রামসাগর জাতীয় উদ্যানের গাছ পাচার, তত্ত্বাবধায়কের বাড়িতে দুদকের অভিযান

Send
দিনাজপুর প্রতিনিধি
প্রকাশিত : ১০:৩৮, জুন ১৮, ২০১৯ | সর্বশেষ আপডেট : ১০:৪৩, জুন ১৮, ২০১৯




রামসাগর জাতীয় উদ্যানের গাছ কেটে পাচারের সময় সরকারি গাড়ি আটকে দেন স্থানীয়রাসরকারি গাড়িতে করে দিনাজপুরের ঐতিহ্যবাহী রামসাগর জাতীয় উদ্যান থেকে গাছ পাচারের ঘটনায় তোলপাড় চলছে। এ ঘটনায় উদ্যানের তত্ত্বাবধায়ক ও বন কর্মকর্তা আব্দুস সালাম তুহিনের বাড়িতে অভিযান চালিয়েছে দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) সদস্যরা। এছাড়া তুহিনকে কর্মস্থল থেকে প্রত্যাহার করা হয়েছে। এ ঘটনার তদন্ত করে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণের কথা জানিয়েছেন বন বিভাগের কর্মকর্তারা।

সোমবার (১৭ জুন) দুদকের কর্মকর্তারা জেলা শহরের উপশহর এলাকায় আব্দুস সালাম তুহিনের বাড়িতে অভিযান চালান। পরে বাড়ি থেকে বের হয়ে দুদকের জেলা সমন্বিত কার্যালয়ের উপ-পরিচালক আবু হেনা মো. আশিকুর রহমান জানান, জাতীয় উদ্যানের সরকারি গাছ রাতের আঁধারে কেটে পাচারের ঘটনায় তত্ত্বাবধায়ক ও অন্য কর্মকর্তারা জড়িত বলে প্রমাণ মিলেছে। এসব বিষয়ে কমিশন বরাবরে দ্রুত প্রতিবেদন পাঠানো হবে। এরপর কমিশনের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

তিনি বলেন, দীর্ঘদিন ধরেই বেশ কিছু কর্মকর্তার যোগসাজসে গাছ পাচারের কাজটি করা হচ্ছে। এ প্রক্রিয়ায় জড়িতরা স্থাবর ও অস্থাবর সম্পত্তি গড়ে তুলেছেন।

এদিকে দিনাজপুর বন বিভাগের বন কর্মকর্তা আব্দুর রহমান জানিয়েছেন, বেআইনি কার্যক্রমের অভিযোগে রামসাগরের তত্ত্বাবধায়ক আব্দুস সালাম তুহিনকে প্রত্যাহার করা হয়েছে। তার বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ বরাবর প্রতিবেদন পাঠাানো হয়েছে। এ ঘটনায় দিনাজপুর বন বিভাগের সহকারী বন সংরক্ষক মোস্তাফিজুর রহমানকে প্রধান করে একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। গঠিত কমিটির প্রতিবেদন হাতে আসলেই প্রতিবেদনের ভিত্তিতে নিয়মিত মামলা দায়ের করা হবে।

একইসঙ্গে প্রধান বন সংরক্ষকের নির্দেশনা অনুযায়ী রাজশাহী বন বিভাগের কর্মকর্তাও এই ঘটনাটি তদন্ত করবেন বলে জানান তিনি।

এদিকে রামসাগর থেকে সরকারি গাড়িতে করে বন বিভাগের গাছ পাচারের ঘটনার বিষয়ে জানতে চাইলে রামসাগরের তত্ত্বাবধায়ক আব্দুস সালাম তুহিন বলেন, ‘গাছগুলি ঝড়ে পড়ে গিয়েছিল, সেগুলো কেটে বন বিভাগের কার্যালয়ে পাঠানো হচ্ছিল। বিভিন্ন সময়ে এলাকার কতিপয় লোকজনকে অবৈধ সুবিধা না দেওয়ায় আমার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করা হচ্ছে।’

উল্লেখ্য, গত শনিবার রাত ৮টার দিকে রামসাগর জাতীয় উদ্যানের গাছ কেটে পাচারের সময় সরকারি পিকআপ ভ্যান আটক করেন স্থানীয়রা। এ সময় এলাকাবাসী পিকআপ ভ্যান চালক কুরবান আলীকে আটক করে বন বিভাগকে খবর দেয়। খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে তদন্তপূর্বক জড়িতের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের আশ্বাস দেন দিনাজপুর বিভাগীয় বন কর্মকর্তা আব্দুর রহমান। পরে গাছসহ পিকআপ ভ্যানটি পুলিশ হেফাজতে দেওয়া হয়।

এলাকাবাসীর অভিযোগ, বিভিন্ন সময়ে এই জাতীয় উদ্যান থেকে সরকারি গাছ কেটে পাচার করা হয়। তবে এসব বিষয়ে বিভিন্ন সময়ে আপত্তি জানানো হলেও কোনও পদক্ষেপ নেওয়া হয়নি। গাছ পাচারের সঙ্গে বন বিভাগের রামসাগরে দায়িত্বরত কর্মকর্তারা জড়িত বলে অভিযোগ স্থানীয়দের।

 

আরও পড়ুন:
গাছ কেটে পাচারের চেষ্টা, সরকারি গাড়ি আটকে দিলেন স্থানীয়রা

/টিটি/

লাইভ

টপ