সিলেটে স্ত্রী হত্যার দায়ে স্বামীর মৃত্যুদণ্ড

Send
সিলেট প্রতিনিধি
প্রকাশিত : ২০:৪৩, সেপ্টেম্বর ১৩, ২০১৭ | সর্বশেষ আপডেট : ২০:৪৫, সেপ্টেম্বর ১৩, ২০১৭

 

মৃত্যুদণ্ড

সিলেটের ওসমানী নগরে স্ত্রীর গলায় কাপড় পেচিয়ে শ্বাসরোধ করে হত্যার দায়ে স্বামীর মৃতুদণ্ডের আদেশ দিয়েছেন আদালত। বুধবার (১৩ সেপ্টেম্বর) দুপুরে সিলেটের অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ তৃতীয় আদালতের বিচারক মোছাম্মৎ রোকশানা বেগম হ্যাপি এ রায় ঘোষণা করেন।

ফাঁসির দণ্ডাদেশপ্রাপ্ত আসামির নাম- কয়েছ মিয়া (৩৪)।  সে মৌলভীবাজার সদর থানার পূর্ব সাধুহাটি (বর্তমানে ফতেহপুর) গ্রামের আবদুল খালিকের ছেলে। বর্তমানে সে পলাতক রয়েছে।

জানা যায়, ২০০৯ সালের ২৩ জুলাই মধ্যরাতে সিলেটের ওসমানীনগর উপজেলার মোবারকপুর গ্রামে শ্বশুরবাড়িতে বেড়াতে যান সিএনজি অটোরিকশা চালক কয়েছ মিয়া। ওই রাতেই পারিবারিক কলহের জের ধরে স্ত্রী সুলতানা বেগমকে (২০) গলায় কাপড় পেচিয়ে শ্বাসরুদ্ধ করে হত্যা করে তিনি পালিয়ে যান। পরদিন ২৪ জুলাই খবর পেয়ে ওসমানীনগর থানা পুলিশ তার লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য সিলেট ওসমানী হাসপাতাল মর্গে পাঠায়। পরে এ ঘটনায় নিহত সুলতানার মা সুন্দর বিবি বাদী হয়ে কয়েছ মিয়াকে এক মাত্র আসামি করে ওসমানীনগর থানায় হত্যা মামলা দায়ের করেন। তদন্ত শেষে একই বছরের ২৪ ডিসেম্বর কয়েছ মিয়াকে অভিযুক্ত করে ওসমানীনগর থানার এসআই শাহাদত হোসেন আদালতে চার্জশিট দাখিল করেন।  ২০১২ সালের ২১ জুন থেকে এ মামলার বিচার কাজ শুরু হয়। দীর্ঘ শুনানি ও ১২ জন সাক্ষীর সাক্ষ্যগ্রহণ শেষে আদালত আসামি কয়েছ মিয়াকে দণ্ডবিধি ৩০২ ধারায় দোষী সাব্যস্ত করে মৃত্যুদণ্ডের  আদেশ দেন।

আদালতের এপিপি অ্যাডভোকেট মোস্তফা দিলওয়ার আল আজহার বাংলা ট্রিবিউনকে জানান, মামলায় ১৬ জন সাক্ষীর মধ্যে ১২ জনের সাক্ষ্য ও যুক্তিতর্ক শেষে আদালত কয়েছ মিয়ার বিরুদ্ধে ফাঁসির আদেশ দেন। কয়েছ মিয়া জামিনে মুক্ত হয়ে বর্তমানে পলাতক রয়েছে। 

আরও পড়তে পারেন: বরিশালে সিলিন্ডার বিস্ফোরণে আহত তিন

/জেবি/

লাইভ

টপ