behind the news
Rehab ad on bangla tribune
 
Vision Refrigerator ad on bangla Tribune

মানিকগঞ্জে জাল ভোট দেওয়ার সময় আ. লীগ প্রার্থীর সমর্থক গুলিবিদ্ধ

মানিকগঞ্জ প্রতিনিধি১৮:১৩, মার্চ ৩১, ২০১৬

মানিকগঞ্জের হরিরামপুরের বয়ড়া ইউনিয়নের ৩৫নং উজান বয়ড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্র দখল করে নৌকা প্রতীকে জাল ভোট প্রদান ও পুলিশের কাছ থেকে শর্টগান ছিনিয়ে নেওয়ার চেষ্টাকালে পুলিশের ছোড়া গুলিতে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী হাসান ঈমাম বাবুর সমর্থক ও ছোট ভাই সৈয়দ হুমায়ুন ঈমাম সিরাজ(৪৫) গুলিবিদ্ধ হয়েছেন।

বিকাল পৌনে তিনটার দিকে এ ঘটনা ঘটে। ভোটকেন্দ্রের দায়িত্বে থাকা পুলিশের সহকারী উপ-পরিদর্শক (এএসআই ) মোস্তাক হোসেন বিষয়টি নিশ্চিত করেন।

নির্বাচনি সহিংসতা

ভোটকেন্দ্রের প্রিজাইডিং অফিসার বিজয় কুমার রায় জানান, ২০/২৫ জনের একদল বহিরাগত কেন্দ্র দখল করে কেন্দ্রের পুলিং অফিসার দিলরুবা খানমের কাছ থেকে ব্যালট ছিনিয়ে নেয়।

ওই কেন্দ্রের সহকারী প্রিজাইডিং অফিসার আব্দুল কাদের জানান, বহিরাগত লোকরা নৌকা প্রতীকে জোরপূর্বক সিল মারতে থাকে। সংরক্ষিত নারী আসনের এক মেম্বার প্রার্থীর মাইক মার্কা ও পুরুষ মেম্বার প্রার্থীর মোরগ মার্কায় জাল ভোট পড়ে বলেও তিনি জানান।

ভোট কেন্দ্রে দায়িত্বে থাকা এএসআই মোস্তাক হোসেন জানান, প্রিজাইডিং অফিসারের নির্দেশে তিনি পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে তিন রাউন্ড গুলি ছুড়েন। এসময় বহিরাগত লোকজন লিটন মিয়া নামের এক পুলিশ কনেস্টেবলের কাছ থেকে শর্টগান ছিনিয়ে নেওয়ার চেষ্টাকালে গুলি ছুড়লে সৈয়দ হুমায়ুন ঈমাম সিরাজ(৪৫) গুলিবিদ্ধ হন।

গুলি বিদ্ধের ঘটনার পর উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়লে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে ঘটনাস্থলে দ্রুত পুলিশ,র‌্যাব,বিজিবি ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটের বেশ কয়েকটি টিম ভোটকেন্দ্রে অবস্থান নেন। গুলির ঘটনার জের ধরে এলাকায় আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে এবং আধঘণ্টা ভোট গ্রহণ স্থগিত থাকে।

এদিকে সকাল সাড়ে দশটার দিকে বয়ড়া ইউনিয়নের আন্ধারমানিক ফোরকানিয়া মাদ্রাসা ও যাত্রাপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ভোটকেন্দ্র দুটি দখলে নেয় আওয়ামা লীগ নেতাকর্মীরা। নেতাকর্মীদের হাতে লাঞ্ছিত হয়েছেন বিএনপির চেয়ারম্যান প্রার্থী ও বর্তমান চেয়ারম্যান জাহিদুর রহমান তুষার ও মেম্বার প্রার্থী আবু সাঈদ। এসময় সাংবাদিকদের ওপর চড়াও হন মুকুল নামের এক ছাত্রলীগ কর্মী।

প্রথমে সকালে বয়ড়া ইউনিয়নের আন্ধারমানিক ফোরকানিয়া মাদ্রাসা ভোটকেন্দ্রে জেলা যুবলীগের এক নেতার নেতৃত্বে বেশ কিছু সংখ্যক বহিরাগতরা কেন্দ্র দখলের চেষ্টা চালায়। এসময় বিএনপি সমর্থিত চেয়ারম্যান প্রার্থী জাহিদুর রহমান তুষার প্রতিবাদ করতে গেলে নৌকার সমর্থকের নেতাকর্মীরা তার গায়ে হাত তোলেন। এক পর্যায়ে সেখানে ধস্তাধস্তি ও বাকবিতণ্ডা হয়। পরে বিএনপি সমর্থিত প্রার্থীকে ভয়ভীতি দেখিয়ে সেখান থেকে সরিয়ে দেওয়া হয়।

দুপুরে একই ইউনিয়নের যাত্রাপুর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ভোট কেন্দ্রে আওয়ামী লীগ প্রার্থীর বহিরাগত লোকজন দখলে নেয় এবং জাল ভোট দেয়। এসময় বিভিন্ন প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক মিডিয়ার সাংবাদিদের ওপর চড়াও হন ছাত্রলীগ কর্মী মুকুল। এর আগে মেম্বার প্রার্থী আবু সাঈদকে মারপিট করে ও তার লোকজনকে কেন্দ্র থেকে বের করে দেয়।

বয়রা ইউনিয়নে জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান প্রার্থী আহমেদ মীর কাওসার অভিযোগ করে বলেন, ছাত্রলীগ নেতা মুকুলের নেতৃত্বে বেশ কিছু বহিরাগতরা কেন্দ্রে প্রবেশ করে প্রায় ২শ’ জাল ভোট দেয়। পুলিশ ও প্রিজাইডিং অফিসারের কাছে বারবার অভিযোগ করা হলেও তারা আমলে নেননি। 

বিএনপি সমর্থিত চেয়ারম্যান প্রার্থী জাহিদুর রহমান তুষার জানান, জেলা আওয়ামী লীগ ও যুবলীগের দুই নেতার নেতৃত্বে বহিরাগতরা দুটি কেন্দ্র দখলে নেয়। আন্ধারমানিক ফোরকানিয়া মাদ্রাসা কেন্দ্রে  তাদের অনিয়নে বাধা দিতে গেলে তারা আমার ওপর হাত তোলেন। পাশাপাশি যাত্রাপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ভোটকেন্দ্রটিও বহিরাগতরা দখলে নিয়ে সেখানে জাল ভোট দেয়। বিএনপির কোন পোলিং অ্যাজেন্ট দিতে দেননি আওয়ামী লীগ নেতারা।

যাত্রাপুর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় ভোট কেন্দ্রের প্রিজাইডিং অফিসার আ. মতিন জানান, ভোট কেন্দ্রের বাইরে একজন মেম্বারকে মারধরের কথা শুনেছি। এছাড়া যে অভিযোগগুলো এসেছে সেসব সঠিক নয়।

প্রিজাইডিং অফিসার আরও জানান, সকালে উপজেলার গালা ইউনিয়নের কলতা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে বহিরাগতরা কেন্দ্রে প্রবেশ করার চেষ্টা করলে পুলিশ তাদের বাধা দেয়। এ সময় পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে চার রাউন্ড রাবার বুলেট ছোড়ে পুলিশ।

/এইচকে/ 

Ifad ad on bangla tribune

লাইভ

Nitol ad on bangla Tribune
টপ