৫শ ফুট ড্রেনের অভাবে আড়াই হাজার পরিবার পানিবন্দি

Send
নাটোর প্রতিনিধি
প্রকাশিত : ২২:৩৪, জুলাই ২০, ২০১৯ | সর্বশেষ আপডেট : ২২:৪২, জুলাই ২০, ২০১৯

জলাবদ্ধতায় ডুবে থাকা রাস্তানাটোরের সিংড়া উপজেলার বিলদহর এলাকায় মাত্র ৫শ ফুট দৈর্ঘ্যের ড্রেনের অভাবে আড়াই হাজার পরিবার পানিবন্দি হয়ে আছে। এতে বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে জনজীবন।

বিলদহর মৎস্যজীবী পাড়ার অধিবাসী নিতাই কুমার সরকার জানান, মৎস্যজীবী পাড়ার পাশেই বিলদহর প্রাথমিক বিদ্যালয়, বিলদহর পল্লী বিদ্যুৎ অফিস, ইউনিয়ন কমিউনিটি হেলথ কমপ্লেক্স, বিলদহর বাজার ও মৎস্যজীবী পাড়া। মৎস্যজীবী পাড়া ও হিন্দু পাড়া মিলে আড়াই হাজার পরিবারের বসবাস। বিলদহর বাজার, প্রাথমিক বিদ্যালয়, পল্লী বিদ্যুৎ অফিস ও স্বাস্থ্যসেবা গ্রহণের জন্য ইউনিয়ন কমিউনিটি ক্লিনিকে যাওয়ার রাস্তা একটাই। রাস্তাটি সম্প্রতি উঁচু করায় বৃষ্টি হলেই সব পানি প্রাথমিক বিদ্যালয় মাঠে জমা হয়। এসময় রাস্তাটিও ডুবে যায়। জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়।

কমিউনিটি ক্লিনিকের কর্তব্যরত ডাক্তার ব্রজগোপাল এবং পল্লী বিদ্যুৎ অফিসের ইনচার্জ নুরুল ইসলাম জানান, জলাবদ্ধতার মধ্য দিয়ে পার হয়ে তাদের অফিসে আসতে হচ্ছে।

ইউপি মেম্বার রমজান আলী নিরব জানান, জলাবদ্ধতার কারণে শিশুরা নিয়মিত বিদ্যালয়ে যেতে পারছে না।

জলাবদ্ধতায় ডুবে থাকা কমিউনিটি ক্লিনিকচামারি ইউনিয়ন চেয়ারম্যান রশিদুল ইসলাম মৃধা জানান, ‘মাত্র ৫শ ফুট ড্রেনেজ ব্যবস্থা নিশ্চিত করতে পারলে এই জলাবদ্ধতা নিরসন সম্ভব। প্রাথমিক বিদ্যালয় চত্বর থেকে পাশের আত্রাই নদী পর্যন্ত ড্রেনেজ ব্যবস্থা নিশ্চিত করা গেলে জলাবদ্ধতা আর থাকবে না।’

এক প্রশ্নের জবাবে চেয়ারম্যান রশিদুল ইসলাম মৃধা দাবি করেন, তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলককে তারা বিষয়টি জানিয়েছেন। ইতোমধ্যে এ ব্যাপারে একটি প্রকল্প নেওয়া হয়েছে। আগামী ১০-১৫ দিনের মধ্যে টেন্ডার আহ্বানের মধ্য দিয়ে ড্রেনেজ ব্যবস্থার কার্যক্রম শুরু হবে।

এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) সুশান্ত কুমার জানান, তিনি সরেজমিনে ঘটনাটি দেখতে বিলদহর বাজারে যাচ্ছেন। বরাদ্দ প্রকল্পের আওতায় দ্রুততম সময়ের মধ্যে ড্রেনেজ ব্যবস্থা নির্মাণের কাজ শুরু হবে।

দ্রুততম সময়ের মধ্যে ড্রেন নির্মাণের কার্যক্রম শুরু করার দাবি জানিয়েছেন, বিলদহর বাজারের অধিবাসী মানিক, নিতাই চন্দ্র সরকার ও অনিল চন্দ্র সরকার।

 

/এনআই/

লাইভ

টপ