রাবির ম্যানেজমেন্ট স্টাডিজ বিভাগে শিক্ষক নিয়োগে নিষেধাজ্ঞা

Send
রাবি প্রতিনিধি
প্রকাশিত : ২৩:২১, জুলাই ১৮, ২০১৯ | সর্বশেষ আপডেট : ২৩:৩২, জুলাই ১৮, ২০১৯

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) ম্যানেজমেন্ট স্টাডিজ বিভাগে শিক্ষক নিয়োগের বিরুদ্ধে রুল জারি করেছেন হাইকোর্ট। নতুন নীতিমালা অনুযায়ী বিভাগটিতে শিক্ষক নিয়োগ কেন আইনগত কর্তৃত্ব বহির্ভূত বা অবৈধ নয়, তা জানতে চেয়েছেন হাইকোর্ট। আগামী ৪ সপ্তাহের মধ্যে বিবাদীদের রুলের জবাব দিতে বলা হয়েছে। একইসঙ্গে বিভাগটিতে শিক্ষক নিয়োগে ৩০ দিনের নিষেধাজ্ঞা দিয়েছেন হাইকোর্ট।

গত ১৪ জুলাই বিচারক শেখ হাসান আরিফ ও রাজিক-আল-জালিলের সমন্বয়ে গঠিত বেঞ্চ এই আদেশ দেন।

হাইকোর্টের আদেশে বলা হয়েছে, বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষক নিয়োগে যে নীতিমালা ছিল, বর্তমান প্রশাসন দায়িত্বে এসে সেই নীতিমালা পরিবর্তন করেছে। নতুন নীতিমালায় স্নাতকে সিজিপিএ কমিয়ে আনা হয়েছে।

নতুন নীতিমালা অনুযায়ী ম্যানেজমেন্ট স্টাডিজ বিভাগে শিক্ষক নিয়োগের জন্য গত বছরের ৬ ডিসেম্বর বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন। সেই নিয়োগ বিজ্ঞপ্তিকে অবৈধ চ্যালেঞ্জ করে হাইকোর্টে রিট করেন বিভাগটির শিক্ষক অধ্যাপক জিন্নাত আরা বেগম। গত ৭ জুলাই রিটের শুনানি হয়। পরে গত ১৪ জুলাই শুনানির রায় ঘোষণা করা হয়।

তবে হাইকোর্ট থেকে পাঠানো কোনও নোটিশ এখনও আসেনি বলে জানিয়েছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের লিগ্যাল সেলের প্রশাসক অধ্যাপক শাহীন জোহরা।

প্রসঙ্গত, ২০১৭ সালের শেষের দিকে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য অধ্যাপক ড. মিজানউদ্দিনের আমলে ব্যবস্থাপনা বিভাগের ৭টি শূন্য পদে সহকারী অধ্যাপক/প্রভাষক পদে নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশিত হয়। সেখানে বিশ্ববিদ্যালয়ের নীতিমালা অনুসারে নিয়োগের ক্ষেত্রে স্নাতক ও স্নাতকোত্তর পর্যায়ে সিজিপিএ ৩ দশমিক ৫০ থাকতে হবে বলে উল্লেখ করা হয়। তখন সে নিয়োগ বিজ্ঞপ্তির বৈধতা চ্যালেঞ্জ করে দায়ের করা এক রিটের প্রেক্ষিতে আদালত সে বিজ্ঞপ্তিকে বৈধ ঘোষণা করেন।

পরবর্তীতে বর্তমান উপাচার্য অধ্যাপক মো. আব্দুস সোবহান নিয়োগের যোগ্যতা শিথিল করে স্নাতক পর্যায়ে সিজিপিএ ৩ দশমিক ২৫ এবং স্নাতকোত্তর পর্যায়ে ৩ দশমিক ৫০ করেন। নতুন নীতিমালা অনুযায়ী বিভাগে শিক্ষক নিয়োগের জন্য আগের বিজ্ঞপ্তিকে বাতিল করে গত বছরের ৬ ডিসেম্বর নতুন বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন।

নতুন নীতিমালায় নিয়োগ বিজ্ঞপ্তির বৈধতা চ্যালেঞ্জ করে হাইকোর্টে রিট আবেদন করেন বিভাগের অধ্যাপক জিন্নাত আরা বেগম। এতে রাষ্ট্রপতি দফতরের সচিব, বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের (ইউজিসি) চেয়ারম্যান, বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য, উপ-উপাচার্য, রেজিস্ট্রার, ব্যবসায় শিক্ষা অনুষদের ডিন, ম্যানেজমেন্ট স্টাডিজ বিভাগের সভাপতি ও বিভাগের প্ল্যানিং কমিটির তিন অধ্যাপককে বিবাদী করা হয়েছে।

/এমএ/

লাইভ

টপ