‘ধর্ষিতা’ শব্দটি ব্যবহার না করার অনুরোধ হেফাজতের

Send
চট্টগ্রাম ব্যুরো
প্রকাশিত : ২০:৫৬, মে ২০, ২০১৭ | সর্বশেষ আপডেট : ০০:০৯, মে ২১, ২০১৭

 

ধর্ষণের শিকার নারীকে ‘ধর্ষিতা’ বলে অভিহিত না করে ‘ভিকটিম’ অথবা ‘নির্যাতিতা’ বলার অনুরোধ জানিয়েছে হেফাজতে ইসলাম। শনিবার সন্ধ্যায় গণমাধ্যমে বিবৃতি পাঠিয়ে সাংবাদিকদের প্রতি এ অনুরোধ জানান হেফাজতে ইসলামের মহাসচিব জুনাইদ বাবুনগরী ও কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক আজিজুল হক ইসলামাবাদী।

বিবৃতিতে তারা বলেন, ‘রেইন ট্রি হোটেলে ধর্ষণের মামলায় গ্রেফতার ধর্ষকদের কঠোর ও দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দেওয়াসহ ভিকটিম দুই তরুণী যাতে ন্যায়বিচার পান তা নিশ্চিত করতে রাষ্ট্রের কাছে আমরা জোর দাবি জানাই। নির্যাতিতা ও মজলুম দুই তরুণীর প্রতি আমরা পূর্ণ সমবেদনা ও সহানুভূতি প্রকাশ করছি।’

হেফাজত নেতারা বলেন, মিডিয়া ও সাংবাদিকদের প্রতি অনুরোধ তাদের ‘ধর্ষিতা’ বলে অভিহিত করবেন না, এটি নির্যাতিতা নারীর জন্য অবমাননাকর। ধর্ষণের কারণে ধর্ষক শাস্তিযোগ্য অপরাধী কিন্তু যৌন নির্যাতনের শিকার কোনও নারীকে ‘ধর্ষিতা’ বলাটা অবিচারের শামিল। কারণ ‘ধর্ষক’ এবং ‘ধর্ষিতা’- শব্দ দুটোই আমাদের সমাজে নেতিবাচক, তাই আমরা নির্যাতিতা নারীদের সম্মান ও ভবিষ্যত রক্ষার্থে ‘ধর্ষিতা’ শব্দের ব্যবহারের বিরোধী।       

 বিবৃতিতে আরও বলা হয়, বনানীতে মতো অভিজাত পাড়ায় এধরনের জঘন্য ধর্ষণের ঘটনা প্রমাণ করে আমাদের সমাজে গভীর পচন ও অবক্ষয় দেখা যাচ্ছে। বিচারহীনতার সুযোগে শুধু অভিজাতপাড়ায় নয়, সারা দেশেই ধর্ষণ, নারী নির্যাতন ও নারীর প্রতি সহিংসতা ইত্যাদি আশঙ্কাজনক হারে বাড়ছে। দেশে ন্যায়ের শাসনের অভাব ও বিচারহীনতার সংস্কৃতি ছাড়াও কোরআন-সুন্নাহ থেকে মানুষের দূরে সরে যাওয়া এর মূল কারণ। আজকে নারী স্বাধীনতা ও নারীর ক্ষমতায়নের পৃষ্ঠপোষক তথাকথিত এই আধুনিক রাষ্ট্র প্রকৃতপক্ষে নারীর নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে ব্যর্থতার পরিচয় দিচ্ছে।

হেফাজত নেতারা ছেলেদের উদ্দেশ্য করে বিবৃতিতে বলেন, ‘আপনারা নিজেদের চোখের পর্দা করুন, আল্লাহকে ভয় করুন। কোরআন-সুন্নাহের পথে জীবন গঠন করার চেষ্টা করুন।’  

আর নারীদের উদ্দেশে হেফাজতের বিবৃতিতে বলা হয়েছে, ‘আপনারা ছেলেদের সঙ্গে অবাধ মেলামেশা করবেন না। পর্দা অথবা হিজাব পরিধান করে চলাফেরা করুন’ যা আপনাদেরকে তুলনামূলকভাবে আরও নিরাপদ করবে। আল্লাহকে ভয় করে এই ফরজ বিধান মেনে চলুন। পর্দানশীন নারীর ভূমিকা একটি রাষ্ট্র ও সমাজে অভাবনীয় সমৃদ্ধি, শান্তি ও কল্যাণ বয়ে আনে বলে আমরা বিশ্বাস করি।’

/জেবি/এমএ/
আরও পড়তে পারেন: বস্তায় বেঁধে শিশু নির্যাতন: এবার পরিবারকে গ্রাম ছাড়ার হুমকি

লাইভ

টপ