পদ্মা সেতুর জাজিরা প্রান্তে বসেছে স্প্যান ৬-সি

Send
মুন্সীগঞ্জ প্রতিনিধি
প্রকাশিত : ১০:১৪, এপ্রিল ২৩, ২০১৯ | সর্বশেষ আপডেট : ১১:২২, এপ্রিল ২৩, ২০১৯

পদ্মা সেতুতে বসেছে নতুন স্প্যান

পদ্মা সেতুর জাজিরা প্রান্তে ৩৩ ও ৩৪ নম্বর পিলারের ওপর স্প্যান ৬-সি স্থাপন করা হয়েছে। মঙ্গলবার (২৩ এপ্রিল) সকালে স্প্যানটি পিলারের ওপর বসানো হয়। পদ্মা সেতুর সহকারী প্রকৌশলী হুমায়ুন কবির স্প্যান বসানোর খবর নিশ্চিত করেছেন। তিনি বলেন, ‘সকাল ৯ টা ২০ মিনিটে স্প্যানটি বসানোর কাজ শেষ হয়।’

এটি জাজিরা প্রান্তে নবম ও স্থায়ীভাবে বসানো সেতুর দশম স্প্যান। এছাড়া, মাওয়া প্রান্তে একটি অস্থায়ী স্প্যান রাখা আছে। ৬-সি স্প্যানটি বসানোর পর জাজিরা প্রান্তে সেতুর ১৩৫০ মিটার ও মাওয়া প্রান্তের একটি স্থায়ী ও একটি অস্থায়ী স্প্যান মিলে মোট ৩০০ মিটার দৃশ্যমান হলো।

সে হিসেবে অস্থায়ী স্প্যানসহ পদ্মা সেতুর ১ হাজার ৬৫০ মিটার দৃশ্যমান হয়েছে। তবে, স্প্যানগুলো ভিন্ন ভিন্ন মডিউলে বসানোর কারণে দৃশ্যমান অংশগুলো এক সারিতে নয় বরং, বিচ্ছিন্নভাবে থাকবে।

এর আগে সোমবার সকাল সোয়া ১০ দিকে ১৫০ মিটার দৈর্ঘ্যের ৩ হাজার ১৪০ টন ওজনের স্প্যানটি তিয়ান-ই ক্রেনে করে জাজিরা প্রান্তে ৩৩ ও ৩৪ নম্বর পিলারের কাছে নিয়ে আসা হয়। মুন্সীগঞ্জের মাওয়া কনস্ট্রাকশন ইয়ার্ড থেকে রওনা দিয়ে স্প্যানটি সোয়া দুই ঘণ্টায় জাজিরা প্রান্তে পৌঁছে।


স্বল্পতম সময়ের ব্যবধানে পদ্মা সেতুর পিলারে স্প্যান ৬-সি (সুপার স্ট্রাকচার) বসানো হলো। সেতুর মাওয়া প্রান্তে স্প্যান (সর্বশেষে যেটি গত ১০ এপ্রিল বসানো হয়েছে) বসানোর ঠিক ১৩ দিনের ব্যবধানে ৬-সি স্প্যানটি বসলো। জানা যায়, মাওয়া প্রান্তে পদ্মা সেতুর ৪ ও ৫ নম্বর পিলারের ওপর অস্থায়ীভাবে একটি স্প্যান রাখা হয়েছে।

সহকারী প্রকৌশলী হুমায়ুন কবির বলেন, ‘কনস্ট্রাকশন ইয়ার্ডে স্থান সংকুলান না হওয়ায় একটি স্প্যান ৪ ও ৫ নম্বর পিলারের ওপর রাখা আছে। এটি আসলে বসবে ৬ ও ৭ নম্বর পিলারের ওপর। ৬ ও ৭ নম্বর পিলারের কাজ সম্পূর্ণ হলে এ স্প্যানটি সরিয়ে সেখানে নেওয়া হবে।’
উল্লেখ্য, ২০১৭ সালের ৩০ সেপ্টেম্বর বসানো হয় সেতুর প্রথম স্প্যান। এর প্রায় ৪ মাস পর ২০১৮ সালের ২৮ জানুয়ারি দ্বিতীয় স্প্যানটি বসে। এর দেড় মাস পর ১১ মার্চ জাজিরা প্রান্তে তৃতীয় স্প্যান বসানো হয়। এর ২ মাস পর ১৩ মে বসে চতুর্থ স্প্যান। এরপর এক মাস ১৬ দিনের মাথায় পঞ্চম স্প্যানটি বসে ২৯ জুন। ৬ মাস ২৫ দিনের মাথায় ২৩ জানুয়ারি বসে ষষ্ঠ স্প্যানটি। গত ২০ ফেব্রুয়ারি ৩৫ ও ৩৬ নম্বর পিলারে বসে জাজিরা প্রান্তের সপ্তম স্প্যান। ২২ মার্চ বসে অষ্টম স্প্যান এবং মাওয়া প্রান্তে গত ১০ এপ্রিল বসে নবম স্প্যান। আর জাজিরা প্রান্তে মাত্র ১৩ দিনের ব্যবধানে স্থায়ীভাবে বসলো ১০ স্প্যান। ৬ দশমিক ১৫ কিলোমিটার দীর্ঘ এ সেতুতে ৪২টি পিলারের ওপর ৪১টি স্প্যান বসবে।

/টিটি/এপিএইচ/এমএমজে/

লাইভ

টপ