ফেনীতে ভোটের রাজনীতিতে আওয়ামী লীগে নতুন মেরুকরণ

Send
রফিকুল ইসলাম, ফেনী
প্রকাশিত : ০৬:৫৮, নভেম্বর ১১, ২০১৮ | সর্বশেষ আপডেট : ০৭:৫৩, নভেম্বর ১১, ২০১৮




আওয়ামী লীগের দলীয় পতাকা ও প্রতীকখালেদা জিয়ার আসনে একক প্রার্থী হিসেবে দলীয় মনোনয়ন ফরম কিনে আনুষ্ঠানিকভাবে রাজনীতিতে নাম লিখিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সাবেক প্রটোকল অফিসার আলাউদ্দিন নাসিম। শুক্রবার (৯ নভেম্বর) তিনি মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ করেন। এ সময় তার সঙ্গে ছিলেন একই আসন থেকে মনোনয়ন প্রত্যাশী আরও তিন আওয়ামী লীগ নেতা। ওই তিন মনোনয়ন প্রত্যাশী নেতা কেবল ফরম সংগ্রহের সময় পাশেই ছিলেন না, আগামী দিনেও আলাউদ্দিন নাসিমকে সমর্থন দিয়ে যাবেন বলে জানিয়েছেন।

এদিক স্থানীয় নেতাকর্মীরা মনে করছেন একক প্রার্থী হিসেবে মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ করায় সংসদ নির্বাচনকে ঘিরে ফেনীতে আওয়ামী লীগের রাজনীতিতে নতুন মেরুকরণের সৃষ্টি হয়েছে। এতদিন আলাউদ্দিন নাসিমকে যেকোনও অনুষ্ঠানে দলীয় নেতারা ফেনী আওয়ামী লীগের অভিভাবক হিসেবে সম্বোধন করতেন। দলীয় নেতাকর্মীদের প্রচণ্ড চাপ থাকার পরও প্রকাশ্য রাজনীতিতে আসতে তার অনীহা ছিল। তবে এবার তিনি প্রকাশ্যে আসায় সবাই তাকে সমর্থন দিচ্ছেন। অন্যদিকে কারাবন্দি খালেদা জিয়া এবার নির্বাচনে অংশ নিতে পারবেন কিনা তা নিয়ে অনিশ্চিয়তা রয়েছে। এর মধ্যে ওই আসনে ঐক্যফ্রন্টের নতুন কোনও মুখ আসলে জয় দুঃসাধ্য হবে বলে মনে করছেন সংশ্লিষ্টরা।

এছাড়া দলটির তৃণমূলের নেতাকর্মীরা বলছেন একক প্রার্থী হিসেবে আলাউদ্দিন নাসিম মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ করায় এই আসনে আগামী দিনের রাজনীতিতে জয়নাল হাজারী ও প্রধানমন্ত্রীর তথ্য উপদেষ্টা ইকবাল সোবহান চৌধুরী পিছিয়ে পড়বেন। ভবিষ্যতে স্থানীয় রাজনীতি তাদের জন্য অনেক কঠিন হয়ে পড়বে বলেও মনে করছেন নেতাকর্মীরা।

জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আব্দুর রহমান বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ‌‌‌‘আগামী ২৩ ডিসেম্বর অনুষ্ঠেয় নির্বাচনে একক প্রার্থী হিসেবে শুক্রবার আওয়ামী লীগের মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ করেছেন আলাউদ্দিন নাসিম। এতদিন মনোনয়নপ্রত্যাশী হিসেবে মাঠে সক্রিয় থাকা জেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি খায়রুল বাশার তপন, ছাগলনাইয়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মেজবাউল হায়দার চৌধুরী সোহেল ও ঢাকাস্থ ফেনী সমিতির সভাপতি শেখ আবদুল্লাহ ভোটের রাজনীতিতে নাসিমকে সমর্থন দিয়েছেন। এই তিন নেতা মনোনয়ন ফরম সংগ্রহের সময় আলাউদ্দিন নাসিমের সঙ্গেও ছিলেন।’

আওয়ামী লীগ নেতা আব্দুর রহমান আরও বলেন, ফেনী-২ আসনে প্রার্থী হতে নাসিমের সঙ্গে একই সময়ে দলীয় মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ করেছেন জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সংসদ সদস্য নিজাম উদ্দীন হাজারী। তিনিও আলাউদ্দিন নাসিমকে সমর্থন জানিয়েছেন।

এদিকে জেলা আওয়ামী লীগের নেতারাও আলাউদ্দিন নাসিমকে নিয়ে যথেষ্ট আশাবাদী। তাদের মতে এই আসন থেকে খালেদা জিয়া প্রার্থী হলেও আলাউদ্দিন নাসিমের জয়ী হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। একমাত্র তার পক্ষেই সম্ভব খালেদা জিয়াকে ভোটে হারানো।

আলাউদ্দিন নাসিম বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ‘আওয়ামী লীগের মনোনয়ন প্রত্যাশীরা জানিয়েছিলেন আমি প্রার্থী হলে কেউ মনোনয়ন ফরম কিনবেন না। সবাই কথা রেখেছেন। সবাইকে সঙ্গে নিয়ে মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ করেছি। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মনোনয়ন দিলে ফেনী-১ আসন আওয়ামী লীগকে উপহার দিতে পারবো বলে আশা রাখি।’

তবে খালেদার আসনে নির্বাচন করতে চান জানিয়ে জয়নাল হাজারী বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ‌‘রাজনীতিতে শেষ বলতে কিছু নেই। ভোটের রাজনীতিতে আলাউদ্দিন নাসিম এখনও শিশু। এই আসনে আলাউদ্দিন নাসিম ফেলনা প্রার্থী। খালেদা জিয়া কারাগারে থাকার সুযোগ নিয়ে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় এমপি হতে চায় সে। এখন প্রশাসনের পৃষ্ঠপোষকতা আছে বলে ফেনীতে নাসিম আছে। পৃষ্ঠপোষকতা না থাকলে সে বিড়াল ছানায় পরিণত হবে। এলাকা ছেড়ে পালানোর পথ খুঁজেও পাবে না।’

এদিকে ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারির নির্বাচনে এ আসন থেকে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় জয়ী হন জাসদ (ইনু) সাধারণ সম্পাদক শিরীন আখতার। তিনিও মহাজোটের ‘হেভিওয়েট’ প্রার্থী হিসেবে আসনটি থেকে নির্বাচন করতে চান বলে দলীয় সূত্রে জানা গেছে।

অপর দিকে, বিএনপি অধ্যুষিত আসনটিতে ১৯৯১ থেকে ২০০৮ সাল- টানা পাঁচবার ফেনী-১ (ফুলগাজী-পরশুরাম-ছাগলনাইয়া) আসন থেকে বিপুল ভোটের ব্যবধানে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়েছেন খালেদা জিয়া। ধানের শীষ নিয়ে তিনি এবারও নির্বাচনে অংশ নেবেন বলে আশায় বুক বেধে আছেন স্থানীয় নেতাকর্মীরা।

/টিটি/

লাইভ

টপ