যাত্রী ছাউনিতে জন্ম নেওয়া শিশুর বাবা-মায়ের পরিচয় মিলেছে

Send
বরিশাল প্রতিনিধি
প্রকাশিত : ১৩:৩৭, সেপ্টেম্বর ১৯, ২০১৯ | সর্বশেষ আপডেট : ১৫:৪৮, সেপ্টেম্বর ১৯, ২০১৯

যাত্রী ছাউনিতে জন্ম নেওয়া শিশু হাসান

বরিশাল নগরীর চরকাউয়া খেয়াঘাটের যাত্রী ছাউনিতে জন্ম নেওয়া নবজাতক ও তার মানসিক প্রতিবন্ধী মাকে ভিকটিম সাপোর্ট সেন্টারে রাখা হয়েছে। মানসিক ভারসাম্যহীন ওই নারী ও শিশুর পিতৃ পরিচয় পাওয়া গেছে। কোতোয়ালি মডেল থানার ওসি নূরুল ইসলাম এ কথা জানান।

পুলিশ জানায়, ওই নারী বরিশালের মুলাদী উপজেলার কাজীরচর ইউনিয়নের চরডিক্রি গ্রামের বাসিন্দা মো. শাহজাহানের মেয়ে। তার নাম মাহফুজা বেগম। মাহফুজার স্বামী ফরিদপুরের শিবচরের আনোয়ার হোসেন। বুধবার মাহফুজার বাবা ভিকটিম সাপোর্ট সেন্টারে মেয়েকে দেখতে এসে পুলিশ কর্মকর্তাদের এ বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। পুলিশও মাহফুজার অভিভাবকের বিষয়টি নিশ্চিত হয়েছে।

মাহফুজার বাবা শাহজাহান জানান, বিয়ের পর থেকেই মাহফুজা মানসিক সমস্যায় ভুগছিল। প্রায়ই সে মানসিক ভারসাম্য হারিয়ে ফেলে। কিছুদিন পর আবার ঠিক হয়ে যায়। গত দুই মাস আগে মানসিক ভারসাম্য হারিয়ে স্বামীর বাড়ি ফরিদপুর থেকে সে বের হয়ে যায়। বিভিন্ন স্থানে খোঁজাখুঁজি করার পরও তার কোনও সন্ধান পাওয়া যাচ্ছিল না। এই শিশু তার নাতি এবং এ সন্তান আনোয়ার হোসেনের বলে তিনি জানান।

কোতোয়ালি মডেল থানার ওসি নূরুল ইসলাম জানান, মাহফুজা বেগম ও সন্তান বর্তমানে সুস্থ আছে। তাদের পরিচয় নিশ্চিত হওয়া গেছে। আগামী শুক্রবার সন্তানসহ মাহফুজাকে পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হবে।

ওসি আরও জানান, গত ১১ আগস্ট সন্ধ্যায় চরকাউয়া খেয়াঘাট যাত্রী ছাউনিতে ওই শিশুর জন্ম হয়। এ সময় এক নারী এগিয়ে এসে প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে তাদের মেডিক্যালে নেওয়ার ব্যবস্থা করেন।

তিনি জানান, এরপর তিনি মা ও শিশুর খোঁজখবর রাখাসহ সবধরনের ব্যবস্থা নেন। মেডিক্যাল কর্তৃপক্ষসহ সমাজসেবা অধিদফতরের সঙ্গে তিনি কথা বলেন। মা ও শিশু সুস্থ হওয়ায় পর তাদের ১৪ আগস্ট ভিকটিম সাপোর্ট সেন্টারে পাঠান। এরপর থেকেই তিনি ওই নারীর পরিচয় জানার চেষ্টা করেন। এর ধারাবাহিকতায় বুধবার ওই নারীর অভিভাবক এসে নিশ্চিত করেছেন মাহফুজা তাদের মেয়ে। তারাও মুলাদীতে খবর নিয়ে মাহফুজার অভিভাবকের বিষয়টি নিশ্চিত হয়েছেন।

এসআই আকলিমা জানান, শিশুর (৭ দিন) নাম রাখা হয়েছে হাসান। তার মা মানসিক ভারসাম্যহীন হওয়ায় তাদের দুজনকে কোতোয়ালি মডেল থানার পাশে ভিকটিম সাপোর্ট সেন্টারে রাখা হয়েছে। আমাদের নারী সদস্যরা শিশু ও তার মায়ের দেখাশোনা করছেন।

/জেবি/এমএমজে/

লাইভ

টপ