কলসিন্দুর স্কুলে ফুটবল কন্যাদের মেডেল-সার্টিফিকেট পুড়িয়ে দিলো দুর্বৃত্তরা

Send
ময়মনসিংহ প্রতিনিধি
প্রকাশিত : ২০:৩১, মে ১৪, ২০১৯ | সর্বশেষ আপডেট : ২১:০৩, মে ১৪, ২০১৯

কলসিন্দুর স্কুলে অগ্নিসংযোগময়মনসিংহের ধোবাউড়া উপজেলায় ফুটবল কন্যাদের জন্য সুনাম কুড়ানো কলসিন্দুর স্কুল অ্যান্ড কলেজের অফিস কক্ষের তালা ভেঙে আগুন লাগিয়ে দিয়েছে দুর্বৃত্তরা। আগুনে পুড়ে গেছে খেলোয়াড়দের মেডেল, সার্টিফিকেট, ক্রেস্ট, স্কুলের কাগজপত্রসহ খেলার উপহার সামগ্রী। মঙ্গলবার ভোর রাতে এই অগ্নিসংযোগের ঘটনা ঘটে।

আগুন দিয়ে পুড়িয়ে দেওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করে ধোবাউড়া থানার ওসি আলী আহম্মদ মোল্লা জানান, ‘মঙ্গলবার (১৪ মে) ভোরে দুর্বৃত্তরা পরিকল্পিতভাবে অফিস কক্ষের তালা ভেঙে ভেতরে ঢুকে আগুন ধরিয়ে দিয়ে চলে যায়। আগুনে অফিসের শিক্ষার্থীদের সনদপত্র, শিক্ষকদের ব্যক্তিগত ফাইল, খেলার সনদপত্রসহ উপহার সামগ্রী, ক্রেস্ট, কারিগরি শাখার সব কাগজপত্র পুড়ে গেছে। এ ঘটনায় কলেজ কর্তৃপক্ষ একটি অভিযোগ দাখিল করেছে। তদন্তের মাধ্যমে দোর্ষীদের শনাক্ত করে আইনের আওতায় আনা হবে।’কলসিন্দুর স্কুলে অগ্নিসংযোগ

স্কুলের প্রধান শিক্ষক রতন মিয়া জানান, ‘দেশের স্বনামধন্য ফুটবল কন্যাদের সম্মানে স্কুলটি সরকারিকরণের ঘোষণা দেয় সরকার। সরকারিকরণের বিষয়ে খবর ছড়িয়ে পড়ায় কোনও একটি পক্ষ এ বিষয়টি মেনে নিতে না পেরে আগুন ধরিয়ে দিয়ে কলেজের কাগজপত্র পুড়িয়ে দেওয়ার ষড়যন্ত্রে নেমেছে। পুলিশ তদন্ত করলেই এর রহস্য উন্মোচন হবে।’

খবর পেয়ে সকালেই ধোবাউড়া উপজেলা নির্বাহী অফিসার রাফিকুজ্জামান ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। তিনি জানান, ‘বিষয়টি গুরুত্ব সহকারে নিয়ে পুলিশ প্রশাসনকে তদন্ত করার জন্য বলা হয়েছে। কী কারণে আগুন ধরিয়ে দিয়ে কলেজের গুরুত্বপূর্ণ কাগজপত্রসহ মালামাল পুড়িয়ে দেওয়া হলো এই রহস্যের উন্মোচন হওয়াটা জরুরি।’কলসিন্দুর স্কুলে অগ্নিসংযোগ

স্কুলের অফিস কক্ষে আগুন ধরিয়ে দেওয়ার বিষয়টি এলাকায় চাঞ্চল্যের সৃষ্টি করেছে। বাংলাদেশ নারী ফুটবলারদের মাঝে আলোচিত ফুটবল কন্যা মারিয়া মান্দা, সানজিদাসহ অনেকেই এই স্কুলে লেখাপড়া করছেন। কলসিন্দুর স্কুল এবং গ্রামটি সারাদেশে পরিচিতি পেয়েছে এই ফুটবল কন্যাদের জন্যই। তাদের সম্মানে সরকার কলসিন্দুর স্কুল অ্যান্ড কলেজটি সরকারিকরণের ঘোষণা দিয়েছেন। সরকারিকরণের প্রক্রিয়া চলছে বলেও জানান উপজেলা নির্বাহী অফিসার রাফিকুজ্জামান।

 

/এফএস/

লাইভ

টপ