সাইফুল জঙ্গি মানতে পারছেন না এলাকাবাসী

Send
মো. হেদায়েৎ হোসেন, খুলনা
প্রকাশিত : ১৮:০৫, আগস্ট ১৫, ২০১৭ | সর্বশেষ আপডেট : ১৮:০৬, আগস্ট ১৫, ২০১৭

সাইফুলদের বাড়িতে প্রতিবেশীদের ভিড়ঢাকায় হোটেল ওলিওতে আত্মঘাতী হওয়া সাইফুল ইসলাম যে জঙ্গি ছিল সেই খবর মানতে পারছে না তার পরিবারের সদস্যরা।  সাইফুলের জঙ্গি সংশ্লিষ্টতার বিষয়টি মেনে নিতে পারছেন না এলাকাবাসীও। আওয়ামী লীগের স্থানীয় নেতারাও বলেছেন, সাইফুলের জঙ্গি সংশ্লিষ্টতা হয়তো থাকতে পারে। তবে এলাকায় চলাফেরার সময় তার মধ্যে কখনোই সন্দেহজনক আচরণ লক্ষ্য করা যায়নি।

মঙ্গলবার সকালে রাজধানীর পান্থপথে সাইফুল আত্মঘাতী হয় বলে জানায় পুলিশের কাউন্টার টেরোরিজম ইউনিট। সাইফুল ইসলামের বাড়ি খুলনার ডুমুরিয়া উপজেলার সাহস ইউনিয়নের নোয়াকাঠি গ্রামে। সে স্থানীয় মসজিদের ইমাম আবুল খয়েরের ছেলে। আবুল খায়ের সাহস ইউনিয়ন জামায়াতের কোষাধ্যক্ষ।আত্মঘাতী জঙ্গি সাইফুল ইসলাম

সাইফুলের বোন ইরানী খাতুন বলেন, ‘সাইফুল ছিল শান্ত প্রকৃতির ছেলে। এলাকায় যখন আসত সে কারও সঙ্গে ঝগড়া-বিবাদ পর্যন্ত করতো না। সে পড়াশুনা নিয়ে ব্যস্ত থাকত। জঙ্গির ঘটনায় তার সম্পৃক্ততা আমরা মেনে নিতে পারছি না। এটি আমাদের পরিবারের জন্য দুঃখজনক ঘটনা। এলাকার কোনও লোক সাইফুলের বিরুদ্ধে এ ধরণের অভিযোগ মেনে নেবে কি না আমাদের সন্দেহ আছে। উলা মাদ্রাসায়ও সাইফুলের সুনাম রয়েছে।’

সাইফুলের ছোট বোন তামান্না খাতুন বলেন, ‘ভাই (সাইফুল) ঢাকায় যায় চাকরি খোঁজার জন্য।  সেখানে গিয়ে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে ইন্টারভিউ দেবে বলে বাড়িতে জানিয়েছিল।’সাইফুলের মা আসমা বেগম

সাইফুলের বাবার চাচাতো ভাই আব্দুর রউফ মোল্লা বলেন, ‘ছোট বেলা থেকে কোলেপিঠে করে মানুষ করেছি। এ ছেলে এ ধরণের কর্মকাণ্ডের সঙ্গে জড়িত থাকতে পারে বলে আমরা বিশ্বাস করি না। এলাকার কেউই তা বিশ্বাস করবে কি না সন্দেহ আছে।’

স্থানীয় মুক্তিযোদ্ধা আলতাফ হোসেন সরদার বলেন, ‘সাইফুল খুলনায় থেকে পড়াশোনা করতো। তবে মাঝে মাঝে গ্রামে আসতো। আমরা তার জঙ্গি কর্মকাণ্ডে জড়িত হওয়া সম্পর্কে কোনও তথ্য আগে জানতে পারিনি।’সাইফুলদের বাড়িতে প্রতিবেশীদের ভিড়

সাহস ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান আলহাজ মাহমুদুল ইসলাম বলেন, ‘দরিদ্র পরিবারের ছেলে সাইফুল। ওর বাবা খয়ের মসজিদ থেকে পাওয়া আয় দিয়ে সংসার চালান। পৈত্রিকসূত্রে পাওয়া চার শতক জমিই তার ভরসা। তার কোনও কৃষি জমিও নেই। খয়ের বা সাইফুলের সম্পর্কে আগে কখনও এ ধরণের তথ্য শোনা যায়নি।’

সাহস ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি আব্দুল কুদ্দুস জানান, সাইফুলের ব্যাপারে জঙ্গি সংশ্লিষ্টতা বা অপরাধমূলক কর্মকাণ্ডে সম্পৃক্ত থাকার কোনও তথ্য আগে এলাকার মানুষ জানতে পারেনি। সে লেখাপড়া নিয়েই খুলনায় ব্যস্ত থাকতো। তার সম্পর্কে এ বিষয়টি নিয়ে আরও খোঁজ-খবর নেওয়া প্রয়োজন বলে তিনি মনে করেন।

খুলনার ডুমুরিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. হাবিল হোসেন জানান, দুপুরের পর সাইফুলের বাড়িতে তল্লাশি অভিযান চালানো হয়েছে। অভিযানকালে ওই বাড়ি থেকে সন্দেহজনক কোনও সামগ্রী পাওয়া যায়নি।

/এফএস/ 

আরও পড়ুন-
চাকরির কথা বলে ৭ আগস্ট ঢাকায় আসে সাইফুল

ধানমন্ডি ৩২ নম্বরে হামলার পরিকল্পনা ছিল: আইজিপি

আত্মঘাতী জঙ্গি সাইফুলের বাবা স্থানীয় জামায়াত নেতা

হোটেল ওলিও’তে এক জঙ্গি আত্মঘাতী

লাইভ

টপ