লালদিয়ার চরে ২০০ অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ

Send
নিজস্ব প্রতিবেদক, চট্টগ্রাম
প্রকাশিত : ০৪:২০, জুলাই ২৩, ২০১৯ | সর্বশেষ আপডেট : ০৪:৩৫, জুলাই ২৩, ২০১৯

 

চলছে উচ্ছেদ অভিযানচট্টগ্রাম বন্দর কর্তৃপক্ষ কর্ণফুলী পাড়ে দ্বিতীয় দফায় অভিযান চালিয়ে দুইশ’র বেশি অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ করেছে। সোমবার (২২ জুলাই) নগরীর পতেঙ্গা থানার লালদিয়ার চরে অভিযান চালিয়ে এসব স্থাপনা উচ্ছেদ করা হয়। বন্দর ম্যাজিস্ট্রেট গৌতম বাড়ৈ এ তথ্য জানিয়েছেন।

গৌতম বাড়ৈ বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ‘সোমবার লালদিয়ার চরে অভিযান চালানো হয়। অভিযানে সেখানে অবৈধভাবে গড়ে তোলা দুইশ’র বেশি কাঁচা-পাকা বসতঘর উচ্ছেদ করা হয়েছে। এ নিয়ে অভিযানে প্রায় পনের একর জায়গা উদ্ধার করা হলো। অবশিষ্ট অবৈধ স্থাপনাগুলোও ধারাবাহিকভাবে উচ্ছেদ করা হবে।’

বন্দর কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, লালদিয়ার চরে অবৈধভাবে বসতঘর তুলে প্রায় দুই হাজার পরিবার বসবাস করছে। এর মধ্যে শুধু কর্ণফুলী পাশের অবৈধ স্থাপনাগুলো উচ্ছেদ করা হবে। সেখানে একটি মাল্টিপারপাস টার্মিনাল নির্মাণ করা হবে।

এদিকে, বন্দরের এই সিদ্ধান্তের বিরোধীতা করে আসছেন লালদিয়ার চরে দীর্ঘদিন ধরে বসবাস করে আসা স্থানীয়রা। তাদের দাবি, স্থানীয় কিছু প্রভাবশালীর কাছ থেকে তারা জায়গাগুলো কিনে এতদিন বসবাস করে আসছেন। বন্দর কর্তৃপক্ষ তাদের সরে যাওয়ার জন্য সময় না দিয়েই উচ্ছেদ অভিযান পরিচালনা করেছে। কর্তৃপক্ষের কাছে তারা পুনর্বাসনের দাবি জানিয়ে আসলেও কোনও ধরনের ব্যবস্থা না করেই তাদের বসতঘর গুড়িয়ে দিয়েছে কর্তৃপক্ষ।

এ সম্পর্কে জানতে চাইলে উচ্ছেদ প্রতিরোধ কমিটির সভাপতি আলমগীর হাসান বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ‘বন্দর কর্তৃপক্ষের কাছে আমরা ক্ষতিপূরণ দাবি করেছিলাম। উচ্ছেদের কবলে পড়া পরিবারগুলোকে পুনর্বাসন করার দাবি জানিয়েছি। বন্দর কর্তৃপক্ষ আমাদের আশ্বাসও দিয়েছিলেন, কিন্তু এখন পুনর্বাসন না করেই উচ্ছেদ অভিযান শুরু করে দিয়েছে।’

 

/আইএ/

লাইভ

টপ