behind the news
Rehab ad on bangla tribune
 
Vision Refrigerator ad on bangla Tribune

‘শিক্ষকরা কথা শুনলে হতাহতের ঘটনা ঘটত না’

ময়মনসিংহ প্রতিনিধি২৩:০৮, নভেম্বর ৩০, ২০১৬

আন্দোলনরত শিক্ষকদের সঙ্গে বৈঠকের পর বেরিয়ে যাচ্ছেন এমপি মোসলেম উদ্দিন (সাদা কোটি)ফুলবাড়ীয়া ডিগ্রি কলেজ জাতীয়করণের দাবিতে আন্দোলনরত শিক্ষকরা এমপি পরামর্শ শোনেননি বলেই হতাহতের ঘটনা ঘটেছে, এমন মন্তব্য করেছেন ফুলবাড়ীয়া আসনের সংসদ সদস্য অ্যাডভোকেট মোসলেম উদ্দিন।
বুধবার বিকেলে ময়মনসিংহ সার্কিট হাউজ হলরুমে আন্দোলনরত শিক্ষক নেতাদের সঙ্গে ধর্মমন্ত্রী অধ্যক্ষ মতিউর রহমানসহ রাজনৈতিক নেতাদের বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে এমপি মোসলেম উদ্দিন বলেন, আমার সঙ্গে বৈঠকে বসলে এবং আমার কথা শুনলে কোনও হতাহতের ঘটনা ঘটত না। সমস্যা সমাধানে শিক্ষকদের সঙ্গে বসার জন্য দলীয় নেতাকর্মীদের পাঠানোসহ আমি নিজে যোগাযোগ করেছি। বসার জন্য বারবার অনুরোধ করেছি। কিন্তু তারা আমার কোনও কথা শোনেনি।
আন্দোলনরত শিক্ষকদের সঙ্গে বসার আহবান জানানো বিষয়ে এমপি অ্যাডভোকেট মোসলেম উদ্দিনের বক্তব্যের প্রতিবাদ জানিয়ে ফুলবাড়ীয়া ডিগ্রি কলেজ সরকারীকরণ দাবি আদায় কমিটির সদস্য সচিব ইকবাল হোসেন বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ‘এমপি মোসলেম উদ্দিন সাহেব মিথ্যা কথা বলেছেন। তিনি আমাদের সঙ্গে বসার বিষয়ে কোনও কথা বলেননি। এমনকি দলীয় নেতাকর্মী কাউকেই পাঠাননি।’
ইকবাল হোসেন আরও বলেন, ‘এমপি আন্দোলনের আগে থেকেই প্রায় ৬ মাস ধরে আমাদের আশ্বাস দিয়ে আসছেন কলেজ সরকারীকরণের বিষয়ে। সারাদেশের সরকারীকরণের সর্বশেষ তালিকা যেদিন অর্থাৎ ১৬ অক্টোবর প্রকাশ পেল, সেদিনও তিনি আমাদের বলেছেন আমাদের কলেজই সরকারীকরণ হবে। তালিকা প্রকাশের পর দেখতে পেলাম আমাদের কলেজের নাম নেই। এরপরই আমরা কলেজ জাতীয়করণের দাবিতে কমিটি গঠন করে আন্দোলনে নেমেছি।’
ক্ষুব্ধ এ সদস্য সচিব আরও বলেন, ‘গেল দেড় মাস ধরে আমরা নিয়মতান্ত্রিক আন্দোলন সংগ্রাম করে আসছি। এরমধ্যে এমপি সাহেব একদিনের জন্যও আমাদের খোঁজ খবর নেননি। বরঞ্চ তিনি পুলিশ লেলিয়ে দিয়ে আমাদের প্রিয় সহকর্মীকে হত্যা করিয়েছেন।’

এ বিষয়ে পুলিশের হামলায় আহত অধ্যাপক হেলাল উদ্দিন ক্ষোভ প্রকাশ করে বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ‘সর্বশেষ সরকারীকরণের তালিকা প্রকাশের পরও এমপি সাহেব আমাদের বলেছেন, এরপর আরও অতিরিক্ত একশটি কলেজ সরকারীকরণ হবে। তখন এই কলেজটির নাম থাকবে। তিনি শুধু আমাদের বারবার মিথ্যা আশ্বাসই দিয়ে গেছেন। আন্দোলন শুরুর পর তিনি আমদের সঙ্গে কোনও যোগাযোগ করেননি।

এমপি মোসলেম উদ্দিন কলেজটি সরকারীকরণ করে দেওয়ার কথা বলে শিক্ষক-কর্মচারীদের কাছ থেকে দুই মাসের বেতনের টাকাও নিয়েছেন বলে জানালেন আহত এই অধ্যাপক।

কলেজ সরকারীকরণের জন্য এমপির টাকা নেওয়ার বিষয়টি আন্দোলনরত একাধিক শিক্ষকের কাছে জানতে চাইলে তারাও বিষয়টি স্বীকার করেছেন। তারা জানান, কলেজের উপাধ্যক্ষ আমজাদ হোসেনের মাধ্যমে এমপি সাহেবের সঙ্গে টাকা লেনদেন করা হয়েছে। এসময় আন্দোলনরত ৫/৬ জন শিক্ষকও উপস্থিত ছিলেন।

সাংবাদিকদের সঙ্গে এমপি অ্যাডভোকেট মোসলেম উদ্দিনের মিথ্যাচারের বিষয়ে শিক্ষক-কর্মচারীরা হতবাক হয়েছেন বলে আন্দোলনসংশ্লিষ্টরা জানিয়েছেন।

২৮ নভেম্বর ফুলবাড়ীয়া কলেজ সরকারিকরণের দাবিতে আন্দোলনরতদের ওপর পুলিশ লাঠিচার্জ করে ও রাবার বুলেট ছোড়ে। এতে কলেজের উদ্ভিদবিদ্যা বিভাগের সহকারী অধ্যাপক আবুল কালাম আজাদ ও ছফর আলী (৫৫) নামে এক পথচারী নিহত হন।

/এইচকে/

Ifad ad on bangla tribune

লাইভ

Nitol ad on bangla Tribune
টপ