পঞ্চগড়ে চাকরি দেওয়ার নামে টাকা আত্মসাতের অভিযোগ স্কুলশিক্ষকের বিরুদ্ধে

Send
পঞ্চগড় প্রতিনিধি
প্রকাশিত : ২৩:২৫, অক্টোবর ১৯, ২০১৯ | সর্বশেষ আপডেট : ২৩:৫৭, অক্টোবর ১৯, ২০১৯

পঞ্চগড়পঞ্চগড় জেলার দেবীগঞ্জে ভুয়া চাকরির নিয়োগপত্র তৈরি করে সরকারের বিভিন্ন দফতরে চাকরি দেওয়ার কথা বলে প্রায় অর্ধকোটি টাকা আত্মসাতের অভিযোগ উঠেছে। বিপুল কুমার রায় (৪৩) নামে এক শিক্ষকের বিরুদ্ধে এই টাকা হাতিয়ে নেওয়ার অভিযোগ উঠেছে। তবে সব অভিযোগ অস্বীকার করেছেন তিনি। ভুক্তভোগীরা এ বিষয়ে দেবীগঞ্জ থানায় তার বিরুদ্ধে মামলা করেছেন।

বিপুল বম্মোত্তর সুন্দরদীঘি সরকারপাড়া গ্রামের শ্রী হরিশ চন্দ্র রায়ের ছেলে। তিনি নীলফামারী জেলার ডোমার উপজেলার সোনারায় ফার্মেরহাট নিম্ম মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের হিন্দু ধর্ম বিষয়ের সহকারী শিক্ষক।

বিশ্বনাথ রায় নামে এক আত্মীয় অভিযোগ করেন, তার কাছ থেকে চাকরি দেওয়ার নাম করে দুই লাখ ৩০ হাজার টাকা হাতিয়ে নিয়েছেন বিপুল। তার ছোট ছেলেকে সমাজসেবা অধিদফতরে নিয়োগ দেওয়ার কথা বলে বিপুল এই টাকা নেন। বিশ্বনাথ রায় বলেন, ‘বিপুল টাকা নেওয়ার আগে চাকরি না হলে টাকা ফেরত দেওয়া হবে বলে জানায়। কিন্তু আমার ছেলের চাকরি দিতে পারেনি। এখন টাকাও ফেরত দিচ্ছে না।’

বিপুল সহকর্মী শ্রী কৃষ্ণকুমার রায়ের কাছ থেকেও চাকরির কথা বলে টাকা নিয়েছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। জানা গেছে, কৃষ্ণকুমার রায় ছেলের রেলওয়েতে চাকরির জন্য ১২ লাখ টাকা দেন বিপুলকে। কৃষ্ণকুমার রায় বলেন, ‘বিপুল যাদের কাছে টাকা নিয়েছে সবাই তার নিকটাত্মীয়।’

দেবীগঞ্জ উপজেলার সুন্দরদিঘী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান পরেশ চন্দ্র সরকার বলেন, ‘আমার কাছে বিপুলের বিরুদ্ধে চাকরি দেওয়ার নাম করে টাকা আত্মসাতের মৌখিক এবং লিখিত একাধিক অভিযোগ এসেছে। আমি বিপুলকে এ বিষয়ে বার বার নোটিশ করেছি, কিন্তু সে আসে না। তারপরেও একজনের কিছু টাকা আদায় করে দিয়েছি। বাকি টাকাগুলো সে দেবে দেবে করে এখন পর্যন্ত দেয়নি।’

মামলা তদন্তকারী দেবীগঞ্জ থানার পুলিশের উপপরিদর্শক (এসআই) মহিউদ্দিন সরকার জানান, ‘আমি মামলাটি ব্যাপকভাবে তদন্ত করেছি। বিশ্বনাথ রায় ও বিপুল কুমার রায় পরেস্পরের আত্মীয়। তাদের মধ্যে আর্থিক লেনদেন হয়েছে এর সত্যতা পাওয়া গেছে।’

দেবীগঞ্জ উপজেলা চেয়ারম্যান আব্দুল মালেক চিশতি জানান, ‘বিপুল চাকরি দেওয়ার নামে অনেকের কাছেই টাকা নিয়েছেন এটা সত্য। তাকে হাজির হওয়ার জন্য বলা হলেও সে কোনও সাড়া দিচ্ছে না। তারপরেও অভিযোগকারীদের টাকা আদায় করে দেওয়ার চেষ্টা চলছে।’

এ বিষয়ে অভিযুক্ত বিপুল কুমার রায়ের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘ভাই আমার নামে মানুষ মিথ্যা অভিযোগ রটাচ্ছে।’ তিনি সব অভিযোগ অস্বীকার করেন।

/এমএএ/

লাইভ

টপ