ছদ্মনামে আসামি কারাগারে, ১০ বছরেও ছেলে হত্যার বিচার পাননি বাবা

Send
জয়পুরহাট প্রতিনিধি
প্রকাশিত : ১২:০৮, অক্টোবর ১৯, ২০১৯ | সর্বশেষ আপডেট : ১২:২৩, অক্টোবর ১৯, ২০১৯

 

সংবাদ সম্মেলনে জামাল উদ্দিন১০ বছরেও ছেলে আব্দুল হাকিম হত্যার বিচার পাননি বাবা জামাল উদ্দিন। মামলার প্রধান আসামিকে এখনও গ্রেফতারও করতে পারেনি পুলিশ। জানা গেছে আসামি ছদ্মনামে বর্তমানে রাজশাহী কারাগারে আছেন। ছেলে হত্যার বিচারের দাবিতে এই বাবা প্রধানমন্ত্রী ও স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।

শুক্রবার (১৮ অক্টোবর) জয়পুরহাট প্রেস ক্লাবে সংবাদ সম্মেলন তিনি এ দাবি জানান। জামাল উদ্দিনের বাড়ি জুযপুরহাটের কালাই পূর্ব পাড়া মহল্লায়। তিনি কালাই ডিগ্রি কলেজের দফতরি ছিলেন। দুই বছর আগে আবসরে গেছেন।

সংবাদ সম্মেলনে জামাল উদ্দিন বলেন, ২০০৯ সালের ২৮মে কথা কাটাকাটির জের ধরে তার ছেলে আব্দুল হাকিমকে প্রকাশ্য ছুরিকাঘাতে হত্যা করে লেবু মিয়াসহ কয়েকজন। এ ঘটনায় তিনি বাদী হয়ে সাত জনের বিরুদ্ধে আদালতের মাধ্যমে থানায় মামলা করেন। আসামিরা হলো, কালাই সদরের কাজীপাড়া মহল্লার মিঠু, বাদশা, রাশেদ ও একই উপজেলার মোলামগাড়ি বাজারের লেবু ও সেবু রকি এবং বালাইটের আবুল কালাম আজাদ। এদের মধ্যে প্রধান আসামি মিঠু,লেবু ও সেবুকে গত ১০ বছরেও গ্রেফতার করতে পারেনি পুলিশ।

কারাগারে থাকা প্রধান আসামী লেবুলেবুর বিরুদ্ধে মাদক ও সন্ত্রাসসহ নানা অপরাধের অভিযোগ রয়েছে দাবি করে তিনি বলেন, চলতি বছরের ৩১ জুলাই লেবু ফেনসিডিলসহ বাঘা থানায় গ্রেফতার হয়। সেখানে লেবু নিজের নাম গোপন করে আব্দুস সাত্তার পরিচয় দেয়। লেবু সাজু নাম নিয়ে রাজশাহী কারাগারে আছেন। বিষয়টি তিনি কালাই থানায় জানিয়েছেন। কালাই থানা কর্তৃপক্ষ ব্যবস্থা নেওয়ার আশ্বাস দিলেও এখন পর্যন্ত লেবুকে হত্যা মামলায় গ্রেফতার দেখানো হয়নি। এসময় তিনি ফেনসিডিলসহ গ্রেফতার হওয়া লেবু ওরফে সাজুর ছবিসহ বিভিন্ন গণমাধ্যমে প্রকাশিত সংবাদের ফটোকপি সংবাদ সংবাদকর্মীদের সরবরাহ করেন।

ফেনসিডিলসহ আটকের পর সহযোগীদের সঙ্গে লেবু (মাথা নিচু করে দাঁড়ানো)কান্না জড়িত কণ্ঠে তিনি বলেন, ‘এ মামলা চালাতে গিয়ে আমি এখন নিঃস্ব। ছেলের হত্যাকারী আসামি লেবু তার সহযোগীদের সঙ্গে এখনও রাজশাহী জেলখানায় আছেন। মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর কাছে আবেদন আমি আমার ছেলে হত্যার বিচার চাই।’

কালাই থানার ওসি আবদুল লতিফ খান বলেন, আসামি লেবুকে শোন অ্যারেস্ট দেখানো জন্য জয়পুরহাট আদালতের মাধ্যমে রাজশাহী আদালতে আবেদন করা হয়েছে। আবেদনের স্মারক নম্বর ২৪৪১।

/এসটি/

লাইভ

টপ