নরসিংদীতে বিদ্যুতের প্রিপেইড মিটারে বাড়ছে গ্রাহক অসন্তোষ

Send
আসাদুজ্জামান রিপন, নরসিংদী
প্রকাশিত : ১৪:১৮, জুন ২৫, ২০১৯ | সর্বশেষ আপডেট : ১৪:১৮, জুন ২৫, ২০১৯

প্রিপেইড মিটার

নরসিংদীতে পল্লী বিদ্যুতের প্রিপেইড মিটার দেওয়ায় পর থেকে ভোগান্তি বেড়েছে বলে গ্রাহকদের অভিযোগ। প্রিপেইড মিটারে অতিরিক্ত বিল আসা ছাড়াও মিটার ভাড়া, ডিমান্ড চার্জসহ নানা ভোগান্তি বেড়েছে বলে গ্রাহকরা জানান। তাদের ইচ্ছার বিরুদ্ধে প্রিপেইড মিটার স্থাপন করা হচ্ছে জানিয়ে অসন্তোষ প্রকাশ করেন গ্রাহকরা।

তবে পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির কর্মকর্তারা বলছেন, প্রিপেইড মিটারে ৩০ টাকা বাড়তি মিটার ভাড়া ছাড়া গ্রাহকদের আর্থিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ার কোনও সুযোগ নেই। বিদ্যুৎ ব্যবহারের তারতম্যের কারণেই বিল কম-বেশি হয়ে থাকে। 

পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, সারাদেশের মতো বিদ্যুতের প্রিপেইড মিটার স্থাপন শুরু করেছে নরসিংদী পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি-১ ও ২। নরসিংদী পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি-১ এরইমধ্যে ২০ হাজার প্রিপেইড মিটার স্থাপন করেছে। ১৭ হাজার মিটার স্থাপন করেছে নরসিংদী পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি-২।

তবে গ্রহকদের অভিযোগ, এসব মিটার স্থাপনের ফলে আগের তুলনায় বাড়তি বিদ্যুৎ বিলসহ অতিরিক্ত ৩০ টাকা মিটার ভাড়া দিতে হয়। এ ছাড়াও পর্যাপ্ত রিচার্জ সুবিধা নেই। সময় মতো রিচার্জ করতে না পারায় বিদ্যুৎ সংযোগ বন্ধ হয়ে যাওয়ার অভিযোগ রয়েছে অনেকের। এসব বিড়ম্বনার কারণে গ্রাহকরা প্রিপেইড মিটারের প্রতি অনাগ্রহী। এ নিয়ে বিভিন্ন সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমে লেখালেখিসহ মানববন্ধন করেছেন সাধারণ গ্রাহকরা।

শিবপুর উপজেলার ভরতেরকান্দি এলাকার মো. জাকির হোসেন বলেন, ‘আমার বাসায় ভাড়াটিয়া থাকায় ১২টি মিটার লাগানো হয়েছে। মনে করেছিলাম বিদ্যুৎ বিল পরিশোধের ঝামেলা কমবে। এখন দেখছি এসব মিটার বাড়তি টাকা কাটার মেশিন। দুই থেকে তিনগুন বাড়তি বিল খরচ হওয়ায় সব ভাড়াটিয়া এখন হতাশ। তারা মিটার খুলে না দিলে বাসা ছেড়ে দেবেন বলে জানিয়েছে।

নরসিংদী শহরের পশ্চিম ব্রা‏হ্মন্দী মহল্লার ভাড়াটিয়া সবুজ আহমেদ বলেন,‘প্রিপেইড মিটারে প্রযুক্তিগত সুবিধা বেশি থাকলেও বাড়তি টাকার কারণে আমরা অসন্তুষ্ট। আগে পোস্ট পেইড মিটারে আমার বিল হতো ১ হাজার থেকে ১১ শ’ টাকা। এখন ১৬ থেকে ১৭/১৮ শ’ টাকায় মাস পার হচ্ছে না।’

একই এলাকার ব্যবসায়ী আব্দুল করিম বলেন,‘এখন ১৭/১৮ শ’ টাকা বিল আসে। বিদ্যুৎ ব্যবহার কিন্তু বাড়েনি বরং বিদ্যুৎ ব্যবহারে আমরা আরও মিতব্যয়ী হয়েছি।’

নরসিংদী পল্লী বিদ্যু সমিতি ১ ও ২ এলাকার শত শত গ্রাহকের একই ধরণের অভিযোগ হলেও এসব মানতে নারাজ পল্লী বিদ্যুৎ কর্তৃপক্ষ।

যোগাযোগ করা হলে নরসিংদী পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি-২ এর জেনারেল ম্যানেজার মো. ইউসুফ বলেন,‘প্রিপেইড মিটারে কিছুটা বাড়তি মিটার ভাড়া ছাড়া কোনও ধরনের অসুবিধা নেই। কেউ কেউ না বুঝেই নানা অপপ্রচার চালাচ্ছেন। এতে গ্রাহকদের মধ্যে এসব ভ্রান্ত ধারণার সৃষ্টি হয়েছে। প্রিপেইড এবং পোস্টপেইড মিটারের ট্যারিফ প্লানটা একই, এখানে বিল বেশি হওয়ার কোনও সুযোগ নাই। শুধুমাত্র প্রিপেইড মিটারটি উন্নত প্রযুক্তির ও মানসম্পন্ন হওয়ায় এবং তা ১০ বছরের মধ্যে নষ্ট হলে বিনামূল্যে পরিবর্তনের সুযোগ দেওয়া হচ্ছে বিধায় মিটার ভাড়া ১০ টাকার জায়গায় ৩০ টাকা নেওয়া হচ্ছে।

রিচার্জ না করা হলে ছুটির দিন অথবা সকালে-রাতে বিদ্যুৎ সংযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে যাওয়ার বিষয়ে তিনি বলেন,‘এটা একেবারেই ভিত্তিহীন। অফিস টাইমের আগে-পরে বা ছুটির দিনে কোনও অবস্থায় টাকা না থাকলেও বিদ্যুৎ সরবরাহ বন্ধ হয় না।

 

/জেবি/

লাইভ

টপ