দিনাজপুরে গৃহবধূকে শ্বাসরোধে হত্যা, শাশুড়ি আটক

Send
দিনাজপুর প্রতিনিধি
প্রকাশিত : ১৭:৫১, নভেম্বর ১২, ২০১৬ | সর্বশেষ আপডেট : ১৭:৫৫, নভেম্বর ১২, ২০১৬

দিনাজপুর শহরে পারিবারিক কলহের জের ধরে সাইদা সুপাহা (২২) নামে এক গৃহবধূকে শ্বাসরোধে হত্যা করা হয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। এই ঘটনায় সাইদার শাগুড়িকে আটক করেছে পুলিশ। তবে ঘটনার পর থেকে তার স্বামী পলাতক রয়েছে।  শনিবার সকাল সাড়ে ১০ টার দিকে শহরের ৬ নম্বর উপশহর এলাকা থেকে তার লাশ উদ্ধার করে পুলিশ।

নিহত সাইদা সুপাহা সদর উপজেলার হরিহরপুর গ্রামের ফরিদুল ইসলামের মেয়ে ও ৬ নম্বর উপশহর এলাকার রেজাউল ইসলামের স্ত্রী। এ ঘটনায় একটি মামলা দায়ের করার প্রস্তুতি চলছে বলে জানিয়েছে পুলিশ।

দিনাজপুর কোতোয়ালি থানার এসআই সুমন পারভেজ স্থানীয়দের বরাত দিয়ে জানান, দীর্ঘদিন ধরে পারিবারিক বিষয় নিয়ে সাইদা ও তার স্বামী রেজাউল ইসলামের মধ্যে কলহ চলছিল। এরই জের ধরে আজ রেজাউল তার স্ত্রীকে শ্বাসরোধে হত্যা করে। পরে লাশটিতে ফাঁস লাগিয়ে আত্মহত্যা বলে চালিয়ে দেওয়ার চেষ্টা করছিল রেজাউল। এ ঘটনা এলাকাবাসীর মধ্যে জানাজানি হয়ে যায়। পরে এলাকাবাসীর অভিযোগের প্রেক্ষিতে পুলিশ ঘটনাস্থলে আসলে রেজাউল ইসলাম পালিয়ে যায়।

গৃহবধূ সাইদার বাবা ফরিদুল ইসলাম বলেন, বছর তিনেক আগে প্রায় সাড়ে তিনলাখ যৌতুকের বিনিময়ে রেজাউল করিমের সঙ্গে তার মেয়েকে বিয়ে দেন। তাদের এক বছর বয়সী একটি ছেলে সন্তান রয়েছে।

তিনি অভিযোগ করে বলেন, ‘রেজাউলের পরিবারের সদস্যদের মনোমালিন্যের জেরে তার মেয়ের উপর প্রায় নির্যাতনের ঘটনা ঘটতো। এরই জের ধরে সাইদাকে হত্যা করা হয়েছে।’

নিহতের ছোট ভাই মনিরুল ইসলাম জানান, নির্যাতন থেকে বাঁচতে তাকে ফোন করেছিল সাইদা। বলেছিল তাকে মেরে ফেলতে চাইছে ওই পরিবারের লোকজন। পরে তিনি বোনের বাড়িতে এসে  লাশ দেখতে পান।

দিনাজপুর পৌরসভার কাউন্সিলর আবু তৈয়ব দুলাল বলেন, ‘শুক্রবার রাতে ওই গৃহবধুর উপর নির্যাতন চালানো হয়। পরে সে বাঁচতে ঘরের দরজা-জানালা বন্ধ করে ভেতরে আশ্রয় গ্রহণ করে। শনিবার সকালে তার স্বামী জানালা ভেঙে সাইদাকে হত্যা করে।

লাশ ময়নাতদন্তের জন্য দিনাজপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে বলেও জানিয়েছেন এসআই সুমন পারভেজ।  

/এমডিপি/

লাইভ

টপ