পানি বেড়েছে বাঙালি নদীতে, ৫০ হাজার মানুষ পানিবন্দি

Send
বগুড়া প্রতিনিধি
প্রকাশিত : ১১:৩৫, জুলাই ২৪, ২০১৯ | সর্বশেষ আপডেট : ১১:৪৯, জুলাই ২৪, ২০১৯

বাঙালি নদীর পানির স্রোতে একটি সেতুর সংযোগ সড়ক ধসে গেছেবগুড়ার সারিয়াকান্দিতে যমুনার পানি কমলেও এখনও বিপদসীমার ১৭ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। আর বাঙালি নদীর পানি বেড়ে বিপদ সীমার ৯৮.৭ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। ফলে নতুন করে ৫০ হাজার মানুষ পানিবন্দি হয়ে পড়েছেন।

বাঙালি নদীর পানিতে সারিয়াকান্দি সদর, হাটশেরপুর, নারচি, ফুলবাড়ি ও ভেলাবাড়ি ইউনিয়ন ও পৌর এলাকার সবগ্রাম বন্যা কবলিত হয়ে পড়েছে। বন্যা দুর্গতরা বসতবাড়ি ছেড়ে নিরাপদ আশ্রয়ে চলে যাচ্ছেন। শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, ফসলি জমি, পুকুর, মুরগির খাবারে বন্যার পানি ঢুকে পড়ায় সার্বিক বন্যা পরিস্থিতির অবনতি হয়েছে।

পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী হাসান মাহমুদ জানান, যমুনার পানি কমলেও বাঙালিতে বাড়তে শুরু করেছে। মঙ্গলবার (২৩ জুলাই) সন্ধ্যা ৬টায় যমুনার পানি কমে বিপদসীমার ১৭ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হয়। একই সময় বাঙালি নদীতে বিপদসীমার ৯৮.৭০ সেন্টিমিটার ওপরে ছিল।

ফুলবাড়ি ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আনোয়ারুত তারিক মোহাম্মদ জানান, বাঙালি নদীতে পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় ২১ গ্রামের চার হাজার পরিবারের কমপক্ষে ১৬ হাজার মানুষ পানিবন্দি হয়েছেন। ৮০ ভাগ ফসলের মাঠ পানিতে তলিয়ে গেছে। ২০০ মুরগির খামারে পানি উঠেছে। অর্ধশতাধিক পুকুর ডুবে গেছে।

হাটশেরপুর ইউপি চেয়ারম্যান আলহাজ্ব মতিয়ার রহমান জানান, বাঙালি  নদীতে পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় নতুন করে ৫টি ওয়ার্ডের ৭টি গ্রামের এক হাজার ৩৪৪ পরিবার পানিবন্দি হয়ে পড়েছে। কাঁচা-পাকা রাস্তা ডুবে গেছে। শিক্ষা প্রতিষ্ঠানেও পানি সেখানে আশ্রয় নিতে পারেনি দুর্গতরা।

নারচী ইউপি চেয়ারম্যান আলতাফ হোসেন বান্টু জানান, বাঙালি নদীর পানির চাপে তার ইউনিয়নের গোদাগাড়ি, চরগোদাগাড়ি, হরিনা গ্রামে কাঁচা রাস্তা ভেঙে সরাসরি যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়েছে। ফসলের মাঠ তলিয়ে কৃষকের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। ‘৮৮ সালের বন্যার পর বাঙালি নদীতে কোনোদিন এত পানি দেখেননি।

ভেলাবাড়ী ইউপি চেয়ারম্যান রুবেল উদ্দিন জানান, তার ইউনিয়নের ৬ গ্রামে বন্যার পানি প্রবেশ করে ফসলের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। বাঙালি নদীর পানির তীব্র স্রোতে জোড়গাছা ব্রিজের সংযোগ সড়ক ধসে গেছে। বিভিন্ন স্থানে নদী ভাঙন দেখা দিয়েছে।

উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তার অফিস সূত্রে জানা গেছে, বন্যায় ২০ জুলাই পর্যন্ত সারিয়াকান্দিতে ক্ষতিগ্রস্ত মানুষের সংখ্যা ছিল ৯০ হাজার ৫২০ জন। বাঙালি নদীর পানি বৃদ্ধির কারণে সৃষ্ট বন্যায় মঙ্গলবার পর্যন্ত ক্ষতিগ্রস্থ মানুষের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে এক লাখ ৩৭ হাজার ৯২৫ জন।

 

/এসটি/

লাইভ

টপ