শাহবাজপুর তিতাস সেতু দিয়ে যান চলাচল শুরু

Send
ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রতিনিধি
প্রকাশিত : ১৫:৫৩, জুন ২৪, ২০১৯ | সর্বশেষ আপডেট : ১৫:৫৩, জুন ২৪, ২০১৯

শাহবাজপুর তিতাস সেতু দিয়ে যান চলাচল শুরু


ঢাকা-সিলেট মহাসড়কের ব্রাহ্মণবাড়িয়ার ঝুঁকিপূণ শাহবাজপুর তিতাস সেতুর ওপর দিয়ে সোমবার (২৪ জুন) বেলা ১১টা থেকে যান চলাচল শুরু হয়েছে। সেতুটি ভেঙে  যাওয়ার পর সেখানে একটি বেইলি ব্রিজ নির্মাণ করা হয়েছে। তবে সেতুর ওপর দিয়ে ২২ টনের বেশি ওজন নিয়ে যান চলাচলে নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে ব্রাহ্মণবাড়িয়া সড়ক ও জনপথ বিভাগ।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া সড়ক ও জনপথ বিভাগ ও হাইওয়ে পুলিশ জানায়, গত শনিবার দুপুর থেকে সেতুটির ওপর স্টিলের বেইলি ব্রিজ নির্মাণের কাজ শুরু হয়। সোমবার সকাল পর্যন্ত শাহবাজপুর সেতুটি মেরামতের কাজ চলে। পরে কয়েক দফা পরীক্ষা নিরীক্ষার পর বেলা ১১টা থেকে যান চলাচলের জন্য সেতুটি খুলে দেওয়া হয়। এর পর থেকে সেতুর ওপর দিয়ে যান চলাচল শুরু হয়।
ব্রাহ্মণবাড়িয়া সড়ক ও জনপথ বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী শামিম আল মামুন জানান, সেতুতে ২২টনের বেশি ওজনের যানবাহন চলাচলে নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছে। তবে ঝুঁকির বিষয় নিয়ে তিনি কোনও মন্তব্য না করে বিষয়টি এড়িয়ে যান। 
ব্রাহ্মণবাড়িয়া খাটিহাতা বিশ্বরোড থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. হোসেন সরকার জানান, সেতুর ওপর গাড়ি নিয়ন্ত্রণ করে উঠতে দেওয়া হচ্ছে। এক সঙ্গে বেশি যানবাহন যাতে সেতুর ওপরে না উঠে সে ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে।
এদিকে মৌলভীবাজারের কুলাউড়ায় ট্রেন দুর্ঘটনার কারণে সড়ক পথে চাপ বাড়ায় গণপরিবহনের যাত্রীরা তাদের ভোগান্তির কথা জানান।
ব্রাহ্মণবাড়িয়া ইসলামপুর কলেজের প্রভাষক রানা সাহা জানান, আমরা প্রতিদিন এই সড়কে যাতায়ত করি। গণপরিবহন না পেয়ে চরম ভোগান্তির মধ্যে পরেছি।
ঢাকা থেকে সিলেট গামী যাত্রী ফরিদুল হুদা জানান, রেলপথ বন্ধ, সড়ক পথে ভোগান্তি কিভাবে সিলেটে পৌঁছাবো বুঝতে পারছি না।
সিলেটের কাঁচামাল ব্যবসায়ীয় আবুল ফজল জানান, কাঁচা মাল (আলু) নিয়ে গত কয়েকদিন ধরে মহাসড়কে আটকে ছিলেন। সেতু খুলে দেওয়ায় তিনি স্বস্তি প্রকাশ করেন।
উল্লেখ্য, গত ১৮ জুন মঙ্গলবার বিকেলে ঢাকা-সিলেট মহাসড়কের শাহবাজপুরের ঝুঁকিপূর্ণ তিতাস সেতুটির রেলিং এবং ফুটপাত ধসে তিতাস নদীতে পড়ে যায়। এর পর থেকে এই সেতুটির ওপর দিয়ে সব ধরনের ভারী এবং মাঝারি আকারের যান চলাচল বন্ধ করে দেয় সড়ক ও জনপথ বিভাগ। ফলে ৬দিন ধরে মহাসড়কে যানবাহন চালকসহ যাত্রীরা আটকা পরে চরম ভোগান্তির মধ্যে ছিলেন। এ অবস্থায় ঝুঁকির মধ্যেই জোরাতালি দিয়ে আজ (সোমবার) সেতুটি খুলে দেওয়া হয়।

 

/জেবি/

লাইভ

টপ