সিলেটে স্কুলছাত্র হত্যা মামলায় চার জনের ফাঁসির রায়

Send
সিলেট প্রতিনিধি
প্রকাশিত : ১৪:৩১, অক্টোবর ০৯, ২০১৯ | সর্বশেষ আপডেট : ১৪:৫১, অক্টোবর ০৯, ২০১৯

সিলেটসিলেটের দক্ষিণ সুরমায় স্কুলছাত্র নাঈম হত্যা মামলায় চার জনকে ফাঁসির রায় দিয়েছেন আদালত। বুধবার (৯ অক্টোবর) দুপুরে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের বিচারক মো. মুহিতুল হক এ রায় ঘোষণা করেন।
ফাঁসির দণ্ডপ্রাপ্ত আসামিরা হলেন- দক্ষিণ সুরমা উপজেলার পুরান তেতলী গ্রামের মো. ইসমাইল আলী, একই এলাকার মো. মিঠুন মিয়া ও তার ভাই রুবেল, দক্ষিণ সুরমা থানার দক্ষিণ ভার্থখলা ডি ব্লকের বিপ্লব ওরফে বিপলু।
এছাড়া অভিযোগ প্রমাণিত না হওয়ায় আদালত এ মামলা থেকে লক্ষ্মীপুর জেলার রামগঞ্জ থানার নাদবুদ (সুয়াজিবাড়ী) গ্রামের বর্তমানে নগরের কুয়ারপাড় ভাঙ্গাটিকর মা মঞ্জিল স্মৃতি আবাসিক এলাকার ১৫ নম্বর বাসার বাসিন্দা জুনায়েদ হোসেন ওরফে জুনেদ হোসেনকে অব্যাহতি দিয়েছেন।
বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন বাদীপক্ষের আইনজীবী গোলাম এহিয়া। তিনি বলেন, মামলার রায়ে আমরা সন্তুষ্ট। তিনি আসামিদের ফাঁসি দ্রুত কার্যকরের দাবি জানান। 
জানা যায়, দক্ষিণ সুরমা বলদি লিটল স্টার কিন্ডার গার্ডেনের চতুর্থ শ্রেণির ছাত্র ছিল মোজাম্মেল হোসেন নাঈম। ২০১১ সালের ১৪ আগস্ট তারাবির নামাজ পড়তে বাড়ি থেকে বের হলে তার আর কোনও সন্ধান মেলেনি। অপহরণের সাত দিন পর বাড়ির পাশে জঙ্গল থেকে বস্তাবন্দি অবস্থায় তার গলিত লাশ উদ্ধার করে পুলিশ।
এ ঘটনায় ২০১১ সালের ২০ আগস্ট নাঈমের বাবা আব্দুল হক বাদী হয়ে অজ্ঞাতমানা আসামি করে দক্ষিণ সুরমা থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলা দায়ের করেন।
দীর্ঘ তদন্ত শেষে ২০১১ সালের ২৬ নভেম্বর দক্ষিণ সুরমা থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) মো. হারুন মজুমদার পাঁচ জনকে অভিযুক্ত করে আদালতে এ মামলার অভিযোগপত্র দাখিল করেন। এতে অভিযুক্তদের মধ্যে ইসমাইল ও মিঠুন হত্যকাণ্ডের দায় স্বীকার করে আদালতে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি দিয়েছিলেন।
রায়ে সন্তুষ্টি প্রকাশ করে নিহত নাঈমের বাবা আব্দুল হক বলেন, দীর্ঘদিন পরে আমি আমার ছেলে হত্যার বিচার পেয়েছি। এখন খুনিদের ফাঁসি হলে আমি ও আমার পরিবার খুশি হবো।

/এআর/

লাইভ

টপ