কেরানীগঞ্জে হবে বর্জ্য থেকে বিদ্যুৎ উৎপাদনের পাইলট প্রকল্প

Send
কেরানীগঞ্জ প্রতিনিধি
প্রকাশিত : ০৫:০০, ডিসেম্বর ০৯, ২০১৮ | সর্বশেষ আপডেট : ০৫:০৮, ডিসেম্বর ০৯, ২০১৮

নসরুল হামিদ

বিদ্যুৎ জালানি ও খনিজ সম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ বিপু বলেছেন, কেরানীগঞ্জে বর্জ্য থেকে বিদ্যুৎ উৎপাদনের পাইলট প্রকল্প শুরু করা হবে। এই প্রকল্পটি এখানে সফল হলে পরে দেশের অন্যান্য জায়গায়ও এটি চালু করা হবে। শনিবার(০৮ডিসেম্বর) বিকেলে কেরানীগঞ্জের দোলেশ্বর তার বাড়িতে কেরানীগঞ্জ প্রেসক্লাবের সাংবাদিকদের সাথে এক মতবিনিময় সভায় একথা বলেন।

তিনি বলেন, এ প্রকল্পের জন্য ব্যয় হবে প্রায় ২০ মিলিয়ন ডলার। এ প্রকল্পের মাধ্যমে দুই মেগাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদনের জন্য প্রতিদিন ১০০ টন বর্জ্য প্রয়োজন হবে। কিন্তু কেরানীগঞ্জ থেকে প্রতিদিন ৪০টন বর্জ্য পাওয়া যাবে। বাকি বর্জ্য আমরা ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশন থেকে সংগ্রহ করব। এ বিষয়ে মেয়রের সাথে আমাদের আলাপ-আলোচনা চলছে।

প্রতিমন্ত্রী আরও বলেন, ৮ হাজার মেগাওয়াট বিদ্যুৎ গ্রাহকদের কাছে বিক্রি করা হচ্ছে। অবিক্রিত থাকে আরও ৬ হাজার। এজন্য সরকারকে প্রতিবছর মোটা অংকের ভর্তুকি দিতে হয়। আমাদের দেশে সন্ধ্যা বেলায় বেশি বিদ্যুৎ ব্যবহার হয় এবং দিনের বেলায় কম বিদ্যুৎ ব্যবহার হয় । কিন্তু বিদেশে এর উল্টো।

তিনি বলেন,  কেরানীগঞ্জের বিদ্যুতের লাইন মাটির নিচ দিয়ে নেওয়া হবে। এজন্য চুড়ান্ত নকশা তৈরি করা হয়েছে। এ প্রকল্পের জন্য ব্যয় হবে প্রায় ৩ হাজার কোটি টাকা। গ্রামের ৬০ লাখ গ্রাহক যারা ৫০টাকার নিচে বিদ্যুৎ বিল দেয়। পুরাতন লাইনের জন্য কেরানীগঞ্জে গ্যাসের সমস্যা হচ্ছে। এই জন্য সমস্ত পুরাতন লাইন পরিবর্তন করতে হবে।

বর্তমানে গ্যাস সিলিন্ডারের দাম ১২’শটাকা হওয়ায় গ্রাহকদের সমস্য হচ্ছে উল্লেখ করে তিনি বলেন,  ৯০০ টাকার মধ্যে গ্যাস সিলিন্ডার গ্রাহকদের কাছে বিক্রি করার জন্য আমরা চেষ্টা চালাচ্ছি।

এছাড়া কেরানীগঞ্জে  ৫০০ শয্যা বিশিষ্ট একটি আধুনিক হাসপাতাল নির্মাণ করা হবে বলেও প্রতিশ্রুতি দেন তিনি। প্রতিমন্ত্রী বলেন, হাসপাতালটি ঝিলমিল আবাসিক প্রকল্পের ভিতর নির্মিত হবে। কেরানীগঞ্জের সকল হাসপাতালগুলো মেরামতের জন্য স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় কতৃক ৬০০ কোটি টাকা বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে। আগামী জানুয়ারি মাস থেকে কাজ শুরু হবে।

নসরুল হামিদ বলেন, কেরানীগঞ্জের শুভাঢ্যা,চুনকোটিয়া ও কালিগঞ্জ খাল উদ্ধার ও সচল করার জন্য পানি সম্পদ মন্ত্রনালয় কতৃক  ১২’শ কোটি টাকা  বরাদ্দ হয়েছে। শিগগিরই এই কাজ শুরু হবে। কেরানীগঞ্জের শিক্ষা ব্যবস্থাকে উন্নত করা হবে। প্রত্যেক ইউনিয়নে একটি করে সরকারি কলেজ প্রতিষ্ঠা করা হবে। ৬০০ বিঘা জমির উপর কেরানীগঞ্জে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় হচ্ছে। 

মতবিনিময় সভায় উপস্থিত ছিলেন কেরানীগঞ্জ প্রেসক্লাবের আহবায়ক মোঃ আব্দুল গনি, যুগ্ন আহবায়ক আবু জাফর, হাজী মোস্তফা কামাল, মো. শফিক চেধৈুরী, মো. সাইফুল ইসলাম, সালাউদ্দিন মিয়া, সুলতান মাহমুদ , মো. ইউসুফ আলী, মো. আলমগীর হোসেন, ইকবাল হোসেন রতন, শহিদুল ইসলাম বিপ্লব, আলতাব হোসেন মিন্টু,জাহাঙ্গীর হোসেন ঝানু, জিয়াউর রহমান ও শেখ শামীম প্রমুখ।

/এমএইচ/

লাইভ

টপ