অনিয়মের অভিযোগে কেডিএ’তে দুদকের অভিযান

Send
খুলনা প্রতিনিধি
প্রকাশিত : ১০:৩৪, আগস্ট ২০, ২০১৯ | সর্বশেষ আপডেট : ১০:৪৪, আগস্ট ২০, ২০১৯

দুদক

খুলনা উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ (কেডিএ) ভবনে সোমবার অভিযান চালিয়েছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। ভবনের নকশা অনুমোদনে অনিয়মের অভিযোগে দুদক খুলনা সমন্বিত আঞ্চলিক কার্যালয়ের এনফোর্সমেন্ট টিম এ অভিযান পরিচালনা করে। বেলা সাড়ে ১১টায় শুরু হয়ে দুপুর দেড়টা পর্যন্ত এ অভিযান চলে।

দুদকের সমন্বিত জেলা কার্যালয়ের সহকারী পরিচালক মো. শাওন মিয়া জানান, মহানগরীর পশ্চিম টুটপাড়া এলাকায় একটি ভবনের নকশা অনুমোদনে অনিয়ম হয়েছে বলে তারা অভিযোগ পান। ‘অভিযোগে বলা হয়েছে, ভবনটির কাজ নকশা অনুযায়ী করা হয়নি।’ অভিযানের সময় দুদক ঘটনাস্থল পরিদর্শনসহ অভিযুক্ত কর্মকর্তার বক্তব্য শুনেছে।

সরেজমিন পরিদর্শনকালে অনুমোদিত নকশার সঙ্গে নির্মাণাধীন ভবনের কোনও মিল পাওয়া যায়নি। নকশায় যেটুকু জায়গা ছাড়ার কথা ছিল ভবন নির্মাণের সময় সে জায়গাও ছাড়া হয়নি। ভবনের নকশা অনুমোদনের পর বিষয়টি মনিটরিংয়ের দায়িত্ব ছিল কেডিএ’র ওপর। কিন্তু কেডিএ এ বিষয়টি মনিটরিং করেনি। নকশা অনুমোদনের বিষয়টি তদন্ত করার জন্য আরও সময়ের প্রয়োজন। কেডিএ চেয়ারম্যানকে বিষয়টি তদন্ত করে দেখার জন্য সুপারিশ করেছে দুদুক । এছাড়া এ বিষয়টি নিয়ে অধিকতর তদন্তের জন্য অনুমতি চেয়ে প্রধান কার্যালয়ে চিঠি পাঠানো হয়েছে।

দুদক সূত্রে জানা গেছে, ভবন অনুমোদনে কেডিএ’র প্লানিং শাখায় অনিয়ম ও দুর্নীতি হয়েছে বলে অভিযোগ পায় দুদক। তাই এ সংক্রান্ত নথিপত্র যাচাই-বাছাইয়ের জন্য দুদক খুলনা সমন্বিত আঞ্চলিক কার্যালয়ের এনফোর্সমেন্ট টিম নগরীর টুটপাড়া এলাকায় অভিযান চালায়। এ সময় দুদক টিম সরেজমিন পরিদর্শনে গিয়ে সংশ্লিষ্ট ভবনের অনুমোদিত প্লানের সঙ্গে ভবনের বাস্তব অবস্থাও পরিদর্শন করেন।

দুদক সূত্রে আরও জানা গেছে, কেডিএ’র প্রকৌশলী মাহমুদ হোসেনের বিরুদ্ধে ৫০ হাজার টাকা ঘুষ নেওয়ার  অভিযোগ পাওয়া গেছে। তিনি ঘুষ নিয়ে নকশা পাশ করেন এবং ভবন নির্মাণের অনুমোদন দেন। এছাড়াও মহানগরীর টুটপাড়া সংলগ্ন এলাকায় ভবনের প্লান অনুমোদনের দায়িত্বে ছিলেন বিল্ডিং ইন্সপেক্টর মো. মুজিবর রহমান (বর্তমানে তিনি বিদেশে প্রশিক্ষণে আছেন)।

কেডিএ’র তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী শামীম জেহাদ বলেন,‘নকশা অনুমোদনে কোনও অনিয়ম হয়নি। নকশা অনুযায়ী ভবন নির্মাণ না করায় কেডিএ ওই ভবন নির্মাণের কাজ বন্ধ করে মালিক পক্ষকে নোটিশ পাঠিয়েছে। সেই নোটিশের শুনানি এখনও চলছে।

 

 

/জেবি/

লাইভ

টপ