হিলিতে ভেসে গেছে সাড়ে ৭শ বিঘা জমির ধান, ৬শ পুকুরের মাছ

হিলি প্রতিনিধি০০:৫৮, আগস্ট ১৪, ২০১৭

 

হিলিতে বর্ষণ ও ঢলে ভেসে গেছে মাছের পুকুরমৌসুমি বায়ুর সক্রিয় প্রভাবে গত কয়েকদিন ধরে টানা বৃষ্টিপাত ও ভারত থেকে নেমে আসা পানির ঢলে দিনাজপুরের হিলির প্রায় সাড়ে সাতশ বিঘা জমির রোপা আমন ধান ও ছোটবড় মিলিয়ে ছয়শ পুকুরের তিনশ ৭৫ টন মাছ পানিতে ভেসে গেছে। এতে প্রায় তিন কোটি ৭৫ লাখ টাকার ক্ষতি হয়েছে চাষিদের। পানিপ্রবাহ অব্যাহত থাকলে রোপা আমন ধান ও মাছের ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ আরও বাড়বে বলে আশঙ্কা করছেন সংশ্লিষ্টরা।
হাকিমপুর উপজেলার মালেপাড়া গ্রামের কৃষক জাহাঙ্গির আলম বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ‘প্রায় ১০ বিঘা জমিতে রোপা আমন ধান রোপন করেছেন। হঠাৎ করে কয়েকদিনের টানা বৃষ্টিপাতে সব ধানক্ষেত পানিতে তলিয়ে গেছে। মাঠজুড়ে এখন পানি আর পানি। গতকাল (শনিবার) রাতে পানির ঢল না থাকায় ক্ষেতে পানি কমতে শুরু করেছিল। কিন্তু আবারও আজ (রবিবার) সকাল থেকে পানি আসায় ক্ষেতের পানি বাড়তে শুরু করেছে। এই পানি দুই-তিন দিন থাকলেও সমস্যা হতো না। কিন্তু দীর্ঘ সময় ধরে পানি জমে থাকায় ধানের ক্ষতি হয়ে যেতে পারে।’
হাকিমপুর উপজেলার মধ্যবাসুদেবপুর গ্রামের মৎস্যচাষী মো. জাহিদুল ইসলাম বলেন, ‘গত কয়েকদিনের টানা বর্ষণে আমার ছয়-সাতটি পুকুর ডুবে গিয়ে পুকুরের সব মাছ পানিতে ভেসে গেছে। পুকুরে নেট লাগিয়ে দিয়েও মাছ ঠেকানো যায়নি। এতে করে আমার প্রায় ২০ থেকে ২২ লাখ টাকার ক্ষতি হয়েছে। পানি বাড়তে থাকলে আরও যে কয়টি পুকুরে নেট দিয়ে মাছগুলো কোনোরকমে ঠেকিয়ে রাখা হয়েছে, সেগুলোও বের হয়ে যাবে। আর তা হলে আমাদের পথে বসতে হবে।’
হাকিমপুর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মোছা. শামীমা নাজনিন বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ‘গত কয়েকদিনের টানা বৃষ্টিতে রবিবার বিকাল পর্যন্ত হাকিমপুর উপজেলার বিভিন্ন এলাকার প্রায় একশ হেক্টর জমির রোপা আমন ধান পানিতে তলিয়ে গেছে। নতুন করে আবার বৃষ্টিপাত হওয়ার কারণে সে সংখ্যা আরও বাড়তে পারে। দুয়েকদিন পানি থাকলে ধানক্ষেতে তেমন ক্ষতি হয় না। তবে বেশিদিন ধরে পানি থাকলে ধানের ক্ষতি হবে।’
হাকিমপুর উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা মো. রুহুল আমিন বলেন, ‘হাকিমপুর উপজেলার ছোট-বড় মিলিয়ে প্রায় ছয়শ পুকুর পানিতে তলিয়ে গেছে। এসব পুকুরের প্রায় তিনশ ৭৫টন মাছ পানিতে ভেসে গিয়েছে। এতে করে এসব মৎস্য খামারিরা প্রায় তিন কোটি ৭৫ লাখ টাকার মতো আর্থিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন। তার ওপর আবারও যেহেতু পানি বাড়ছে, সেক্ষেত্রে আরও বেশকিছু পুকুর প্লাবিত হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে। ফলে ক্ষতির পরিমাণ আরও বাড়তে পারে।’
/টিআর/আপ-এআর/

লাইভ

টপ