Vision  ad on bangla Tribune

বগুড়ায় গ্রেনেড বিস্ফোরণনিহত জেএমবি সদস্যের তিন ভাই আটক

বগুড়া প্রতিনিধি১৮:৫৯, এপ্রিল ০৫, ২০১৬

আটকবগুড়ার শেরপুরে গ্রেনেড বিস্ফোরণের ঘটনায় নিহত জেএমবি সদস্য তরিকুল ইসলামের তিন ভাইকে আটক করেছে পুলিশ।  সোমবার রাতে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য তাদের আটক করা হয়। এদিকে মঙ্গলবার বিকাল পর্যন্ত অপর নিহত ব্যক্তির পরিচয় পাওয়া যায়নি।  নিহত দুজনের লাশ শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল মর্গের হিমঘরে রাখা রয়েছে।
আটককৃতরা হলেন, ইসলামী ব্যাংক সিরাজগঞ্জের উল্লাপাড়া শাখার সিনিয়র অফিসার সানাউল্লাহ, স্থানীয় জামুয়া প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক লিয়াকত আলী ও বরকত উল্লাহ। তারা শিয়ালকোল ইউনিয়নের জামুয়া গ্রামের বাসিন্দা।
জানা গেছে, তরিকুলের পরিচয় নিশ্চিত হওয়ার পর পুলিশ কর্মকর্তারা তার বাবা আবু বক্কার সিদ্দিক, ব্যাংকার ভাই সানাউল্লাহ, শিক্ষক লিয়াকত আলী, বরকত উল্লাহ, বোন শাকেরা খাতুন এবং অপর ভাই আহসান হাবিবের স্ত্রী মাহবুবা খাতুনকে জিজ্ঞাসাবাদ করে।  পুলিশ অধিকতর জিজ্ঞাসাবাদের জন্য সোমবার রাতে সানাউল্লাহ, লিয়াকত আলী ও বরকতকে  আটক করেছে।
পুলিশ ও পরিবারের সদস্যরা জানায়, তরিকুল ইসলাম কুষ্টিয়া ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র ছিলেন। তিনি ২০০৫ সালের ১৭ আগস্ট দেশব্যাপী জেএমবির সিরিজ বোমা হামলার সময় সিরাজগঞ্জ আদালত চত্বরে বোমা হামলার ঘটনায় গ্রেফতার হয়েছিলেন। তিন বছর কারাবাসের পর ২০০৯ সালে বেকসুর খালাস পান তিনি।

ভাই সানাউল্লাহ সাংবাদিকদের জানান, ছয় ভাইয়ের মধ্যে তরিকুল সবার ছোট। গত কোরবানির ঈদের পর থেকে পরিবারের সঙ্গে তার কোনও যোগাযোগ নেই। তার নিখোঁজ হওয়ার ব্যাপারে সিরাজগঞ্জ সদর থানায় জিডি করা হয়েছিল।

বগুড়ার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আরিফুর রহমান মণ্ডল জানান, গ্রেনেড বিস্ফোরণে নিহত একজন জেএমবির সদস্য তরিকুল। জিজ্ঞাসাবাদের জন্য তার তিন ভাইকে আটক করা হয়েছে। অপর জঙ্গির পরিচয় মঙ্গলবার দুপুর পর্যন্ত পাওয়া যায়নি। এদিকে মিজান নামে যে ব্যক্তি শেরপুরের ওই বাড়িটি ভাড়া নিয়েছিল। পুলিশ তাকে ও তার সহযোগীদের গ্রেফতারে অভিযান অব্যাহত রেখেছে। এছাড়া নিহত অপর জঙ্গির পরিচয় বের করতে খোঁজ-খবর নেওয়া হচ্ছে।

উল্লেখ্য, গত রবিবার (৩ এপ্রিল) রাতে  বগুড়ার শেরপুরের জুয়ানপুর কুঠিরভিটা গ্রামের একটি ভাড়া বাড়িতে গ্রেনেড বানানোর সময় বিস্ফোরণে তরিকুলসহ দুজন নিহত হন। পরদিন সকালে কাউন্টার টেরিজম ট্রান্স ন্যাশনাল ডিভিশনের বোমা নিষ্ক্রিয়করণ দলের সদস্যরা বাড়ি থেকে ২০টি তাজা গ্রেনেড, ৩০০ গ্রেনেট তৈরির কাঁচামাল ও সরঞ্জাম এবং ৭.৬৫ ক্যালিবারের ৪টি বিদেশি পিস্তল, ৬টি ম্যাগাজিন, ৪০ রাউন্ড গুলি, একটি মোটরসাইকেল, একটি বাইসাইকেল, জনতা ব্যাংকের কয়েকটি চেক বই ও দলিলসহ বিভিন্ন জিনিসপত্র জব্দ করেন।

/এআর /এএইচ/

লাইভ

টপ