অন্তঃসত্ত্বা স্কুলছাত্রীর আত্মহত্যা!

Send
বগুড়া প্রতিনিধি
প্রকাশিত : ০৬:৪৩, এপ্রিল ০৭, ২০১৬ | সর্বশেষ আপডেট : ২৩:৩৪, এপ্রিল ০৭, ২০১৬

আত্মহত্যার প্রতীকী ছবিবগুড়ার দুপচাঁচিয়ার ছাতনি গ্রামে ভগ্নিপতি রফিকুল ইসলামের ধর্ষণের শিকার হয়ে সাত মাসের অন্তঃস্বত্ত্বা সপ্তম শ্রেণির স্কুলছাত্রী আমেনা খাতুন (১৩) আত্মহত্যা করেছে বলে অভিযোগ পরিবারের। গত মঙ্গলবার রাতে ওই ছাত্রীর ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করে পুলিশ।
বুধবার দুপুরে ময়নাতদন্ত শেষে লাশ পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়। এ ঘটনায় ওই ছাত্রীর বাবা বাবলু আকন্দ থানায় মামলা করেছেন। পুলিশ রাতেই লাশ উদ্ধার করে অভিযুক্ত ভগ্নিপতি এবং তার মা রওশন আরাকে গ্রেফতার করেছে।
দুপচাঁচিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) নজরুল ইসলাম জানান, ভগ্নিপতি নাবালিকা আমেনাকে ফুসলিয়ে ধর্ষণ করলে সে অন্তঃসত্ত্বা হয়ে পড়ে।
পুলিশ ও আমেনার পরিবার সূত্রে জানা গেছে, দুপচাঁচিয়া উপজেলার ছাতনি গ্রামের আফসার আলীর ছেলে রফিকুল ইসলাম পাশের বড়বাড়িয়া গ্রামের বাবলু আকন্দের মেয়ে সুমি আকতারকে বিয়ে করেন। ইসলামপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের সপ্তম শ্রেণির ছাত্রী আমেনা প্রায়ই বোন সুমির শ্বশুর বাড়িতে বেড়াতে যেতো। এ সুযোগে গত ৯ অক্টোবর নাবালিকা আমেনাকে ফুঁসলিয়ে শারীরিক সম্পর্ক করে ভগ্নিপতি রফিকুল।
পরে অন্তঃসত্ত্বা হওয়ার বিষয়টি আমেনা রফিকুলকে জানালে, রফিকুল ও তার পরিবার আমেনাকে দোষারোপ করে। লজ্জা ও অভিমানে গত মঙ্গলবার রাত ৮টার দিকে ভগ্নিপতির বাড়ির একটি ঘরে সিলিং ফ্যানের সঙ্গে ওড়না বেঁধে আমেনা গলায় ফাঁস দেয়।
/এনএস/এমও/এমএসএম/

লাইভ

টপ