behind the news
Vision  ad on bangla Tribune

গৃহবধূকে গণধর্ষণের অভিযোগে গ্রেফতার ২

গাইবান্ধা প্রতিনিধি১৯:২৪, মার্চ ২২, ২০১৬

গাইবান্ধা সদর উপজেলার মালিবাড়ি ইউনিয়নের খোর্দ্দ মালিবাড়ি গ্রামের এক গৃহবধূকে গণধর্ষণের অভিযোগে মানিক মিয়া (২৭) ও আলমগীর হোসেন (২৯) নামে দুই বখাটে যুবককে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। এছাড়া জড়িত অপর ৪ যুবককে গ্রেফতারের জন্য অভিযান অব্যাহত রেখেছে পুলিশ।
রবিবার দুপুরে গাইবান্ধা সদর উপজেলার খোলাহাটি ইউনিয়নের বাড়াইপাড়া গ্রাম থেকে তাদের গ্রেফতার করা হয়। গ্রেফতারকৃত মানিক মিয়া গাইবান্ধা সদর উপজেলার খোলাহাটি ইউনিয়নের বাড়াইপাড়া গ্রামের খয়বর হোসেনের ছেলে ও আলমগীর হোসেন একই গ্রামের মন্টু মিয়ার ছেলে। রবিবার ধর্ষিত গৃহবধূ গাইবান্ধা সদর থানায় মামলা দায়ের করলে পুলিশ আসামিদের গ্রেফতারে তৎপর হয়ে ওঠে।
গাইবান্ধা সদর থানার ওসি মেহেদি হাসান জানান, গৃহবধূ একজন গার্মেন্ট কর্মী। পরিবারের সবার অজান্তে তিনি প্রায় একমাস পূর্বে ঢাকায় ইমন নামের এক ছেলেকে বিয়ে করেন। ইমনও ঢাকায় একটি গার্মেন্টে চাকরি করেন। বিষয়টি পরে পরিবারের লোকজন জানতে পারে। তখন তাকে ঢাকা থেকে বাড়িতে আসতে বলা হয়। পরে গাইবান্ধা সদর উপজেলার খোর্দ্দমালিবাড়ী জাকিরের ভিটা গ্রামে ফুফাতো বোনের বিয়ের অনুষ্ঠানে আসে ওই গৃহবধূ। এরপর গত শুক্রবার (১৮ মার্চ) রাত ১০টার দিকে তিনি একটি অটোরিকশাযোগে ঢাকায় যাওয়ার উদ্দেশে ওখান থেকে গাইবান্ধা বাস টার্মিনালের দিকে রওনা হন। পথে দাড়িয়াপুরের কুমারপাড়া এলাকায় যাত্রী মানিক মিয়া, ছামিউল ইসলাম, লিমন, শরিফুল ইসলাম ও দেলোয়ার হোসেন তার মুখ চেপে ধরে জোর করে কুমারপাড়া এলাকায় শোলাগাড়ী বিলের ধান ক্ষেতে নিয়ে গিয়ে পালাক্রমে ধর্ষণ করে। পরে ওই রাতে তারা গৃহবধূকে পার্শ্ববর্তী আলমগীর হোসেন নামে একজনের বাড়িতে রেখে যায়। এদিকে আশ্রয়দাতা আলমগীরও তাকে অচেতন অবস্থায় ওই রাতেই ধর্ষণ করে।
তিনি আরও জানান, পরদিন ওই যুবকরা গৃহবধূকে একটি অটোরিকশায় তুলে গাইবান্ধার উদ্দেশে পাঠিয়ে দেয়। গৃহবধূ ঢাকায় গিয়ে সেখানে অবস্থানরত তার স্বামীকে সব কথা খুলে বলেন। তার স্বামী ইমন আলী শনিবার রাতেই তাকে সঙ্গে নিয়ে গাইবান্ধার উদ্দেশে রয়ানা দেন। রবিবার সকালে এ ঘটনায় ওই গৃহবধূ বাদী হয়ে গাইবান্ধা সদর থানায় ছয়জনকে আসামি করে একটি ধর্ষণ মামলা দায়ের করেছেন (মামলা নম্বর-২৭)।

ওসি বলেন, মামলা দায়েরের পরেই পুলিশ অভিযান চালিয়ে দুজনকে গ্রেফতার করেছে। বাকিদের গ্রেফতারে পুলিশ তৎপর রয়েছে। গৃহবধূকে ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য গাইবান্ধা আধুনিক সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

/এএইচ/

Global Brand  ad on Bangla Tribune

লাইভ

টপ