বোনের বাড়িতে রসরাজ, কাটছে না নিরাপত্তা নিয়ে শঙ্কা

Send
উজ্জল চক্রবর্তী, ব্রাহ্মণবাড়িয়া
প্রকাশিত : ০৩:১০, জানুয়ারি ১৯, ২০১৭ | সর্বশেষ আপডেট : ১৩:১৪, জানুয়ারি ১৯, ২০১৭

জেল থেকে বের হওয়ার পর রসরাজব্রাহ্মণবাড়িয়ার নাসিরনগরে ধর্মীয় অবমাননার অভিযোগে আইসিটি আইনের ৫৭ (২) ধারার মামলায় গ্রেফতার রসরাজ দাস (২৭) জেল থেকে ছাড়া পেয়েছেন মঙ্গলবার (১৭ জানুয়ারি)। ছাড়া পেয়েই বাড়িতে বাবা-মায়ের সঙ্গে দেখা করেন তিনি। পরে বিকালে চলে যান হবিগঞ্জের বুল্লা গ্রামে বোনের বাড়িতে। বৃহস্পতিবার (১৯ জানুয়ারি) নিজের বাড়িতে ফিরে আসার কথা রয়েছে তার। আড়াই মাসেল জেলজীবনে শারীরিকভাবে অসুস্থ ও দুর্বল হয়ে পড়া রসরাজ এখন কিছুদিন বিশ্রাম নিতে চান। আর স্থানীয় পুলিশ কর্মকর্তারা অভয় দিলেও বাংলা ট্রিবিউনের কাছে রসরাজের নিরাপত্তা নিয়ে শঙ্কার কথা জানিয়েছেন তার পরিবারের সদস্যরা।
রসরাজের মামা ইন্দ্রজিত দাসের সঙ্গে বাংলা ট্রিবিউনের কথা হয় বুধবার (১৮ জানুয়ারি)। তিনি বলেন, ‘গতকাল দুপুরে জেল থেকে ছাড়া পাওয়ার পর রসরাজকে তার নিজ বাড়িতে নিয়ে যাই। মা-বাবার সঙ্গে দেখা করার পর হবিগঞ্জের মাধবপুর উপজেলার বুল্লা গ্রামে বোনের বাড়িতে নিয়ে যাই ওকে। ওখানে রসরাজের পায়ের ক্ষতের প্রাথমিক চিকিৎসা করানো হয়। আমি আজ বাড়িতে চলে এসেছি। ও (রসরাজ) কাল বাড়ি ফিরবে।’
রসরাজের কাছে মোবাইল ফোন না থাকায় তার সঙ্গে সারাদিন যোগাযোগ করা সম্ভব হয়নি। তবে বুধবার রাত পৌনে ১১টার দিকে রসরাজের বোন-জামাই নেপাল দাসের মোবাইল ফোনের মাধ্যমে কথা হয় তার সঙ্গে। তিনি বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ‘ভাই, শইলটা (শরীর) ভালা (ভালো) না। খুব দুর্বল লাগতাছে। খাওন-দাওনও করতে পারতাছি না। সারা শইলে বেদনা করতাছে। জেলখানায় ঠিকভাবে খেতে পারিনি। ডাক্তার বলছে, বেশি কইরা ডিম-দুধ খাইতাম। কুসতা (কিছু) ভালা লাগে না। তাই ঘুমাইয়া পড়ছি।’ আধাভাঙা কণ্ঠে রসরাজ জানান, বৃহস্পতিবারই বাড়িতে ফিরবেন তিনি।
জেল থেকে ছাড়া পাওয়ার পর পুলিশ কর্মকর্তাদের আশ্বাসের পরও রসরাজের নিরাপত্তা নিয়ে শঙ্কা কাটছে না তার পরিবারের সদস্যদের। রসরাজের বড় ভাই দয়াময় বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ‘মানুষের মন বলে কথা। কার ভেতরে কী আছে তা তো আর বলা যায় না।’ একই ধরনের শঙ্কার কথা জানিয়েছেন রসরাজের মামা ইন্দ্রজিত ও বোন-জামাই নেপাল দাস। তবে পুলিশের একাধিক কর্মকর্তা তাদের অভয় দিয়েছেন জানিয়ে নেপাল দাস বলেন, ‘তারা (পুলিশ কর্মকর্তারা) বলেছেন, কোনও সমস্যা নেই। তারা বলেছেন, রসরাজ নিজের বাড়িতে আগের মতোই থাকবে।’
এ বিষয়ে নাসিরনগর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. আবু জাফর বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ‘রসরাজ এলাকায় ফিরে যাবে এটাই স্বাভাবিক। তার নিরাপত্তা নিয়ে পুলিশ তৎপর আছে। তার বাড়ির সামনে অস্থায়ী পুলিশ ক্যাম্প বসানো হয়েছে। এছাড়া, সে জামিন পাওয়ার পর এলাকায় গোয়েন্দা নজরদারিও বাড়ানো হয়েছে।’
প্রসঙ্গত, পবিত্র কাবা শরীফ নিয়ে ফেসবুকে ব্যঙ্গচিত্র প্রকাশের অভিযোগে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি আইনের ৫৭ (২) ধারার মামলায় গত ২৯ অক্টোবর গ্রেফতার হন রসরাজ দাস। এ ঘটনার প্রতিবাদে পরদিন ৩০ অক্টোবর নাসিরনগর উপজেলা সদরে দুটি ইসলামি সংগঠনের পক্ষ থেকে ডাকা সমাবেশ থেকে হিন্দু সম্প্রদায়ের মন্দির ও বাড়িঘরে হামলা ও ভাঙচুর চালানো হয়। এ নিয়ে দায়ের হওয়া আটটি মামলায় মোট ১০৭ জনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

আরও পড়ুন-

রসরাজের আড়াই মাসের জেলজীবন

জামিন পেলেন রসরাজ

জেল থেকে ছাড়া পেলেন রসরাজ

/টিআর/

লাইভ

টপ