দিনাজপুরে ৩৫ ইউনিয়ন পরিষদের অর্ধেক ভোটকেন্দ্রই ঝুঁকিপূর্ণ

দিনাজপুর প্রতিনিধি১৮:৩৮, মার্চ ২৯, ২০১৬

দিনাজপুর

দ্বিতীয় দফা ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনের অংশ হিসেবে দিনাজপুরে ৫টি উপজেলার ৩৫টি ইউনিয়নে ভোট নেওয়া হবে আগামী ৩১ মার্চ। তবে এসব ইউনিয়নের প্রায় অর্ধেক ভোটকেন্দ্রই ঝুঁকিপূর্ণ বলে মনে করছে প্রশাসন।

জেলা নির্বাচন কার্যালয় সূত্রে জানা যায়, দ্বিতীয় দফায় আগামী ৩১ মার্চের নির্বাচনে দিনাজপুর জেলার নবাবগঞ্জ, বিরামপুর, ফুলবাড়ী, কাহারোল ও বোচাগঞ্জ-এই ৫টি উপজেলার মোট ৩৫টি ইউনিয়নে ভোট নেওয়া হবে। এসব ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে ১৪৯ জন, সাধারণ সদস্য পদে ১ হাজার ১৭৩ জন ও সংরক্ষিত মহিলা সদস্য পদে ৪১৭ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।

দিনাজপুর পুলিশের বিশেষ শাখা সূত্রে জানা যায়, গোয়েন্দা প্রতিবেদনের ভিত্তিতে আগামী ৩১ মার্চ অনুষ্ঠিতব্য ভোটে দিনাজপুরের ৫টি উপজেলার ৩৫টি ইউনিয়নের ৩১৮টি ভোটকেন্দ্রের মধ্যে ১৫৫টি ভোট কেন্দ্র অতি ঝুঁকিপূর্ণ হিসেবে চিহ্নিত করা হয়েছে। আর ঝুঁকিহীন ভোটকেন্দ্রের সংখ্যা ১৬৩টি।

ইতোমধ্যে বিরামপুর উপজেলার খানপুর ইউনিয়নের ১নং ওয়ার্ড, মুকুন্দপুর ইউনিয়নের ৬নং ওয়ার্ড, ফুলবাড়ী উপজেলার কাজিহাল ইউনিয়নের ৭নং ও ৯নং ওয়ার্ড এবং নবাবগঞ্জ উপজেলার কুশদহ ইউনিয়নের ১নং ওয়ার্ডে সাধারণ মেম্বার ৫ জন বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হয়েছেন।

নবাবগঞ্জ উপজেলার ৯টি ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে ৪০ জন, ১২৭ জন সংরক্ষিত মহিলা সদস্য পদে ও ৩১৭ জন সাধারণ সদস্য পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। এই উপজেলার ১ লাখ ৬৫ হাজার ১০৮ জন ভোটার মোট ৮১টি কেন্দ্রে তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করবেন। এর মধ্যে ৬৬টি কেন্দ্রকে ঝুঁকিপূর্ণ বা গুরুত্বপূর্ণ মনে করছে প্রশাসন।

বিরামপুর উপজেলার ৭টি ইউনিয়নে ৩২ জন প্রার্থী চেয়ারম্যান পদে, সংরক্ষিত মহিলা সদস্য পদে ৭৩ জন ও সাধারণ সদস্য পদে ২১৫ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। ৭টি ইউনিয়নে মোট ১ লাখ ২৭ হাজার ৫১৫ জন ভোটার ৬৩টি কেন্দ্রে তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করবেন। যার মধ্যে ৩০টি কেন্দ্রকে ঝুঁকিপূর্ণ বা গুরুত্বপূর্ণ বলে চিহ্নিত করেছে প্রশাসন। 

জেলার ফুলবাড়ী উপজেলার ৭টি ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে ২৪ জন, সংরক্ষিত মহিলা সদস্য পদে ৭৭ জন ও সাধারণ সদস্য পদে ২১০ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। অনুষ্ঠিতব্য নির্বাচনে মোট ১ লাখ ২৮ হাজার ৪৫১ জন ভোটার ৬৪টি কেন্দ্রে তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করবেন। এর মধ্যে ১৯টি কেন্দ্রকে ঝুঁকিপূর্ণ বা গুরুত্বপূর্ণ বলে মনে করছে প্রশাসন।

একই দিনে অনুষ্ঠিতব্য কাহারোল উপজেলার ৬টি ইউনিয়নের নির্বাচনে ৩১ জন চেয়ারম্যান, ৭১ জন সংরক্ষিত মহিলা সদস্য ও ২২৫ জন সাধরণ সদস্য প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। ৫৪টি কেন্দ্রে ১ লাখ ১০ হাজার ৯১৩ জন তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করবেন। যার মধ্যে ১৬টি কেন্দ্রকে ঝুকিপূর্ণ বা গুরুত্বপূর্ণ বলে মনে করছে প্রশাসন।

আর জেলার বোচাগঞ্জ উপজেলার ৬টি ইউনিয়নের নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে ২২ জন, সংরক্ষিত মহিলা সদস্য পদে ৬৯ জন ও সাধারণ সদস্য পদে ২০৬ জন প্রার্থী হয়েছেন। মোট ১ লাখ ১৪ হাজার ৫৯৩ জন ভোটারের জন্য মোট ৫৪টি কেন্দ্রে প্রস্তুত করা হয়েছে। যার মধ্যে ২৪টি কেন্দ্রকে ঝূঁকিপূর্ণ বা গুরুত্বপূর্ণ বলে চিহ্নিত করেছে প্রশাসন।

ইউপি নির্বাচন-২০১৬

নির্বাচন সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণ পরিবেশে অনুষ্ঠানের জন্য পুলিশ ও আনসারের ৭১১১ জন সদস্য মোতায়েন করা হবে। এর মধ্যে ১৭০৫ জন পুলিশ, ৬৩৬ জন অস্ত্রধারী আনসার এবং ৪৭৭০ জন লাঠিধারী আনসার সদস্য নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকবেন। নির্বাচনের দিন জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেটসহ র‌্যাব ও বিজিবির সদস্যরা স্ট্রাইকিং ফোর্স হিসেবে ৫টি উপজেলায় সার্বক্ষণিক নজরদারী রাখবেন বলেও জানা গেছে।

দিনাজপুরের পুলিশ সুপার রুহুল আমিন জানান, নির্বাচনপূর্ব ও নির্বাচন পরবর্তী সময়ে আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে পুলিশ সবসময় কাজ করছে। নির্বাচনের দিন যাতে করে কোনও ধরনের অপ্রীতিকর ঘটনা না ঘটে সেজন্য কেন্দ্রে পুলিশ মোতায়েন থাকবে। পাশাপাশি অন্য বাহিনীর সদস্যরাও থাকবে নির্বাচনি মাঠে।

দিনাজপুর জেলা সিনিয়র নির্বাচন কর্মকর্তা নুরুজ্জামান তালুকদার জানান, আগামী ৩১ মার্চ দ্বিতীয় ধাপের ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন করার লক্ষ্যে সব ধরনের পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে। নির্বাচন কমিশনের দেওয়া নির্দেশনা অনুযায়ী তারা সব প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছেন।

/এফএস/

লাইভ

টপ