চাঁপাইনবাবগঞ্জে ধর্ষণের পর হত্যা মামলায় ৫ জনের মৃত্যুদণ্ড

Send
চাঁপাইনবাবগঞ্জ প্রতিনিধি
প্রকাশিত : ১৪:৫৯, এপ্রিল ১৮, ২০১৯ | সর্বশেষ আপডেট : ১৬:৩০, এপ্রিল ১৮, ২০১৯

চাঁপাইনবাবগঞ্জে আয়েশা (২৪) নামে এক কিশোরীকে ধর্ষণের পর হত্যা মামলায় পাঁচজনকে মৃত্যুদণ্ড দিয়েছেন আদালত। বৃহস্পতিবার (১৮ জুলাই) দুপুরে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রইবুনাল-২ এর বিচারক মো. শওকত আলী এই রায় দেন। একইসঙ্গে অনাদায়ে প্রত্যেককে ১ লাখ টাকা করে জরিমানা ও তিনজনকে বেকসুর খালাস দেওয়া হয়।
মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত আসামিরা হলো- চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর উপজেলার চরবাগডাঙ্গা ইউনিয়নের মালবাগডাঙ্গা গ্রামের শ্রী নয়ন কর্মকার রবিদাস (৩২), একই এলাকার শ্রী নিতাই চন্দ্র রবিদাস (৩০), শ্রী সুভাস দাস (৪৬), একই উপজেলার চরবাগডাঙ্গা ইউনিয়নের চাকপাড়া গ্রামের শ্রী প্রশান্ত রবিদাস (২৮) এবং একই ইউনিয়নের সোনারপট্টি গ্রামের শ্রী প্রশান্ত রবিদাস (২৬)। এদের মধ্যে আসামি নিতাই, সুভাস ও প্রশান্ত রবিদাস পলাতক রয়েছে।
বেকসুর খালাসপ্রাপ্ত আসামিরা হলো- শ্রী কৃষ্ণ, আব্দুর রহিম ও সোহাগী বেগম।
মামলার বিবরণে জানা গেছে, ২০১৫ সালের ১৩ জুন সন্ধ্যার পর মামার বাড়ি শিবগঞ্জ উপজেলার পারকেজি কৃষ্টপুর থেকে নিখোঁজ হন আয়েশা খাতুন। পরের দিন সদর উপজেলার মহারাজপুর ইউনিয়নের মহাসড়কের পাশের একটি ডোবায় পানিতে ভাসমান অবস্থায় তার লাশ উদ্ধার করে পুলিশ।
এ ঘটনায় পুলিশের সন্দেহ হলে লাশের ময়নাতদন্তের জন্য চাঁপাইনবাবগঞ্জ আধুনিক সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়। পরে আয়েশার পরিবার কোনও মামলা দায়ের না করলে সদর মডেল থানার এসআই শামীম আকতার বাদী হয়ে ময়নাতদন্তের রিপোর্টের ভিত্তিতে অজ্ঞাত ব্যক্তিদের নামে ২০১৫ সালের ৯ আগস্ট মামলা দায়ের করেন।
মামলার তদন্ত শেষে ২০১৫ সালের ১৪ ডিসেম্বর আদালতে আটজনকে আসামি করে অভিযোগপত্র দাখিল করেন মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা ওসি (তদন্ত) সরোয়ার রহমান।
চাঁপাইনবাবগঞ্জের অতিরিক্ত পিপি অ্যাডভোকেট আঞ্জুমান আরা জানান, আদালতে ১৪ জন সাক্ষীর সাক্ষ্য প্রদান ও যুক্তিতর্ক শেষে বিচারক পাঁচজনকে মৃত্যুদণ্ড, অনাদায়ে প্রত্যেককে ১ লাখ টাকা করে জরিমানা ও তিনজনকে বেকসুর খালাস দেন।
এদিকে ময়নাতদন্তের রিপোর্ট থেকে জানা যায়, আয়েশাকে প্রথমে ধর্ষণ ও পরে শ্বাসরোধে হত্যা করা হয় এবং হত্যার আলামত গোপন করার জন্যই আয়েশার লাশ পানিতে ভাসিয়ে দেওয়া হয়।

/এআর/এমএমজে/

লাইভ

টপ