ছাদে গাছ কাটার ভিডিও ভাইরালের পর এক নারী আটক

Send
সাভার প্রতিনিধি
প্রকাশিত : ১৪:১৭, অক্টোবর ২৩, ২০১৯ | সর্বশেষ আপডেট : ১৬:০১, অক্টোবর ২৩, ২০১৯

ছাদ বাগানে কাটা গাছসাভারের সিআরপি এলাকায় একটি ভবনের ছাদবাগানের গাছ কেটে ফেলার অভিযোগে আটক করা হয়েছে খালেদা আক্তার লাকি (৩৯) নামে এক নারীকে। বুধবার (২৩ অক্টোবর) সকালে সাভারের নিজ বাড়ি থেকে তাকে আটক করা হয়েছে বলে নিশ্চিত করেছেন সাভার থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা এএসএম সাঈদ।

এক নারী ছাদে লাগানো গাছ একটার পর একটা কাটছেন, আর টব ধ্বংস করছেন—এমন ভিডিও ভাইরাল হওয়ার পর সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে প্রতিবাদের ঝড় ওঠে।

ভিডিওতে দেখা যাচ্ছে, এক নারী দা হাতে অন্য একজনের তৈরি করা ছাদবাগানের সব গাছ কুপিয়ে কেটে ফেলছেন। গাছের মালিক দূরে দাঁড়িয়ে ওই নারীর কোপানোর দৃশ্য ভিডিও করেন এবং গাছ তার কী ক্ষতি করেছে, তা জানতে চান। গাছের মালিক ভিডিও করার পুরো সময়টা তাকে গাছ না কাটার অনুরোধ করেন এবং আর্তনাদ করতে থাকেন। এরপর সেই নারী দা হাতে গাছের মালিক নারীর দিকেও ছুটে  যান।

ছাদবাগানের গাছের মালিক সুমাইয়া হাবিব নামের ভুক্তভোগী ওই নারী ফেসুবকে নিজের গাছের ওপর এমন বর্বর আচরণের ভিডিও আর বিবরণ পোস্ট করেন।

তিনি লিখেছেন, ‘অন্যায়ের প্রতিবাদ করতে তার প্রতিবাদ করেছি। তারা ফ্ল্যাটের সবাইকে পারায়ে পুরায়ে রাখে।’

উল্টো অভিযোগ করে গাছকাটা নারী বলেন, ‘ভিডিওতে দেখায় নাই—আমাকেও উনারা মারতে চেয়েছেন।’ ঘটনার পরে অনুতপ্ত কিনা সাংবাদিকদের প্রশ্নে তিনি বলেন, ‘রাগের বশে করেছি। গাছের ওপর আমার কোনও ক্ষোভ নেই।’

এদিকে, খালেদা আক্তার লাকিকে আটকের ঘটনায় অভিনন্দন জানিয়ে কেউ কেউ ফেসবুকে  স্ট্যাটাস দিয়েছেন। মাহবুব কবীর মিলন সামাজিক কর্মী, সাধারণ জনগণ, সাংবাদিক, র‍্যাব, পুলিশ, সবাইকে আন্তরিক অভিনন্দন জানিয়ে লিখেছেন, ‘বাহ! আলহামদুলিল্লাহ। এটাই ফেসবুকের শক্তি…।’

আটকের খবর পাওয়ার পর ফখরুল আবেদীন লিখেছেন, ‘বৃক্ষপ্রেম ছড়িয়ে পড়ুক এক প্রজন্ম থেকে অন্য প্রজন্মে…গাছখেকো গ্রেফতার হওয়ার খুশিতে বাবা আর মেয়ে…।’

দা হাতে খালেদা আক্তার লাকি

গাছ কাটার ভিডিও ভাইরাল হওয়ার পর ‘গ্রিন সেভ’ নামের একটি সংগঠনের সভাপতি আহসান জনি ঘটনাস্থলে আসেন। তিনি বলেন, ‘গাছ কাটা মানুষ হত্যার সমতুল্য। এভাবে গাছ কাটা অন্যায় হয়েছে। তারা এ ঘটনায় সংগঠনের পক্ষ থেকে ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য সব ধরনের সহযোগিতা করবেন। এছাড়া, তাদের সংগঠনের পক্ষ থেকে বেশ কিছু গাছ দেওয়া হয়েছে।’

জানা গেছে, রত্না হাবিব সাভারের সিআরপি রোড এলাকায় এভিনিউ নক্ষত্র নামের একটি ভবনের ছয় তলায় দুটি ফ্ল্যাট কিনে বসবাস করেন। একই ফ্লোরে তাদের প্রতিবেশী নারী খালেদা আক্তার লাকিও একটি ফ্ল্যাটের মালিক। বিভিন্ন সময়ে প্রতিবেশী ওই দুই নারীর মধ্যে শত্রুতা তৈরি হয়। প্রায় চার মাস আগে রত্না হাবিব ও তার মেয়ে সুমাইয়া হাবিব ওই ভবনের ছাদের এক কোণে বেশ কয়েকটি টবের মধ্যে অর্ধশত ফল ও সবজি গাছ লাগান।

গাছ কাটছেন খালেদা আক্তার লাকি

সুমাইয়া হাবিব অভিযোগ করে বলেন, ‘প্রতিবেশী খালেদা আক্তার লাকির সঙ্গে বিভিন্ন বিষয়ে কথাকাটাকাটির একপর্যায়ে শত্রুতা তৈরি হয়। এই ভবনে ২৮টি ফ্ল্যাট রয়েছে। তারা (সুমাইয়া) দুটি ফ্ল্যাটের মালিক। ছাদে প্রত্যেকের মতো তাদেরও ব্যবহার করার অধিকার রয়েছে। এ কারণে ছাদের এক কোণে তারা টবে করে কিছু গাছ লাগান। গাছ সবাই পছন্দ করেন। গাছ সৌন্দর্য বাড়ায়। কোনও কারণ ছাড়াই শত্রুতার জেরে উনি আমাদের জীবন্ত গাছগুলো কেটে ফেলেছেন। গাছ তো তাদের কোনও ক্ষতি করেনি। পুরো ছাদই ফাঁকা ছিল।’

তিনি বলেন, ‘ওই নারীর (লাকি) ছেলে লিখন ১০-১২ জন সন্ত্রাসী নিয়ে এসে আমাদের হুমকি দিয়ে গেছে। অনেক আকুতি ও কান্নাকাটি করেও আমরা গাছগুলো রক্ষা করতে পারিনি।’

ওই ভবনের অন্যান্য ফ্ল্যাটের মালিকরা জানান, বিষয়টি দুঃখজনক। গাছ কাটার ঘটনায় তাদেরও খারাপ লেগেছে। এভাবে জীবন্ত গাছ কেটে ফেলা অন্যায় হয়েছে বলেও তারা জানান।

এদিকে গাছ কাটার ভিডিও ভাইরাল হওয়ার পর সাভার মডেল থানা পুলিশ বুধবার (২৩ অক্টোবর) সকালে ঘটনাস্থলে পৌঁছে অভিযুক্ত নারী লাকিকে আটক করে থানায় নিয়ে যায়।

সাভার থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা এএসএম সাঈদ বলেন, ‘আমরা অভিযোগ পেয়ে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য তাকে আটক করেছি।’ এছাড়া, র‌্যাবের একটি দল ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে।

/ইউআই/এপিএইচ/এমএমজে/

লাইভ

টপ