেও ফায়ার কর্মীরা এখন সতর্ক অবস্থায় আছেন। গাছের শেকড়ের দিকে লক্ষ্য রাখা হচ্ছে।

উল্লেখ্য,পূর্ব বিভাগের চাঁদপাই রেঞ্জের ধানসাগর স্টেশনের পঁচিশ নম্বর কম্পার্টমেন্টের তুলাতলা ও টেংরা এলাকায় বুধবার বিকাল পৌনে পাঁচটার দিকে আগুনের সূত্রপাত হয়। দুর্বৃত্তরা আগুন ধরিয়ে বনের ক্ষতি করার চেষ্টা করলেও সুন্দরবনের ওপর নির্ভরশীল জনগোষ্ঠীর একটি বড় অংশ আগুন নিয়ন্ত্রণে প্রশাসনকে সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দিয়েছে।

সুন্দরবন রক্ষায় বিভিন্ন পদক্ষেপের অংশ হিসেবে সুন্দরবন সংলগ্ন এলাকায় গঠিত বিভিন্ন টিমের সদস্যরা প্রশাসনের সঙ্গে মিলে কাজ করেছেন। এর আগে সুন্দরবনের শ্যালা নদীতে তেল নিয়ে কার্গো ডুবে যাওয়ার পর বনের ওপর নির্ভরশীল জনগোষ্ঠী জীবনের ঝুঁকি নিয়ে খালি হাতেই নদ-নদী থেকে তেল উঠানোয় সহযোগিতা করেছে। তারা পাখীসহ বিভিন্ন প্রাণীর গা থেকে হাত দিয়ে তেল সরিয়ে দিয়েছে। এবারও তেমনি আগুন নিয়ন্ত্রণে তাপদাহ উপেক্ষা করে বনের মধ্যে গিয়ে এবং প্রশাসনের নির্দেশনা অনুযায়ী কাজ করেছে।

আরও পড়তে পারেন : বেসিক ব্যাংক জালিয়াতি মামলায় দুজন গ্রেফতার

চাঁদপাই রেঞ্জের সহকারী বন সংরক্ষক বেলায়েত হোসেন বলেন, বুধবার বিকালে আগুনের সূত্রপাত হলেও বৃহস্পতিবারই আগুন নিয়ন্ত্রণে চলে আসে। শুক্রবার বিভিন্ন এলাকায় দেখা দেওয়া ধোঁয়া সরানোর কাজ চলে। এর ফলে শুক্রবার সন্ধ্যার আগেই আগুন পুরোপুরি নিয়ন্ত্রণে চলে আসে। তারপরও শনিবার সকাল থেকে বনকর্মী ও ফায়ার সার্ভিস কর্মীরা সংশ্লিষ্ট এলাকায় অবস্থান করে নজরদারি করছে। দুপুর পর্যন্ত কোথাও ধোঁয়া বা আগুন দেখা যায়নি। 

সুন্দর বন আগুন নিয়ন্ত্রণ

প্রধান বন সংরক্ষক শনিবার বিকালে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। তিনি বলেন, ফায়ার সার্ভিস কর্মী এবং বন কর্মীদের সঙ্গে সুন্দরবন সংলগ্ন এলাকার জনগোষ্ঠকে নিয়ে গঠিত ‘কমিউনিটি পেট্রোল টিম’ ও ‘ভিলেজ টাইগার রেসপঞ্জ টিম’ এর সদস্যরা সহযোগিতা করেছে।  

শরনখোলা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. শাহ আলম মিয়া বলেন, শুক্রবার সন্ধ্যায় গ্রেফতাকৃত খলিলকে শনিবার সকালে আদালতের মাধ্যমে জেল হাজতে পাঠানো হয়েছে। আদালত থেকে ওয়ারেন্ট আসা অন্যদের গ্রেফতারে পুলিশ তৎপর রয়েছে।

দক্ষিণ রাজাপুর এলাকার বাদশা মিয়া বলেন, ফায়ার সার্ভিসের আগুন পূর্ণ নিয়ন্ত্রণের দাবি যৌক্তিক। তবে,এখনও কোথাও কোথাও শেকড় ধোঁয়া উঠতে দেখা যাচ্ছে। ফায়ার কর্মী ও বন কর্মীদের সতর্কতার কারণে সেগুলো দ্রুত নিয়ন্ত্রণ করা সম্ভব।

খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিবেশ বিজ্ঞান ডিসিপ্লিনের ড. দীলিপ কুমার দত্ত বলেন, প্রাকৃতিকভাবে বনে আগুন ধরলে সে ক্ষেত্রে রি জেনারেশনের সুযোগ থাকে। কিন্তু উদ্দেশ্যমূলকভাবে আগুন ধরিয়ে দিলে, তা সব দিক থেকেই ক্ষতিকর।

আরও পড়তে পারেন : দুর্যোগের তালিকায় আসছে বজ্রপাত
/জেবি/

লাইভ

টপ