দুর্বৃত্তের হামলায় আহত সেই স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতার বাম হাত কেটে ফেলা হলো

Send
ময়মনসিংহ প্রতিনিধি
প্রকাশিত : ১২:৪৫, সেপ্টেম্বর ১১, ২০১৯ | সর্বশেষ আপডেট : ১৪:৩৭, সেপ্টেম্বর ১১, ২০১৯

স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতা

ময়মনসিংহের গফরগাঁও উপজেলায় দুর্বৃত্তের হামলায় আহত স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতা ইলিয়াস নোমানের (৩০) বাম হাত কেটে ফেলা হয়েছে। বর্তমানে তিনি ঢাকার পঙ্গু হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছেন। মঙ্গলবার (১০ সেপ্টেম্বর) দুপুরে তার অপারেশন হয়েছে বলে স্বজনরা জানিয়েছেন। স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতা ইলিয়াস নোমানের বাম হাত কেটে ফেলার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন গফরগাঁও থানার ওসি অনুকূল সরকার।

স্থানীয়রা জানায়, এলাকায় আধিপত্য বিস্তার নিয়ে দ্বন্দ্বের জের ধরে গত ৩ সেপ্টেম্বর স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতা ইলিয়াস নোমানকে কুপিয়ে গুরুতর আহত করে দুর্বৃত্তরা। গুরুতর আহত নোমানকে উদ্ধার করে রাতেই ঢাকায় পঙ্গু হাসপাতালে নিয়ে ভর্তি করা হয়। এ ঘটনার তার স্ত্রীর করা মামলায় পুলিশ স্থানীয় ওয়ার্ড যুবলীগের সভাপতি সারোয়ার জাহান ধনু মিয়াকে গ্রেফতার করেছে। ।

অন্যদিকে ঘটনার সঙ্গে জড়িতদের গ্রেফতার ও বিচার দাবিতে স্থানীয় স্বেচ্ছসেবক লীগ নেতাকর্মীরা বিভিন্ন প্রতিবাদ কর্মসূচি পালন করছে।

উপজেলা আওয়ামী লীগের আহ্বায়ক কমিটির সদস্য ও উপজেলা পরিষদের ভাইস-চেয়ারম্যান অধ্যক্ষ আতাউর রহমান বলেন, ‘যশোরা ইউনিয়নের যশোরা গ্রামের বেশ কয়েকটি বাড়িতে পল্লীবিদ্যুৎতের সংযোগ দেওয়ার কথা বলে ওয়ার্ড যুবলীগের সভাপতি সারোয়ার জাহান ধনু মিয়া ১০-১২ হাজার টাকা করে নিয়েছেন। টাকা নেওয়ার ৪ মাস পরও বিদ্যুৎ সংযোগ না দেওয়ার কারণ জানতে চাইলে ইলিয়াস নোমানের সঙ্গে ধনু মিয়ার কথা কাটাকাটি হয়। এ ঘটনার ১০/১২ দিন আগে যশোর ইউনিয়নে ধনুর দুই অনুসারীকে মাদকসহ পুলিশে ধরিয়ে দিয়েছিল নোমান। এছাড়াও এলাকায় আধিপত্য বিস্তার নিয়ে উভয়ের মধ্যে অনেক দিন ধরে দ্বন্দ্ব চলছিল। এসব ঘটনার জের ধরেই নোমানের ওপর হামলা চালানো হয়। 

এ ব্যাপারে গফরগাঁও থানার ওসি অনুকূল সরকার জানান, মামলায় এজাহারভুক্ত আসামি সারোয়ার জাহান ধনু মিয়াকে গ্রেফতার করা হয়েছে। এ ঘটনার সঙ্গে জড়িত অন্য আসামিদের গ্রেফতারে পুলিশি অভিযান অব্যাহত রয়েছে।

স্থানীয় সংসদ সদস্য ফাহমি গোলন্দাজ বাবেল বাংলা ট্রিবিউনকে জানান, স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতা ইলিয়াস নোমানের ওপর হামলাকারীরা যে দলেরই হোক তাদের দ্রুত গ্রেফতারের মাধ্যমে আইনের আওতায় আনার জন্য পুলিশকে বলা হয়েছে।

তিনি আরও জানান, নোমানের বাম হাতের কনুইয়ের উপর পর্যন্ত কেটে ফেলা হয়েছে। অতিরিক্ত রক্ত ক্ষরণের জন্য সে এখনও শংকামুক্ত না বলে চিকিৎসকরা জানিয়েছেন।

উল্লেখ্য, গত ৩ সেপ্টেম্বর সন্ধ্যায় ইলিয়াস নোমান নিজ বাড়িতে যাওয়ার পথে যশরা এলাকায় যুবলীগ নেতা সারোয়ার জাহান ধনুর নেতৃত্বে ৫/৬ জন তাকে কুপিয়ে আহত করে। গুরুতর আহত নোমানকে উদ্ধার করে ওই রাতেই ঢাকায় পঙ্গু হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। ওই রাতেই ইলিয়াস নোমানের স্ত্রী মাহামুদা আক্তার বাদী হয়ে যুবলীগ নেতা সারোয়ার জাহান ধনু মিয়াসহ ৯ জনের নামে গফরগাঁও থানায় মামলা দায়ের করেছেন। 

 

 

/জেবি/

লাইভ

টপ