কুমিল্লায় বাস-সিএনজির মুখোমুখি সংঘর্ষে তিন নারীসহ নিহত ৮

Send
কুমিল্লা প্রতিনিধি
প্রকাশিত : ১৩:৫৪, আগস্ট ১৮, ২০১৯ | সর্বশেষ আপডেট : ২৩:৫৪, আগস্ট ১৮, ২০১৯

কুমিল্লায় বাসচাপায় দুমড়ে মুচড়ে যাওয়া সিএনজিকুমিল্লায় বাসের সঙ্গে সিএনজিচালিত অটোরিকশার মুখোমুখি সংঘর্ষে একই পরিবারের ছয় জনসহ আট জন নিহত হয়েছেন। এদের মধ্যে তিন জন নারী। নিহত আপর দুজন হলেন হোটেল বয় এবং সিএনজির চালক। আহত হয়েছেন বাসের ৩-৪ জন যাত্রী। রবিবার (১৮ আগস্ট) দুপুর ১২টায় কুমিল্লা-নোয়াখালী আঞ্চলিক মহাসড়কের লালমাই উপজেলার জামতলা এলাকায় এ দুর্ঘটনা ঘটে। লালমাই থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) বদরুল আলম তালুকদার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

নিহতরা হলেন—কুমিল্লার নাঙ্গলকোট উপজেলার ঘোড়া ময়দান এলাকার মৃত আবদুর জব্বারের ছেলে জসিম উদ্দিন (৪৫), জসিম উদ্দিনের মা সকিনা বেগম (৭০), স্ত্রী সেলিনা বেগম (৪০), ছেলে সিপন (২৩), রিফাত (৮) ও মেয়ে নিপু আক্তার (১৩) এবং সিএনজিচালিত অটোরিকশার চালক একই উপজেলার করপতি গ্রামের মৃত জিতু মিয়ার ছেলে জামাল হোসেন (৩০) ও একই গ্রামের মা তুম্মির ছেলে হোটেল বয় শাইমুন হোসেন (১৫)। 

দুর্ঘটনা কবলিত বাসবদরুল আলম তালুকদার জানান, কুমিল্লা থেকে ঢাকাগামী তিশা পরিবহনের একটি বাসের সঙ্গে জামতলী এলাকায় কুমিল্লা থেকে লাকসামগামী একটি সিএনজিচালিত অটোরিকশার মুখোমুখি সংঘর্ষ হয়। এতে সিএনজি অটোটি দুমড়ে মুচড়ে যায়। ঘটনাস্থলেই সিএনজিটির চালকসহ চার আরোহী নিহত হন। হাসপাতালে নেওয়ার পথে মারা যান আরও চার জন। নিহতদের মধ্যে তিন নারী। এসময় আহত বাসের যাত্রীদের আশঙ্কাজনক অবস্থায় কুমিল্লা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

অটোরিকশাচালকের ভাই কামাল হোসেন বলেন, ‘নাঙ্গলকোট উপজেলার ঘোড়া ময়দান ও করপাতি পাশাপাশি গ্রাম। জসিম উদ্দিন তার মা, স্ত্রী ও ছেলেমেয়ে নিয়ে কুমিল্লার গোয়াল পট্টিতে থাকতেন। সেখানে বন্দন নামে একটি খাওয়ার হোটেল দিয়ে ব্যবসা করতেন। কোরবানির ঈদে সপরিবারে বাড়িতে আসেন। আটোচালক জামাল আমার ভাই, সেও কুমিল্লায় গাড়ি চালাতো। জসিমের হোটের বয় শাইমুনের বাড়ি করপাতি গ্রামে। ঈদের ছুটি শেষে সবাই মিলে সিএনজি আটোযোগে কুমিল্লা যাচ্ছিলেন।’ তিনি আরও বলেন, ‘এই দুর্ঘটনায় জসিমের পরিবারের কেউ বেঁচে থাকলো না। তার হোটেল দেখার কেউ নেই।’

দুর্ঘটনাস্থল পরিদর্শনে যান কুমিল্লার পুলিশ সুপার সৈয়দ নজরুল ইসলাম ও অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আব্দুল্লাহ আল মামুন। অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আব্দুল্লাহ আল মামুন বলেন, ‘ঢাকার সায়দাবাদ থেকে ছেড়ে আসা বাসটি লাকসাম যাচ্ছিল। লালমাই উপজেলার জামতলায় আসলে একটি মাইক্রোবাসকে বাঁচাতে গিয়ে লেন ভায়োলেট করে বিপরীত দিক থেকে আসা অটোরিকশাকে আঘাত করে। এতে ৮ জন নিহত হন।’

/আইএ/টিএন/এমএমজে/

লাইভ

টপ