ভারতে কারাভোগ করে দেশে ফিরলেন ৫ বাংলাদেশি

Send
রাজশাহী প্রতিনিধি
প্রকাশিত : ২০:৩১, ফেব্রুয়ারি ১৩, ২০১৮ | সর্বশেষ আপডেট : ২০:৩৩, ফেব্রুয়ারি ১৩, ২০১৮

সীমান্ত (ফাইল ছবি)

ভারতে অনুপ্রবেশের অভিযোগে বিভিন্ন মেয়াদে কারাভোগের পর পাঁচ বাংলাদেশিকে ফেরত পাঠিয়েছে ভারতীয় সীমান্তরক্ষী বাহিনী (বিএসএফ)। মঙ্গলবার (১৩ ফেব্রুয়ারি) দুপুর ১২টার দিকে রাজশাহীর গোদাগাড়ী উপজেলার চর আষাড়িয়াদহ ইউনিয়নের সাহেব নগর সীমান্তে কাছে পাঁচ বাংলাদেশিকে নিয়ে আসে বিএসএফ। এরপর পতাকা বৈঠকের মাধ্যমে বর্ডার গার্ড বাংলাদেশের (বিজিবি) কাছে তাদের ফেরত দেওয়া হয়। গোদাগাড়ী মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আলতাফ হোসেন বাংলা ট্রিবিউনকে এসব তথ্য নিশ্চিত করেন।

ফেরত আসা ওই পাঁচ বাংলাদেশি হলেন– চাঁপাইনবাবগঞ্জের শিবগঞ্জ উপজেলার রাণীনগর গ্রামের আনারুল (৩৫), শাহা পাড়া গ্রামের সুলতান (৩৩), মুন্না পাড়া গ্রামের জহরুল (৩৭), চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর উপজেলার কসাই পাড়া গ্রামের মুরসালিন (২১) ও ঢাকা কেরানীগঞ্জ উপজেলার পাংগাঁওয়ের জয়দেব মণ্ডলের স্ত্রী বাসনা মন্ডল।

ফেরত আসা বাংলাদেশিরা জানান, নির্মাণ শ্রমিক হিসেবে কাজের জন্য ভারতে গিয়ে সেদেশের পুলিশের হাতে তারা আটক হন। মুর্শিদাবাদ জেলা আদালত তাদের বিভিন্ন মেয়াদে সাজা দিয়ে বহরমপুর কারাগারে পাঠান। সাজা শেষে বিএসএফের মাধ্যমে তাদের বাংলাদেশে ফেরত পাঠায় ভারতীয় পুলিশ।

ওসি আলতাফ হোসেন জানান, দুপুর ২টার দিকে সাহেবনগর সীমান্তে ফাঁড়ির বিজিবি সদস্যরা ফেরত আসা পাঁচ বাংলাদেশিকে গোদাগাড়ী মডেল থানায় হস্তান্তর করেন। পরে বিকাল ৪টায় ওই পাঁচ জনকে তাদের অভিভাবকদের জিম্মায় দেওয়া হয়।

এদিকে, গোদাগাড়ী সীমান্তে ভারতীয় বিএসএফের পিটুনিতে দুই জেলে আহত হয়েছেন। মঙ্গলবার সকালে তাদের রাজশাহী মেডিক্যাল কলেজ (রামেক) হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। বিজিবি-১ ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক লে. কর্নেল ইফতেখার শামীম আল মাসুদ এ খবর নিশ্চিত করেন।

আহত দুই জেলে হলেন– উপজেলার দেওপাড়া ইউনিয়নের বিয়ানাবোনা গ্রামের শাহজাহান আলীর ছেলে মিজানুর রহমান ওরফে মিজান (২৬) ও রসুল আলীর ছেলে নিশান আলী (২৩)।

আহত মিজানের ছোট ভাই ময়েন আলী বলেন, ‘সোমবার রাতে মিজান ও নিশান গোদাগাড়ীর খরচাকা সীমান্ত এলাকায় পদ্মা নদীতে মাছ ধরতে যান। দিনগত রাত ২টার দিকে বিএসএফ সদস্যরা তাদের আটক করে। এরপর বালুচরে নিয়ে গিয়ে লাঠি ও রাইফেল দিয়ে তাদের পেটায়। ভোররাতের দিকে তাদের ছেড়ে দেওয়া হয়। এসময় মিজান ও নিশান নদীপাড়ে এলে স্থানীয় লোকজন তাদের উদ্ধার করে বাড়িতে পৌঁছে দেন। পরিবারের লোকজন তাদের হাসপাতালে ভর্তি করান।’

বিজিবি-১ ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক লে. কর্নেল ইফতেখার শামীম আল মাসুদ বলেন, ‘প্রথমে ভারতীয় জেলেদের সঙ্গে তাদের (বাংলাদেশি জেলেদের) মারামারি হয়েছে। তারপর ভারতীয় জেলেরা তাদের বিএসএফের কাছে ধরে নিয়ে যায়। তখন বিএসএফও তাদের মারধর করে। এঘটনা গুরুত্ব দিয়ে দেখা হচ্ছে। বিষয়টি আসলে কী ঘটেছিল, তদন্ত চলছে।’

/এমএ/

লাইভ

টপ