পাবনায় ধর্ষণের শিকার ২ কিশোরীর মেডিক্যাল পরীক্ষা সম্পন্ন

Send
পাবনা প্রতিনিধি
প্রকাশিত : ২২:৩৮, মে ২৫, ২০১৯ | সর্বশেষ আপডেট : ২৩:২১, মে ২৫, ২০১৯

ধর্ষণপাবনার ভাঙ্গুড়া ও ঈশ্বরদীতে পৃথক ঘটনায় দুই কিশোরীকে ধর্ষণের মামলা দায়েরের পর শনিবার (২৫ মে) তাদের মেডিক্যাল পরীক্ষা সম্পন্ন হয়েছে।  ইতোমধ্যে পুলিশ এক ধর্ষককে গ্রেফতার করে জেল হাজতে পাঠিয়েছে।

শনিবার বেলা ১২টায় পাবনা জেনারেল হাসপাতালে ওই দুই কিশোরীর মেডিক্যাল পরীক্ষা সম্পন্ন করা হয়েছে। হাসপাতালের গাইনি বিশেষজ্ঞ ডা. নার্গিস সুলতানা তাদের মেডিক্যাল পরীক্ষা করেন।

ভাঙ্গুড়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মাসুদ রানা জানান, উপজেলার রাঙ্গালিয়া গ্রামের মজনু সরকার গত পাঁচ মাস আগে তার বাড়ির পাশের এক কিশোরীকে বাড়িতে একা পেয়ে একাধিকবার ধর্ষণ করে। এ ঘটনা কারও কাছে প্রকাশ করলে তাকে মেরে ফেলার হুমকি দেয়। একপর্যায়ে অন্তঃসত্ত্বা হয়ে পড়লে ওই কিশোরী বিষয়টি তার বাবা-মা ও মজনুকে জানায়। তখন মজনু গর্ভপাত করাতে ওই কিশোরীকে গোপনে কিছু ওষুধ সেবন করায়। ওষুধ খেয়ে সে গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়লে গত বুধবার (২২ মে) তাকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়। পরে এ ঘটনায় মজনু সরকারকে অভিযুক্ত করে গত শুক্রবার (২৪ মে) রাতে থানায় মামলা করেন কিশোরীর বাবা। ওইদিন রাতেই তাকে আটক করে পুলিশ। শনিবার তাকে আদালতের মাধ্যমে জেল হাজতে পাঠিয়েছে পুলিশ।

অপরদিকে, ঈশ্বরদী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) বাহাউদ্দিন ফারুকী জানান, গত ২২ মে জেলার ঈশ্বরদী উপজেলার অরনকোলা পশ্চিমপাড়া গ্রামে এক কিশোরীকে ধর্ষণ করার অভিযোগ ওঠে একই গ্রামের আতিকুল ইসলাম নামের এক যুবকের বিরুদ্ধে। শুক্রবার (২৪ মে) রাতে এ ঘটনায় ধর্ষিতার বাবা আসাদুল খাঁ বাদী হয়ে থানায় মামলা দায়ের করেন।

পাবনার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার গৌতম কুমার বিশ্বাস জানান, উভয় মামলার বিষয়ে পুলিশি তৎপরতা রয়েছে। খুব শিগগিরই ধর্ষণ মামলার অভিযুক্তদের গ্রেফতার করে আইনের আওতায় আনা হবে।

 

/এমএএ/

লাইভ

টপ