নলডাঙ্গায় আলাদা স্থান থেকে মা ও ছেলের লাশ উদ্ধার

Send
নাটোর প্রতিনিধি
প্রকাশিত : ১০:৪৫, মে ১৫, ২০১৯ | সর্বশেষ আপডেট : ১১:৫৬, মে ১৫, ২০১৯

নাটোর

নাটোরের নলডাঙ্গা উপজেলার বাসিলা গ্রামে এক মা (২৬) ও তার দুই বছরের প্রতিবন্ধী ছেলের লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। মঙ্গলবার (১৪ মে) রাতে নিজ ঘর থেকে ওই মায়ের ও বুধবার (১৫ মে) সকালে বাড়ির পাশের একটি ডোবা থেকে শিশুটির লাশ উদ্ধার করা হয়। নলডাঙ্গা থানার ওসি শফিকুর রহমান ও স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান আমজাদ হোসেন দেওয়ান বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

নিহত মায়ের নাম শারমিন আক্তার (২৬ )। তিনি বাসিলা উত্তরপাড়া গ্রামের মাহমুদুল হাসান মুন্নার স্ত্রী। নিহত শিশুটির নাম আবদুল্লাহ।

পুলিশ বলছে, মাকে শ্বাসরোধে হত্যা করা হয়ে থাকতে পারে। শিশুটির মৃতদেহ পাওয়া গেছে ডোবার পানিতে। মৃত্যুর রহস্য উদঘাটনের চেষ্টা চলছে। ঘটনা তদন্ত এবং ময়নাতদন্ত রিপোর্ট পাওয়ার পর মৃত্যুর সঠিক কারণ জানা যাবে।

সংশ্লিষ্ট পরিবারের সদস্যদের বরাত দিয়ে ওসি শফিকুর রহমান জানান, মাহমুদুল হাসান মুন্না দীর্ঘদিন ধরে ঢাকায় চাকরি করেন। স্ত্রী শারমিন আক্তার তার প্রতিবন্ধী সন্তান আবদুল্লাহকে নিয়ে স্বামীর বাড়িতে থাকেন। দেবর, শ্বশুর ও শাশুড়িসহ সবার সঙ্গেই শারমিনের ভালো সম্পর্ক। প্রতি রাতের মতো মঙ্গলবার রাতে সেহরি খেতে ওঠেন পরিবারের লোকজন। এ সময় ডাকাডাকি করলে তারা শারমিনের সাড়াশব্দ পান না। ঘরে ঢুকে শারমিনের মৃতদেহ দেখতে পান। সেখানে শিশু আবদুল্লাহকে দেখতে না পেয়ে চিৎকার করলে এলাকার লোকজন জড়ো হন। বুধবার সকালে খবর পেয়ে নলডাঙ্গা থানার একদল পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে পার্শ্ববর্তী ডোবার কচুরিপনার মধ্য থেকে আবদুল্লাহর মৃতদেহ উদ্ধার করে।

স্থানীয় ব্রহ্মপুর ইউপি চেয়ারম্যান আমজাদ দেওয়ান জানান, তিনি শারমিনের মায়ের সঙ্গে ঘটনাস্থলে কথা বলেছেন। মায়ের গত মধ্যরাতেও শারমিনের সঙ্গে মোবাইল ফোনে হাসিখুশির সঙ্গে কথা হয়েছে। শ্বশুরবাড়ির লোকজনদের সঙ্গেও তার খুব ভালো সম্পর্ক। মা ছেলের মৃত্যু রহস্যজনক দাবি করে ঘটনার সুষ্ঠু তদন্ত শেষে দোষীদের আইনের আওতায় আনার দাবি জানান ইউপি চেয়ারম্যান।

ওসি শফিকুর রহমান জানান, প্রাথমিকভাবে মনে হচ্ছে শারমিনকে শ্বাসরোধে হত্যা করা হয়েছে। এ ঘটনায় মামলার প্রস্তুতি চলছে। লাশ মর্গে পাঠানো হয়েছে। ঘটনা তদন্ত ও ময়নাতদন্তের রিপোর্ট পেলে হত্যার রহস্য উদঘাটিত হবে।

/আইএ/এমএমজে/

লাইভ

টপ