সাধু সাধু ধ্বনিতে শেষ হলো চীবর দান উৎসব

Send
রাঙামাটি প্রতিনিধি
প্রকাশিত : ২০:৩১, নভেম্বর ০৮, ২০১৯ | সর্বশেষ আপডেট : ২৩:৫৭, নভেম্বর ০৮, ২০১৯





কঠিন চীবর দান উৎসবে পূণ্যার্থীরালাখো পূণ্যার্থীর সাধু সাধু ধ্বনিতে রাঙামাটির রাজবন বিহারের দুই দিনব্যাপী ৪৬তম কঠিন চীবর দান উৎসব শেষ হয়েছে। শুক্রবার (৮ নভেম্বর) দুপুরে গৌতম বুদ্ধ ও বনভান্তের প্রতিকৃতিতে চীবর দান ও দেশনার মাধ্যমে অনুষ্ঠানের শেষ হয়। এ সময় চীবর গ্রহণ করেন রাজবন বিহারের আবাসিক প্রতিনিধি শ্রীমৎ প্রজ্ঞালঙ্কার মহাস্থবির।
চীবর দান উৎসবের আয়োজনশুক্রবার ভোর ৬টায় বুদ্ধ পতাকা উত্তোলনের মাধ্যমে দিনের কার্যক্রম শুরু হয়। সকাল ১০টায় অনুষ্ঠিত হয় দেব-মানবের তথা সব প্রাণীর কল্যাণে ধর্মদেশনা। ধর্মদেশনায় উপস্থিত ছিলেন শ্রীমৎ প্রজ্ঞালঙ্কার মহাস্থবির। চীবর তৈরির পর শুক্রবার দুপুর একটায় শোভাযাত্রা সহকারে কঠিন চীবর ও কল্পতরু মঞ্চে আনা হয়। পঞ্চশীল গ্রহণের পর দুপুর আড়াইটায় বনভান্তের মানব প্রতিকৃতির উদ্দেশে কঠিন চীবর উৎসর্গ করা হয়। এ সময় লাখো পুণ্যার্থীর সাধু সাধু ধ্বনিতে মুখরিত হয় উৎসব।




চীবর দান অনুষ্ঠানে ভিক্ষুরাশ্রীমৎ প্রজ্ঞালঙ্কার মহাস্থবির উৎসবে পার্বত্য অঞ্চলসহ সারা বিশ্বের মানুষের শান্তি কামনা করেন। আগামী দিনগুলোতে মারামারি-হানাহানি যেন বন্ধ হয়, সুখে-শান্তিতে সবাই মিলে পৃথিবীতে বাস করতে পারেন, এ কামনা করেন তিনি।
দানোৎসব অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন খাগড়াছড়ির মহিলা সংসদ সদস্য বাসন্তী চাকমা, জেলা প্রশাসক একেএম মামুনুর রশিদ, জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান বৃষ কেতু চাকমা, চাকমা সার্কেল চিফ ব্যারিস্টার দেবাশীষ রায় ও রানী ইয়েন ইয়েন, উপাসক-উপাসিকা পরিষদের সহ-সভাপতি গৌতমসহ বিভিন্ন স্তরের মানুষ।
এর আগে বৃহস্পতিবার (৭ নভেম্বর) বেইনঘর উদ্বোধনের মধ্য দিয়ে শুরু হয় বৌদ্ধদের এই উৎসব। উৎসবে লক্ষাধিক লোকের সমাগম হয়।

 

/আইএ/

লাইভ

টপ