রংপুরে ভ্রাম্যমাণ আদালতের নামে হয়রানির অভিযোগে ধর্মঘট

Send
রংপুর প্রতিনিধি
প্রকাশিত : ১৫:০২, মে ২৬, ২০১৯ | সর্বশেষ আপডেট : ১৫:০২, মে ২৬, ২০১৯





রংপুর শহরের বন্ধ থাকা কয়েকটি হোটেলভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনার নামে হয়রানি ও অস্বাভাবিক হারে জরিমানা আদায়ের অভিযোগ এনে, এর প্রতিবাদে অনির্দিষ্টকালের ধর্মঘট শুরু করেছেন রংপুর নগরীর সব খাবার হোটেল, রেস্টুরেন্ট ও বেকারির মালিকেরা। দোকান বন্ধ রেখে রবিবার (২৬ মে) সকাল থেকে তারা এ ধর্মঘট শুরু করেন।

সরেজমিন নগরীর কাছারী বাজার, পায়রা চত্বর, জাহাজ কোম্পানি মোড়সহ বিভিন্ন এলাকা ঘুরে দেখা গেছে, সব হোটেল, রেস্টুরেন্ট ও বেকারি বন্ধ রাখা হয়েছে। সাধারণত বেলা ১১টার পর থেকে ইফতার সামগ্রী বিক্রি শুরু হয়। কিন্তু আজ কোনও দোকানেই ইফতার সামগ্রী তৈরি করতে দেখা যায়নি। বন্ধ রাখা হয়েছে দোকানগুলো।

হোটেল রেস্তোরাঁ মালিক সমিতির সভাপতি আব্দুল মজিদ খোকন বলেন, ‘রংপুর নগরীতে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনার নামে বিভিন্ন হোটেলে গিয়ে অস্বাভাবিক হারে জরিমানা আদায় করা হচ্ছে। দোকানে সারাদিনের বিক্রি ২০ থেকে ২৫ হাজার টাকা, সেখানে জরিমানা করা হচ্ছে দুই-তিন লাখ টাকা। যা আমাদের পক্ষে দেওয়া সম্ভব নয়। আমাদের হয়রানি করা হচ্ছে। এ কারণে অনির্দিষ্টকালের ধর্মঘট শুরু করেছি।’

একই অভিযোগ করেন বেকারি মালিক সমিতির সভাপতি নুরুল হক মুন্না। তিনি বলেন, ‘ভ্রাম্যমাণ আদালত যে জরিমানা করছে, তা আমাদের পুঁজির চেয়ে বেশি। ফলে আমাদের পক্ষে ব্যবসা চালানো সম্ভব হচ্ছে না। অনতিবিলম্বে এ অভিযান বন্ধের দাবি জানাচ্ছি।’

তবে সাধারণ মানুষের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, তারা হোটেল, রেস্টুরেন্ট ও বেকারিতে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনার পক্ষে। তাদের অভিযোগ, হোটেল ও রেস্টুরেন্টগুলোতে পঁচা ও বাসি খাবার বিক্রি করা হচ্ছে। নোংরা পরিবেশে খাবার তৈরি করা হচ্ছে। খাবারের সঙ্গে নিম্ন মানের সামগ্রী ব্যবহার করা হচ্ছে। সরকারের ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা একটি ভালো পদক্ষেপ।

/আইএ/

লাইভ

টপ