সিলেটে রাস্তা সংস্কারের দাবিতে অনির্দিষ্টকালের ধর্মঘট

Send
সিলেট প্রতিনিধি
প্রকাশিত : ১৪:০০, এপ্রিল ০৫, ২০১৬ | সর্বশেষ আপডেট : ১৪:১১, এপ্রিল ০৫, ২০১৬

সিলেট-কোম্পানীগঞ্জ-ভোলাগঞ্জ রাস্তা সংস্কারের দাবিতে বুধবার থেকে অনির্দিষ্টকালের ধর্মঘটের ডাক দিয়েছে স্থানীয় ১১টি সংগঠন। একই দাবিতে তারা ৮ এপ্রিল সড়ক অবরোধ এবং সিলেটের জেলা প্রশাসক এবং সড়ক ও জনপথ অধিদফতরের (সওজ) এর কার্যালয় ঘেরাওয়ের কর্মসূচি দিয়েছে। সালুটিকর পাথর ব্যবসায়ী মালিক সমবায় সমিতির সাধারণ সম্পাদক ইকলাল আহমদ বাংলা ট্রিবিউনকে জানান, ‘আমরা আর আশার বাণী শুনতে চাই না। চাই কোন তারিখে রাস্তা সংস্কার-পুনর্নির্মাণ কাজ শুরু হবে- এই অঙ্গীকার । তা না হলে আমরা আমাদের অনির্দিষ্টকালের ধর্মঘট কর্মসূচি থেকে পিছপা হব না।’

সিলেট-কোম্পানিগঞ্জ-ভোলাগঞ্জ সড়কের বেহাল দশা

সংশ্লিষ্টরা জানান, সিলেট জেলা ট্রাক কাভার্ড ভ্যান শ্রমিক ইউনিয়ন, জেলা ট্রাক কাভার্ড ভ্যান মালিক গ্রুপ, সালুটিকর-কোম্পানীঞ্জ-গোয়াইনঘাট বাস মালিক সমিতি, আম্বরখানা-সালুটিকর-কোম্পানীগঞ্জ সিএনজি অটোরিকশা শ্রমিক ইউনিয়ন ৭০৭, ধোপাগুল পাথর ব্যবসায়ী মালিক সমিতি, ধোপাগুল পাথর ব্যবসায়ী মালিক সমিতি, সালুটিকর পাথর ব্যবসায়ী মালিক সমবায় সমিতি, ছালিয়া সবুজ বাংলা যুব সংঘ, রঙ্গিটিলা সমাজ কল্যাণ সংস্থা, গোধুলী সমাজ কল্যাণ সংস্থা এবং খাদিম নগর ছাত্র কল্যাণ সংস্থা এ ধর্মঘটের ডাক দিয়েছে।

সড়ক ও জনপথ অধিদফতরের কুমিল্লা জোনের অতিরিক্ত প্রধান প্রকৌশলী ইফতেখার কবির এ প্রতিবেদককে জানান, টেন্ডার সংক্রান্ত সকল প্রক্রিয়া শেষে প্রকল্পটি এখন ক্রয় সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটির অনুমোদনের অপেক্ষায় আছে। এ অনুমোদন পাওয়া গেলেই তারা প্রকল্পের কাজ শুরু করতে পারবেন বলে জানান।

অপর এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, সব প্রক্রিয়া শেষ করে ১৬ ফেব্রুয়ারি তারা প্রকল্পটি সওজের প্রধান প্রকৌশলীর দফতরে পাঠিয়েছেন। সেখান থেকে প্রকল্পটি পাঠানো হয় সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রীর দফতরে। মন্ত্রীর স্বাক্ষরের পর প্রকল্পটি ফের প্রধান প্রকৌশলীর দফতরে পাঠানো হয়েছে। এখান থেকে প্রকল্পটি ২/১ দিনের মধ্যে ক্রয় সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটিতে পাঠানো হবে বলে জানান তিনি। মেসার্স রেজা কনস্ট্রাকশন ও মোনায়েম লিমিটেড’কে দরপত্র দাতা হিসাবে চূড়ান্ত করা হয়েছে।

সিলেট-কোম্পানিগঞ্জ সড়কের এমন বেহাল দশা যে ডানবাহন উল্টে যায় যে কোনও সময়

স্থানীয় সমাজকর্মী এ এইচ মালিক ইমন জানান, গত ২১ জানুয়ারি ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এ সড়কের সংস্কার ও পুনর্নির্মাণ কাজের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেন। কিন্তু প্রায় আড়াই মাস হতে চললেও সড়কের সংস্কার ও পুনর্নির্মাণের কোনও উদ্যোগই পরিলক্ষিত হয়নি। বর্তমানে সড়কটি অনেকটা চলাচলের অনুপযোগী হয়ে পড়েছে। এ কারণে জনদুর্ভোগও চরম আকার ধারণ করেছে। প্রতিদিন গর্তের মধ্যে আটকা পড়ছে ছোট বড় বিভিন্ন প্রকার যানবাহন। প্রতিনিয়ত ঘটছে দুর্ঘটনা। মানুষ হেঁটেও এ রাস্তা দিয়ে চলাচল করতে পারছে না।

সিলেট-কোম্পানীগঞ্জ-ভোলাগঞ্জ সড়ক গত আট বছর ধরে মৃত্যু ফাঁদে পরিণত হয়েছে। ৩৭ কিলোমিটার দীর্ঘ এ সড়কের যত্রতত্র সৃষ্টি হয়েছে শতাধিক বিশাল গর্ত। এর মধ্যে প্রায় ৩০ কিলোমিটার রাস্তার পিচ একেবারে উঠে গেছে। সড়কটির জীর্ণ দশার কারণে ভোলাগঞ্জে পাথর পরিবহনতো দূরের কথা যাত্রী পরিবহনও ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে উঠেছে। গত তত্ত্বাবধায়ক সরকারের আমল থেকে এ নিয়ে অনেক আন্দোলন হয়েছে। ২০১৫ সালের ৭ এপ্রিল জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদ একনেক-এর নির্বাহী কমিটির সভায় ৪৪১ কোটি ব্যয়ে সড়কটি সংস্কার ও পুনর্নির্মাণ প্রকল্প অনুমোদন করা হয়। চলতি অর্থ বছরে সড়কটির জন্য ৬০ কোটি টাকা বরাদ্দও করা হয়। কিন্তু, ক্রয় কমিটির অনুমোদন না পাওয়ায় প্রকল্পটির কাজ শুরু হচ্ছে না বলে সংশ্লিষ্ট সূত্র জানিয়েছে।

/বিটি/টিএন/

লাইভ

টপ