‘নির্বাচন না হলে জনগণ অধিকারের কথা প্রকাশ করতে পারে না’

Send
পিরোজপুর প্রতিনিধি
প্রকাশিত : ০১:০৮, জানুয়ারি ১৪, ২০১৮ | সর্বশেষ আপডেট : ০১:১২, জানুয়ারি ১৪, ২০১৮

শনিবার পিরোজপুরে নিজের নির্বাচনি এলাকায় সফর করেন পানিসম্পদমন্ত্রীপানিসম্পদমন্ত্রী অনোয়ার হোসেন মঞ্জু বলেছেন, নির্বাচন না হলে বা ভোট দেওয়ার সুযোগ না থাকলে জনগণ তাদের অধিকারের কথা প্রকাশ করতে পারে না। তাই দেশে সময় মতো নির্বাচন হওয়া অপরিহার্য।

শনিবার  (১৩ জানুয়ারি) বিকালে পিরোজপুরের কাউখালী উপজেলার শিয়ালকাঠী ইউনিয়নের মধ্য শিয়ালকাঠি পঞ্চায়েত বাড়িতে এক উঠোন বৈঠকে তিনি এ কথা বলেন।

আনোয়ার হোসেন মঞ্জু বলেন, ‘নির্বাচন যাতে না হয়, তারও নানা অপপ্রয়াস রয়েছে। তারপরও নির্বাচন আসলে মানুষ নেতাদের কাছে তাদের দাবি দাওয়া, অভাব-অভিযোগের কথা তুলে ধরার সুযোগ পায়। এই সময় মানুষ তাদের অধিকার আদায়ের জন্য ঐক্যবদ্ধ হয়ে সমস্যা সমাধানের সুযোগ নিতে পারে। যদিও তৃণমূলের সমস্যা মেটানোর জন্য স্থানীয় পর্যায়ে উপজেলা ও ইউনিয়ন পর্যায়ে চেয়ারম্যান এবং মেম্বাররা রয়েছেন। কিন্তু আমাদের দেশে উন্নয়ন বরাদ্দ স্থানীয় পর্যায়ে সীমিত বলে কেন্দ্রের প্রতি মানুষের মুখাপেক্ষিতা বেশি। তারপরও স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের গুরুত্ব অনেক বেশি।’ মন্ত্রী বলেন, ‘গ্রাম পর্যায়ে অনেক উন্নয়ন বরাদ্দ আসে। রাস্তা-ঘাট, স্কুল-মাদ্রাসাসহ নানা খাতে বরাদ্দ অনেক। যেহেতু জনগণ অধিকার সচেতন নয়। তাই এসব উন্নয়ন বরাদ্দ সঠিকভাবে বাস্তবায়ন হয় না। মানুষকে অধিকার বিষয়ে সচেতন হয়ে বাস্তবায়নাধীন প্রকল্পের সঠিকমান নিশ্চিত করতে ঐক্যবদ্ধ থাকতে হবে।’

আনোয়ার হোসেন মঞ্জু বলেন, ‘প্রকল্পের কাজ যথা সময় শেষ না হওয়ায় অনেক সময় নতুন বরাদ্দ পাওয়া যায় না। কাজের জন্য ঝগড়া, হানাহানি বাদ না দিলে সেখানে সরকার কাজ করতে চায় না।  আমি ৩২ বছর ধরে বলে এসেছি— সংঘবদ্ধভাবে সবাইকে কাজ করতে হবে। আমি যখন এই এলাকায় প্রথম আসি, তখন মানুষ বিদ্যুৎ নিতে চাইতো না। এখন ঘরে ঘরে সবাই বিদ্যুৎ চায়। দেশে কাজ করতে হলে শক্ত হতে হয়। শক্তিশালী হলে সফলতা পাওয়া যায়। উন্নয়নের জন্য সবার সমর্থন প্রয়োজন। স্বাধীনতার আগে দেশে নেতিবাচক ধারার রাজনীতি ছিল। এখন সময়টা হচ্ছে কাজের  রাজনীতির।’ উঠোন বৈঠকে আনোয়ার হোসেন মঞ্জু গ্রামের সাধারণ মানুষের কাছ থেকে সরাসরি তাদের সমস্যার কথা শোনেন। 

হাবিবুর রহমান তহশীলদারের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত এ  বৈঠকে বক্তব্য রাখেন, মুফতি রিয়াজ উদ্দিন,  অধ্যক্ষ আব্দুর রহীম, আব্দুর রহমান, হারুন সিকদার, মোশাররফ হোসেন, গিয়াস উদ্দিন, মো. সেলিম বিশ্বাস, মাহফুজা বেগম, রাহেলা বেগম, নাসির উদ্দিন হাওলাদার, মো. মহসীন তালুকদার, আতিকুর রহমান, মনির হোসেন, জয়নুল আবেদীন, কলেজ ছাত্রী হোসনেয়ারা খানম, স্কুল ছাত্রী ঋতু আক্তার, শিশু মোহনা তালুকদার ।

এর আগে পানিসম্পদমন্ত্রী কাউখালী উপজেলা পরিষদে কাউখালী উপজেলা সামাজিক বনায়নে উপকার ভোগীদের মাঝে চেক বিতরণ করেন। এ সময় উপস্থিত ছিলেন বাগেরহাট সামাজিক বন বিভাগের বিভাগীয় বন কর্মকর্তা মো. সাইদুল ইসলাম, কাউখালী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ।

 

 আরও পড়ুন: ইজতেমায় দিনে ২০ ঘণ্টা খাবার বিক্রি

/এপিএইচ/

লাইভ

টপ